Category Archives: sects

হানাফী মাযহাবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও পরিচয়

Aminul islamas

#হানাফী মাযহাবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও পরিচয়
===============>>>><<<<===========
আমাদের সমাজে হানাফী মাযহাবের আলেমগণের মুখে ইমাম আবু হানিফার (রহঃ) নামে বহু রকম মনগড়া মিথ্যা, বানোয়াট কথাবার্তা শুনা যায় ৷ তাদের মিথ্যা ও মনগড়া বানোয়াট কথাবার্তার জবাব স্বরুপ সংক্ষেপে কিছু কথা তুলে ধরা হল:

#হাদীছ , তাফছীর, ফিকাহ্ কোন বিষয়েই ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) কোন কিতাব লিখে যাননি। তিনি বিভিন্ন লোককে বিভিন্ন বিষয়ে কিছু পত্র লিখেছিলেন। তার মৃত্যুর পর, ঐ সকল পত্রসমুহ বিভিন্ন নামে প্রকাশিত হয়। যেমন, ফিক্বহুল আকবার, আল-আকিমু অল-মুতায়াল্লিমু, আর-রাদ্দু আলাল-কাদ্রিয়াহ্ প্রভৃতি —– (রাদ্দুল মুহতার, মুকাদ্দামা, নাক্লু, মাযহাবি আবু হানীফা ১ম খন্ড ৩৮-পৃ)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহ) তার শিষ্যদিগকে মৌখিক শিক্ষাদান করতেন; তিনি তার কিছুই লিখে যাননাই।–(ইসলামী সংস্কৃতির ইতিহাস -১৯৬ পৃ: সামসুদ্দিন; ইসলামীক ফাউন্ডেশন ; বাংলাদেশ)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) আলোচনা মৌখিক করতেন ; শিষ্য বা অন্য কাউকে দিয়ে তার কোন মত বা ফতুয়া লেখাতেননা। তিনি বলতেন “আমি একজন মানুষ ; আজ একটি মত প্রকাশ করছি; পরেরদিন বিবেচনা করে দেখছি আমার গতকালের মত ঠিক ছিলনা। তাই গতকালের মত পরিবর্তন করি ৷ তাই আমার মতামত কেউ লিখে রাখবেনা”।–(তাবিলু মুখতালিফিল হাদীস -৬২-৬৩ পৃ: মুহাম্মদ বিন। কুতায়বা)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) এর কোন প্রানান্য লেখা বর্তমান নাই; হয়তো আদৌ ছিলনা।–(সংখিপ্ত ইসলামী বিশ্বকোষ -২৮ পৃ: ইসলামীক ফাউন্ডেশন ; প্রকাশকাল-১৯৮২-জুন)

অকাট্য ভাষ্য-ফিকাহৰ অন্ধ অনুসাৰীসকল

بِسۡمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحۡمَٰنِ ٱلرَّحِيمِ

অকাট্য ভাষ্য-

||নাহমাদুহু ওৱা নুচল্লি আলা ৰাছূলিহিল কাৰীম||

আল্লাহৰ সৰ্বশেষ কিতাব আল কুৰআন আৰু সৰ্বশেষ ও সৰ্বশ্ৰেষ্ঠ নবী মুহাম্মাদ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ হাদীছ নিঃচৰ্তভাৱে মানি লোৱা প্ৰত্যেকজন মুছলিমৰ ওপৰত ফৰজ। কুৰআন আৰু হাদীছৰ বিভিন্ন ঠাইত ইয়াৰ যথেষ্ট প্ৰমাণ বিদ্যমান আছে। আল্লাহে কৈছে-

* أَطِيعُواْ ٱللَّهَ وَأَطِيعُواْ ٱلرَّسُولَ

#আল্লাহৰ_হুকুম_মানা_আৰু_ৰাছূলৰ_হুকুম_মানা। (ছূৰা আন-নিছা: ৫৯)

* وَإِنْ تُطِيعُوهُ تَهْتَدُوا

#আৰু যদি তোমালোকে তেওঁৰ (ৰাছূলৰ) অনুসৰণ কৰা¸ তেন্তে সঠিক পথ প্ৰাপ্ত হ’বা। (ছূৰা আন-নুৰ: ৫৪)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْكَافِرُونَ

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফায়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই কাফিৰ। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৪)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফয়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই জালিম। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৫)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْفَاسِقُون

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফয়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই ফাছিক। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৭)

* اتَّبِعُوا مَا أُنْزِلَ إِلَيْكُمْ مِنْ رَبِّكُمْ وَلَا تَتَّبِعُوا مِنْ دُونِهِ أَوْلِيَاء

#তোমালোকৰ প্ৰতিপালকৰ ওচৰৰ পৰা তোমালোকৰ প্রতি যি নাজিল হৈছে তাৰেই অনুসৰণ কৰা আৰু তাক বাদ দি অন্য অলি/আউলিয়াৰ অনুসৰণ নকৰিবা। (ছূৰা আ’ৰাফ: ৩)

* فَلَا وَرَبِّكَ لَا يُؤْمِنُونَ حَتَّىٰ يُحَكِّمُوكَ فِيمَا شَجَرَ بَيْنَهُمْ ثُمَّ لَا يَجِدُوا فِي أَنْفُسِهِمْ حَرَجًا مِمَّا قَضَيْتَ وَيُسَلِّمُوا تَسْلِيمًا

#গতিকে তোমাৰ প্ৰতিপালকৰ কচম! তেওঁলোক মুমিন হ’ব নোৱাৰিবা যেতিয়ালৈকে তেওঁলোকৰ মাজত সৃষ্ট বিবাদৰ ক্ষেত্ৰত তোমাক বিচাৰক নির্ধাৰণ নকৰে, ইয়াৰ পিছত তোমাৰ সিদ্ধান্ত দ্বিধাহীনভাৱে মানি নোলোৱালৈকে তেওঁলোকে ঈমানৰ দাবীদাৰ হ’ব নোৱাৰিব। (ছূৰা আন-নিছা: ৬৫)

* إِنْ هُوَ إِلَّا وَحْيٌ يُوحَىٰ * وَمَا يَنْطِقُ عَنِ الْهَوَىٰ

#আল্লাহৰ অৱতীৰ্ণ অহিৰ বাহিৰে তেওঁ মনেগঢ়া একোৱেই নকয়। (ছূৰা আন-নাজম: ৩-৪)

#”আতিউল্লাহ ওৱা আতিউৰ ৰাছূল” এই কথাৰ পিছতেই আছে “ওৱা উলিল আমৰি মিনকুম’’ অৰ্থাৎ তোমালোকৰ নেতাসকলৰো (অনুসৰণ কৰা)। কিন্তু ইয়াৰ পিছতেই কোৱা হৈছে ‘ফা ইন তানাজা’তুম ফি শ্বায়ঈন ফাৰুদ্দুহু ইলাল্লাহি ওৱাৰ ৰাছূল’। অৰ্থাৎ আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰাছূলৰ নিৰ্দেশৰ সৈতে তোমালোকৰ নেতাসকলৰ নিৰ্দেশৰ পাৰ্থক্য দেখা দিলে, নেতৃবৃন্দৰ কথা পৰিত্যাগ কৰি আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰাছূলৰ কথাৰ ফালে প্ৰত্যাৱৰ্তন কৰা। এই কথা কোৱা হোৱা নাই যে, ওপৰোক্ত মত পাৰ্থক্যৰ ক্ষেত্ৰত আল্লাহ ও তেওঁৰ ৰাছূলৰ কথা পৰিত্যাগ কৰি নাইবা তাৰ বিকৃত অৰ্থ কৰি নাইবা তাৰ লগত মনেসজা কথা সংযোগ কৰি নেতা বা ইমামৰ কথাকেই সঠিক বুলি সাব্যস্ত ৰখা। আল্লাহ তা‘আলাই নিৰ্দেশ কৰিছে-

وَاعْتَصِمُوا بِحَبْلِ اللَّهِ جَمِيعًا وَلَا تَفَرَّقُوا*

#”আৰু তোমালোক সকলোৱে আল্লাহৰ ৰছীক সুদৃঢ় হাতেৰে ধাৰণ কৰা; বিভিন্ন দলত বিভক্ত নহ’বা”। (ছূৰা আল-ইমৰান: ১০৩)।

আল্লাহ তা‘আলাৰ এই নিৰ্দেশ অমান্য কৰি যিসকলে বিভিন্ন দল, মাজহাবত বিভক্ত হোৱাৰ কাৰণে মুছলিমসকলৰ প্ৰতি আহ্বান জনায়, তেওঁলোক আল্লাহদ্ৰোহীৰ বাহিৰে আন কি হ’ব পাৰে? কুৰআন আৰু হাদীছৰ ক’ৰবাত এই নিৰ্দেশ আছে নেকি যে, মুছলিমসকল! তোমালোকে দলে দলে বিভক্ত হৈ যোৱা, এটা দলে আনটো দলক শত্ৰু বুলি ভাৱা, পৰস্পৰ কটা-কটি কৰি থাকা, অন্য দলৰ মুছলিমসকলক কাফিৰতকৈও ডাঙৰ শত্ৰু বুলি গণ্য কৰা? কোৱা হৈছে- চাৰি মাজহাব ফৰজ। চাৰি মাজহাবত বিভক্ত হৈ যোৱা। এইটো হৈছে সম্পূৰ্ণ আল্লাহদ্ৰোহী আহ্বান। আল্লাহ তা‘আলাই কৈছে,

* إِنَّمَا الْمُؤْمِنُونَ إِخْوَةٌ

#নিশ্চয়_মুছলিমসকল_পৰস্পৰ_ভাই_ভাই

কিন্তু এই অখণ্ড ভাতৃত্বৰ বন্ধনক ছিন্ন কৰি খণ্ড খণ্ড হৈ যোৱাকে ধৰ্মৰ অপৰিহাৰ্য অঙ্গ বুলি প্ৰচাৰ কৰা হৈছে। অথচ ‘চাৰি মাজহাবেই সঠিক’ এই শ্লোগানধাৰীসকলে অন্য মাজহাবৰ লোকসকলৰ সৈতে কাফিৰ মুশ্বৰিকতকৈও ডাঙৰ শত্ৰুৰ দৰে আচৰণ কৰে। দলীয় নেতাসকলৰ অনুসৰণত ইমানেই সীমাহীন গুৰুত্ব লাভ কৰিছে যে, দ্বীনৰ সকলো উৎস কুৰআন আৰু হাদীছৰ প্ৰতি ভ্ৰূক্ষেপ নকৰি স্বীয় ইমামৰ নিৰ্দেশক অন্ধভাৱে গ্ৰহণ কৰা হৈছে, কুৰআন আৰু হাদীছৰ সৈতে মিলাই চোৱাৰ কোনো প্ৰয়োজনবোধ কৰা হোৱা নাই। আকৌ দাবী কৰা হয় যে, ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)য়ে যি কৈছে সেই সকলোবোৰ শুদ্ধ। তেওঁৰ সকলো কথাই যদি শুদ্ধ হয়, তেনেহ’লে তেওঁৰ দুই মহান শিষ্য ইমাম আবু ইউচুফ আৰু ইমাম মুহাম্মাদে তেওঁৰ শত শত মাছ‘আলাৰ বিৰোধিতা কৰিলে কিয়? “মাজহাবীসকলৰ গুপ্তধন” নামৰ কিতাপখনত গ্ৰন্থকাৰে ওপৰোক্ত বিৰোধপূৰ্ণ মাছআলাৰ মাত্ৰ কেইটিমান নমুনা হিচাবে সন্নিবিষ্ট কৰিছে যাৰ দ্বাৰা নিৰপেক্ষ পাঠকবৃন্দই এই পৰম সত্য সিদ্ধান্তত উপনীত হ’ব পাৰিব যে, একমাত্ৰ অহিপ্ৰাপ্ত আল্লাহৰ ৰাছূল চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ বাহিৰে আন কোনো দ্বিতীয় মানুহ নাই যিজন অভ্ৰান্ত- অৰ্থাৎ যাৰ কোনো ভুল নাই। ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ প্ৰতি শ্ৰদ্ধা ও সন্মান প্ৰদৰ্শনপূৰ্বক এই কথা নিবেদন কৰিব বিচাৰোঁ যে, তেৱোঁ অভ্ৰান্ত বা নিৰ্ভুল নাছিল। এই কথাৰ প্ৰমাণ ফিকাহৰ গ্ৰন্থাৱলীত সিচঁৰিত হৈ আছে, যাৰ ভাষা কেৱল আৰবী হোৱা কাৰণে ইমামৰ কোটি কোটি অন্ধ অনুসাৰী সেইবোৰ অমৃত বচনৰ পৰা মাহৰূম হৈ আছে। “মাজহাবীসকলৰ গুপ্তধন”ৰ লেখকে বহু কষ্ট স্বীকাৰ কৰি সেইবোৰ সুধী পাঠকবৃন্দৰ বিবেকৰ দুৱাৰমুখত হাজিৰ কৰি দিছে। আমি হিন্দুসকলৰ ধৰ্মগ্ৰন্থৰ অশ্লীল উপাখ্যানৰ কথা শুনি ছিঃ ছিঃ কৰি থাকোঁ। এতিয়া ফিকাহ শাস্ত্ৰৰ উপাখ্যান পঢ়ি পাঠকে কি কৰিব নিজেই ঠিৰাং কৰক। অথচ কুৰআন আৰু হাদীছক বাদ দি অন্ধভাৱে এই ফিকাহৰেই অনুসৰণ কৰা হৈছে। এই বিষয়ে আল্লাহ তা‘লাৰ সাৱধানবাণী অতি স্পষ্ট-

اتَّخَذُوا أَحْبَارَهُمْ وَرُهْبَانَهُمْ أَرْبَابًا مِنْ دُونِ اللَّهِ*

#”সিহঁতে (ইহুদী আৰু খ্ৰীষ্টানসকলে) আল্লাহক পৰিত্যাগ কৰি সিহঁতৰ পণ্ডিত আৰু সংসাৰ-বিৰাগীসকলক প্ৰতিপালক হিচাবে গ্রহণ কৰিছে”। (ছূৰা আত-তাওবাহ: ৩১)

এই সম্পৰ্কে মুছনাদে আহমদ ও তিৰমিজীত হাদীছ আছে-

“আদী বিন হাতীম (ৰা.)য়ে ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ খেদমতত আৰজ কৰে, তেওঁলোকে তো তেওঁলোকৰ পূজা কৰা নাই। তেতিয়া তেওঁ ক’লে- কিয় নহয়, তেওঁলোকে (আলিম দৰবেশসকলে) তেওঁলোকৰ ওপৰত হালালক হাৰাম কৰে আৰু হাৰামক হালাল কৰে, আৰু তেওঁলোকে (জনসাধাৰণে) তেওঁলোকৰ কথা মানি চলে। এইটোৱেই আছিল তেওঁলোকৰ ইবাদাত’’।

ফিকাহৰ অন্ধ অনুসাৰীসকলৰ ক্ষেত্ৰত এই হাদীছ আখৰে আখৰে প্ৰযোজ্য নহয় নে? হানাফি ফিকাহৰ জন্মদাতা ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)য়ে কৈছে- আমি যি আলোচনাত প্ৰবৃত্ত আছোঁ সেয়া একমাত্ৰ ৰায় ও কিয়াচ, গতিকে তাক মানিবলৈ আমি কাকো বাধ্য কৰিব নোৱাৰোঁ আৰু এই কথাও কোৱা নাই যে তাক মানাটো কোনো মানুহৰ প্ৰতি ওৱাজিব। (আল্লামা শিবলী নুমানীৰ দ্বাৰা লিখিত ছিৰাতুন নুমান ১৮৩ পৃষ্ঠা)

সেয়েহে প্ৰতিজন মুছলিম নৰ-নাৰীৰ প্ৰতি আমাৰ আকুল আবেদন! একমাত্ৰ আল্লাহকেই ভয় কৰক। কিয়ামতৰ দিনা ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ শ্বাফায়াত লাভৰ ইচ্ছা থাকিলে ইমাম আৰু অলিসকলৰ তৰীকা পৰিহাৰ কৰি ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ প্ৰদৰ্শিত কুৰআন ও হাদীছৰ তৰীকাত নিজকে প্ৰতিষ্ঠিত কৰক। সকলো ফিৰ্কা আৰু দলাদলিৰ চিলচিলা খতম কৰি দিয়ক। অন্ধভাৱে কাৰোঁ অনুসৰণ নকৰি জ্ঞান চকু মেলি একমাত্ৰ কিতাবদ্বয়ৰ অনুসৰণ কৰক। পাৰস্পৰিক শত্ৰুতা, ঘৃণা ও হিংসা বিদ্বেষৰ উৎস মূলত কুঠাৰাঘাত কৰি এক অখণ্ড ভাতৃত্বৰ বন্ধনত আবদ্ধ হওঁক। দুনিয়া ও আখিৰাতত পৰম সাৰ্থকতা লাভৰ এইটোৱেই হৈছে একমাত্ৰ পথ।

অধ্যাপক মুহাম্মাদ মোজাম্মিল হক।
অনুবাদ-
#JBR

Comment

মাযহাব মানা ফরজ??

 

আনেকে দাবি করেন,যে চার মাজহাবের কোনো একজনকে না মানলে কাফের,আবার কেউ কেউ দাবি করেন যে মাযহাব মানা ফরজ।

*আসুন সমাধান সরাসরি আল্লাহর কাছ থেকে জেনে নেই।

وَأَنَّ هَـٰذَا صِرَاطِي مُسْتَقِيمًا فَاتَّبِعُوهُ ۖ وَلَا تَتَّبِعُوا السُّبُلَ فَتَفَرَّقَ بِكُمْ عَن سَبِيلِهِ ۚ ذَٰلِكُمْ وَصَّاكُم بِهِ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُونَ

(আল আনআম – ১৫৩)
”আর যে এটিই আমার সহজ-সঠিক পথ, কাজেই এরই অনুসরণ করো, এবং অন্যান্য পথ অনুসরণ করো না, কেননা সে-সব তাঁর পথ থেকে তোমাদের বিচ্ছিন্ন করবে।’’ এইসব দ্বারা তিনি তোমাদের নির্দেশ দিয়েছেন যেন তোমরা ধর্মপরায়ণতা অবলন্বন িকরো।

اتَّبِعُوا مَا أُنزِلَ إِلَيْكُم مِّن رَّبِّكُمْ وَلَا تَتَّبِعُوا مِن دُونِهِ أَوْلِيَاءَ ۗ قَلِيلًا مَّا تَذَكَّرُونَ

(আল আরাফ – ৩)
”তোমাদের প্রভুর কাছ থেকে তোমাদের কাছে যা অবতীর্ণ হয়েছে তা অনুসরণ করো আর তাঁকে বাদ দিয়ে অভিভাবকদের অনুসরণ করো না। অল্পই যা তোমরা মনে রাখো।’’

=>আসুন এ সম্পর্কে আমরা আল্লাহর রাসুল (সাঃ) এর নিকট থেকে কিছু জেনে নেই।


রাসূলুল্লাহ (সা:) থেকে ‘সিরাতে মুস্তাকিম’
সর্ম্পকে হাদীস বর্ণিত হয়েছে:

“আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা:) বলেন
রাসূলুল্লাহ (সা:) আমাদেরকে (সিরাতে
মুস্তাকিম বুঝানোর জন্য) প্রথমে একটি
সোজা দাগ দিলেন। আর বললেন এটা
হলো আল্লাহর রাস্তা । অতপর ডানে বামে
অনেকগুলো দাগ দিলেন আর বললেন এই
রাস্তাগুলো শয়তানের রাস্তা । এ রাস্তাগুলোর
প্রতিটি রাস্তার মুখে মুখে একেকটা শয়তান
বসে আছে যারা এ রাস্তার দিকে
মানুষদেরকে আহবান করে। অতপর
রাসূলুল্লাহ (সা:) নিজের কথার প্রমাণে উপরে
উল্লেখিত প্রথম আয়াতটি তেলাওয়াত
করলেন।” (মুসনাদে আহমদ ৪১৪২; নাসায়ী
১১১৭৫; মেশকাত ১৬৬।)

**এখন প্রশ্ন থেকেই যায়,যে আমরা যারা জানিনা তারা কি করবো??

=>আসুন আমরা এর উত্তরও আল্লাহর থেকে জেনে নেই।

وَمَا أَرْسَلْنَا مِن قَبْلِكَ إِلَّا رِجَالًا نُّوحِي إِلَيْهِمْ ۚ فَاسْأَلُوا أَهْلَ الذِّكْرِ إِن كُنتُمْ لَا تَعْلَمُونَ

[ আন নাহল – ৪৩ ]
আপনার পূর্বেও আমি প্রত্যাদেশসহ মানবকেই তাদের প্রতি প্রেরণ করেছিলাম অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস কর, যদি তোমাদের জানা না থাকে।

***এখন নতুন প্রশ্ন তৈরি হল, আর তা হল,অনেক সময় দেখাযায় যে জ্ঞানিদের মধ্যেই মত বিরোধ।
যেন চার ঈমাম এর মধ্যেই অনেক বিষয়ে মতবিরোধ আছে।এখন আমরা কি করবো??

=>আসুন এই প্রশ্নের উত্তরটাও আল্লার কাছ থেকে জেনে নেই।

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا أَطِيعُوا اللَّهَ وَأَطِيعُوا الرَّسُولَ وَأُولِي الْأَمْرِ مِنكُمْ ۖ فَإِن تَنَازَعْتُمْ فِي شَيْءٍ فَرُدُّوهُ إِلَى اللَّهِ وَالرَّسُولِ إِن كُنتُمْ تُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ ۚ ذَٰلِكَ خَيْرٌ وَأَحْسَنُ تَأْوِيلًا

(আন নিসা – ৫৯)
ওহে যারা ঈমান এনেছ! আল্লাহ্‌কে অনুসরণ করো, ও রসূলের অনুগমন করো, আর তোমাদের মধ্যে যাদের হুকুম দেবার ভার আছে। তারপর যদি কোনো বিষয়ে তোমরা মতভেদ করো তবে ফিরে এসো আল্লাহ্ ও রসূলের কাছে, যদি তোমরা আল্লাহ্‌তে ও আখেরাতের দিনে বিশ্বাস করে থাকো। এটিই হচ্ছে শ্রেষ্ঠ ও সর্বাঙ্গ সুন্দর সমাপ্তিকরণ।

****শেষ প্রশ্ন,যে সকল বিষয়ে মত বিরোধ আছে তা নিজে যাচাই করতে গিয়ে যদি কোনো ভুল করে ফেলি??

=>আসুন এর উত্তর মোহাম্মদ (সাঃ) এর নিকট থেকে জেনে নেই।

আমর ইবনুল আস (রাঃ) বর্ণনা করেছেন

তিনি রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) কে বলতে শুনেছেনঃ বিচারক যখন ইজতিহাদ করে (চিন্তাভাবনা করে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছার চেষ্টা করে) বিচার করে, অতঃপর সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছে যায়, তাঁর জন্য রয়েছে দু’টি পুরস্কার। আর সে যখন ইজতিহাদ করে বিচার করতে গিয়ে ভুল করে বসে তবুও তাঁর জন্য রয়েছে একটি পুরস্কার। [২৩১৪]

সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ২৩১৪
হাদিসের মান: সহিহ হাদিস

Al mehdi al hasanbd

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=203639700083465&id=100013123092003

মাজহাবীসকলৰ ওপৰতমাজহাবীসকলৰ ওপৰত কিছুমান প্ৰশ্ন?..JR..

মাজহাবীসকলৰ ওপৰতমাজহাবীসকলৰ ওপৰত কিছুমান প্ৰশ্ন?
_____________________________
(১) মাজহাব কাক বোলে?
(২) মাজহাবৰ শাব্দিক অৰ্থ কি?
(৩) প্ৰচলিত চাৰি মাজহাব মানাটো ফৰজ নেকি?
(৪) যদি ফৰজ হয়, তেন্তে এই ফৰজটি কোনে উদ্ভাৱন কৰিলে?
(৫) এইটো সকলোৰে কাৰণে ফৰজ নেকি?
(৬) নে কিছুমানৰ কাৰণে ফৰজ?
(৭) যিসকলে চাৰি মাজহাব নামানে তেওঁলোক মুছলিম নহয় নেকি?
(৮) হানাফি, শ্বাফেয়ী, মালিকী আৰু হাম্বলী এই চাৰি মাজহাব কেতিয়া সৃষ্টি হৈছে?
(৯) কোনে সৃষ্টি কৰিছে?
(১০) কিয় সৃষ্টি কৰিছে?
(১১) এইটো কৰা আৰু মানাৰ কাৰণে আল্লাহ ও ৰাছূলৰ নিৰ্দেশ আছে নেকি?
(১২) যিসকলৰ নামত মাজহাব সৃষ্টি কৰা হৈছে তেওঁলোকে মাজহাব সৃষ্টি কৰিবলৈ কৈছে নেকি?
(১৩)ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম আৰু তেওঁৰ চাহাবীসকলৰ মাজহাব কি আছিল?
(১৪) সেইটো এতিয়াও প্ৰচলিত আছেনে? নে বন্ধ হৈ গৈছে?
(১৫) যদি বন্ধ হৈছে, কোনে বন্ধ কৰিলে?
(১৬) কিয় বন্ধ কৰিলে?
(১৭) বন্ধ কৰাৰ অধিকাৰ কোনে দিলে?
(১৮) আৰু যদি বন্ধ হোৱা নাই, তেনেহ’লে আনৰ নামত মাজহাব সৃষ্টি কৰাৰ প্ৰয়োজন কি?
(১৯) চাৰি মাজহাব মানা যদি ফৰজ হয়, যিসকলে চাৰি মাজহাব নামানে অথবা চাৰি মাজহাব সৃষ্টিৰ আগতে যিসকলে মৃত্যুবৰণ কৰিছে তেওঁলোকৰ কি হব?
(২০) নাউযুবিল্লাহ! তেওঁলোক জাহান্নামী হব নেকি?
(২১) ইমাম চাৰিজনে কোন মাজহাব মানিছিল?
(২২) তেওঁলোকৰ পিতা-মাতা, ওস্তাদমণ্ডলী আৰু পূৰ্বপুৰুষসকলে কাৰ মাজহাব মানি চলিছিল?
(২৩) সেই মাজহাব এতিয়া মানা নাযায় নেকি?
(২৪) ঈমানদাৰী আৰু কুৰআন-হাদীছৰ বিদ্যাত চাৰি ইমাম শ্ৰেষ্ঠ আছিল নে চাৰি খলিফা?
(২৫) যদি চাৰি খলিফা শ্ৰেষ্ঠ আছিল, তেনেহ’লে তেওঁলোকৰ নামত কিয় মাজহাব সৃষ্টি নহ’ল?
(২৬) তেওঁলোক ইমাম চাৰিজনতকৈ কম যোগ্য আছিল নেকি?
(২৭) নবীৰ নামত কলিমা পঢ়িব, ইমামসকলৰ নামত মাজহাব মানিব আৰু পীৰ-ফকিৰসকলৰ তৰীকামতে চলিব এই নিৰ্দেশ কুৰআন-হাদীছৰ ক’ত আছে?
(২৮) আল্লাহৰ নবীৰ মাজহাব বা তৰীকা নাই নেকি?
(২৯) সেই মাজহাব বা তৰীকা যথেষ্ট নহয় নেকি?
(৩০) নবীৰ প্ৰতি ইছলাম পৰিপূৰ্ণ হোৱা নাছিল নেকি?
(৩১) ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম কামিল নবী নহয় নেকি?
(৩২) ইছলাম মুকাম্মাল ধৰ্ম নহয় নেকি?
(৩৩) ইছলাম পৰিপূৰ্ণ আৰু ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম কামিল নবী হ’লে আনৰ মত ও পথ মানাৰ অৱকাশ ক’ত?
(৩৪) যিসকলে পৰিপূৰ্ণ ইছলাম আৰু কামিল নবীক অসম্পূৰ্ণ বুলি প্ৰমাণ কৰি আন কাৰোবাৰ দ্বাৰা তাক পূৰ্ণ কৰাৰ সপোন দেখিছে, তেওঁলোকে কুৰআন-হাদীছৰ বিৰোধিতা কৰা নাইনে?
(৩৫) যি দলটি মুক্তি পাব বুলি ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামে সুস্পষ্টকৈ ঘোষণা কৰিছে- সেই নাজাতপ্ৰাপ্ত দল চাৰি মাজহাবৰ কোনটো?
(৩৬) জান্নাতৰ পথ বা চিৰাতুল মুস্তাকীম বুজাবৰ কাৰণে আল্লাহৰ ৰাছূল চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামে এডাল সৰল ৰেখা অঙ্কন কৰি ক’লে- এইটো সৰল পথ। তোমালোকে ইয়াৰ অনুসৰণ কৰা। তাৰ পিছত সেই সৰল ৰেখডালৰ সোঁফালে আৰু বাওঁফালে কেইডালমান ৰেখা আঁকি ক’লে- এই পথবোৰৰ প্ৰত্যেকটোতে এজনকৈ শ্বয়তান আছে। সিহঁতে নিজ নিজ পথৰ ফালে মাতিছে। তোমালোকে সেই পথবোৰৰ অনুসৰণ নকৰিবা। যদি কৰা, তেনেহ’লে সিহঁতে তোমালোকক সৰল পথৰ পৰা বিভ্ৰান্ত কৰি পেলাব।(মিশকাত)। এই হাদীছ অনুযায়ী ৰাছূলৰ পথ চিৰাতুল মুস্তাকীমৰ বাহিৰে অন্য পথবোৰ শ্বয়তানৰ পথ নহয় নেকি?
(৩৭) কলিমা পঢ়া হয় নবীৰ নামত, কবৰত ৰখা হয় নবীৰ তৰীকাত, কবৰত প্ৰশ্ন কৰা হব নবীৰ কথা, হাশ্বৰৰ ময়দানতো নবীয়ে শ্বাফায়াত কৰিব। সেই মহানবীৰ তৰীকা বাদ দি আন কাৰোবাৰ তৰীকা মানিলে নাজাত পোৱা যাবনে?
(৩৮) ভাৰত উপমহাদেশত মাজাৰ আৰু পীৰৰ অন্ত নাই, যিমান পীৰ সিমান তৰীকা। পীৰ চাহেবসকলে আজিকালি কিবলা বনাই লৈছে। মানুহ মানুহৰ কিবলা হব পাৰে নেকি?
(৩৯) তেওঁলোকে তেওঁলোকৰ আস্তানাসমূহক দায়ৰা শ্বৰীফ, খানকা শ্বৰীফ, মাজাৰ শ্বৰীফ, উৰছ শ্বৰীফ প্ৰভৃতি নাম দি মুছলিমসকলৰ তীৰ্থস্থান মক্কা ও মদীনাক অৱমাননা কৰা নাইনে?
(৪০) এইবোৰ দ্বীন আৰু শ্বৰীয়তৰ নামত ভণ্ডামি নহয় নেকি?
(৪১) মুছলিমসকলৰ আল্লাহ এক, নবী এক, কুৰআন এক, কিবলা এক আৰু এটাই তেওঁলোকৰ ধৰ্ম-কৰ্ম, ৰীতি-নীতি। গতিকে তেওঁলোকৰ মুক্তি আৰু কল্যাণৰ পথ হৈছে মাত্ৰ এটাই। সেয়া হ’ল ইছলাম, চিৰাতে মুস্তাকীম বা তৰীকায়ে মুহাম্মাদী।
মাজহাবৰ অৰ্থ চলাৰ পথ। এইটোৱেই সঠিক অৰ্থ। কিন্তু মাজহাবীসকলৰ মতে মাজহাবৰ অৰ্থ মত ও পথ। এই অৰ্থত পৃথিৱীত যিমান মত ও পথ আছে সকলোবোৰ মাজহাব। তেওঁলোকে কয়, ইমাম আবু হানিফাৰ মত ও পথ হানাফি মাজহাব। ইমাম মালিকৰ মত ও পথ মালাকী মাজহাব। ইমাম শ্বাফেয়ীৰ মত ও পথ শ্বাফেয়ী মাজহাব আৰু ইমাম আহমদ বিন হাম্বলৰ মত ও পথ হাম্বলী মাজহাব। তেনেহ’লে নবী মুহাম্মাদুৰ ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ মত ও পথ মুহাম্মাদী মাজহাব নহয় নেকি? আকৌ সকলো মত ও পথতকৈ নবী মুহাম্মাদুৰ ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ মত ও পথ যে, অতি উত্তম ও উৎকৃষ্ট মত ও পথ, এই কথা কোনো মুছলিমক কোৱাৰ প্ৰয়োজন নাই। সেয়েহে সকলো মত ও পথ পৰিহাৰ ও পৰিবৰ্জন কৰি পথ-নিৰ্দেশক মহানবীৰ মহাপবিত্ৰ মত ও পথতেই আমি চলিব লাগিব। আন কাৰো মত আৰু পথত চলাৰ কাৰণে নিৰ্দেশ নাই। যিসকল ইমামৰ নামত তেওঁলোকৰ ভক্তসকলে মাজহাব তৈয়াৰ কৰিছে, সেইসকল ইমামৰ জন্মৰ আগত মাজহাব নাছিল। তেওঁলোকৰ জামানাত মাজহাব হোৱা নাই।
মাজহাব হৈছে তেওঁলোকৰ মৃত্যুৰ বহু বছৰ পিছত।
(১) ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ জন্ম ৮০ হিজৰীত। তেওঁ ইন্তেকাল কৰিছে ১৫০ হিজৰীত।
(২) ইমাম মালিক (ৰহ.)ৰ জন্ম ৯০ হিজৰীত আৰু তেওঁৰ মৃত্যু ১৭৯ হিজৰীত।
(৩) ইমাম শ্বাফেয়ী (ৰহ.)ৰ জন্ম ১৫০ হিজৰীত আৰু তেওঁৰ মৃত্যু ২০৪ হিজৰীত। ইমাম আহমাদ বিন হাম্বল (ৰহ.)ৰ জন্ম ১৬৪ হিজৰীত আৰু মৃত্যু ২৪১ হিজৰীত।
যিটো বছৰত ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ মৃত্যু হৈছিল, সেই বছৰত ইমাম শ্বাফেয়ী (ৰহ.)ৰ জন্ম হৈছিল। এই দুগৰাকী ইমামৰ মাজত কোনো দেখা সাক্ষাৎ নাই। মাজহাব হৈছে ৪০০ হিজৰীৰ পিছত। ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ মৃত্যুৰ ২৫০ বছৰৰো অধিক কাল পিছত। এই মাজহাব মুছলিমসকলৰ কাৰণে ফৰজ কেনেকৈ হয় সুধী সমাজক বুজাবৰ কাৰণে অনুৰোধ কৰিছোঁ। চাৰি ইমামৰ জন্মৰ পূৰ্বেও ইছলাম আছিল, মুছলিম আছিল। তেতিয়া তেওঁলোকক কাৰোঁ মত ও পথৰ দৰকাৰ হোৱা নাই, এতিয়াও দৰকাৰ নাই। তেতিয়াও মুছলিমসকলৰ ওচৰত কুৰআন-হাদীছ আছিল, এতিয়াও আছে। গতিকে কুৰআন আৰু হাদীছেই যথেষ্ট। কাৰোঁ ব্যক্তিগত পথত চলাৰ নিৰ্দেশ নাই। কোনেও ভুলৰ উৰ্দ্ধত নহয়। গতিকে নিৰ্ভুল কুৰআন-হাদীছেই মুছলিমসকলে মানি চলিব লাগিব। চাৰি মাজহাবৰ কোনো এটিও মানি চলাৰ কাৰণে আল্লাহ ও ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰৰ নিৰ্দেশ নাই। কিছুমান প্ৰশ্ন?
_____________________________
(১) মাজহাব কাক বোলে?
(২) মাজহাবৰ শাব্দিক অৰ্থ কি?
(৩) প্ৰচলিত চাৰি মাজহাব মানাটো ফৰজ নেকি?
(৪) যদি ফৰজ হয়, তেন্তে এই ফৰজটি কোনে উদ্ভাৱন কৰিলে?
(৫) এইটো সকলোৰে কাৰণে ফৰজ নেকি?
(৬) নে কিছুমানৰ কাৰণে ফৰজ?
(৭) যিসকলে চাৰি মাজহাব নামানে তেওঁলোক মুছলিম নহয় নেকি?
(৮) হানাফি, শ্বাফেয়ী, মালিকী আৰু হাম্বলী এই চাৰি মাজহাব কেতিয়া সৃষ্টি হৈছে?
(৯) কোনে সৃষ্টি কৰিছে?
(১০) কিয় সৃষ্টি কৰিছে?
(১১) এইটো কৰা আৰু মানাৰ কাৰণে আল্লাহ ও ৰাছূলৰ নিৰ্দেশ আছে নেকি?
(১২) যিসকলৰ নামত মাজহাব সৃষ্টি কৰা হৈছে তেওঁলোকে মাজহাব সৃষ্টি কৰিবলৈ কৈছে নেকি?
(১৩)ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম আৰু তেওঁৰ চাহাবীসকলৰ মাজহাব কি আছিল?
(১৪) সেইটো এতিয়াও প্ৰচলিত আছেনে? নে বন্ধ হৈ গৈছে?
(১৫) যদি বন্ধ হৈছে, কোনে বন্ধ কৰিলে?
(১৬) কিয় বন্ধ কৰিলে?
(১৭) বন্ধ কৰাৰ অধিকাৰ কোনে দিলে?
(১৮) আৰু যদি বন্ধ হোৱা নাই, তেনেহ’লে আনৰ নামত মাজহাব সৃষ্টি কৰাৰ প্ৰয়োজন কি?
(১৯) চাৰি মাজহাব মানা যদি ফৰজ হয়, যিসকলে চাৰি মাজহাব নামানে অথবা চাৰি মাজহাব সৃষ্টিৰ আগতে যিসকলে মৃত্যুবৰণ কৰিছে তেওঁলোকৰ কি হব?
(২০) নাউযুবিল্লাহ! তেওঁলোক জাহান্নামী হব নেকি?
(২১) ইমাম চাৰিজনে কোন মাজহাব মানিছিল?
(২২) তেওঁলোকৰ পিতা-মাতা, ওস্তাদমণ্ডলী আৰু পূৰ্বপুৰুষসকলে কাৰ মাজহাব মানি চলিছিল?
(২৩) সেই মাজহাব এতিয়া মানা নাযায় নেকি?
(২৪) ঈমানদাৰী আৰু কুৰআন-হাদীছৰ বিদ্যাত চাৰি ইমাম শ্ৰেষ্ঠ আছিল নে চাৰি খলিফা?
(২৫) যদি চাৰি খলিফা শ্ৰেষ্ঠ আছিল, তেনেহ’লে তেওঁলোকৰ নামত কিয় মাজহাব সৃষ্টি নহ’ল?
(২৬) তেওঁলোক ইমাম চাৰিজনতকৈ কম যোগ্য আছিল নেকি?
(২৭) নবীৰ নামত কলিমা পঢ়িব, ইমামসকলৰ নামত মাজহাব মানিব আৰু পীৰ-ফকিৰসকলৰ তৰীকামতে চলিব এই নিৰ্দেশ কুৰআন-হাদীছৰ ক’ত আছে?
(২৮) আল্লাহৰ নবীৰ মাজহাব বা তৰীকা নাই নেকি?
(২৯) সেই মাজহাব বা তৰীকা যথেষ্ট নহয় নেকি?
(৩০) নবীৰ প্ৰতি ইছলাম পৰিপূৰ্ণ হোৱা নাছিল নেকি?
(৩১) ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম কামিল নবী নহয় নেকি?
(৩২) ইছলাম মুকাম্মাল ধৰ্ম নহয় নেকি?
(৩৩) ইছলাম পৰিপূৰ্ণ আৰু ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম কামিল নবী হ’লে আনৰ মত ও পথ মানাৰ অৱকাশ ক’ত?
(৩৪) যিসকলে পৰিপূৰ্ণ ইছলাম আৰু কামিল নবীক অসম্পূৰ্ণ বুলি প্ৰমাণ কৰি আন কাৰোবাৰ দ্বাৰা তাক পূৰ্ণ কৰাৰ সপোন দেখিছে, তেওঁলোকে কুৰআন-হাদীছৰ বিৰোধিতা কৰা নাইনে?
(৩৫) যি দলটি মুক্তি পাব বুলি ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামে সুস্পষ্টকৈ ঘোষণা কৰিছে- সেই নাজাতপ্ৰাপ্ত দল চাৰি মাজহাবৰ কোনটো?
(৩৬) জান্নাতৰ পথ বা চিৰাতুল মুস্তাকীম বুজাবৰ কাৰণে আল্লাহৰ ৰাছূল চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামে এডাল সৰল ৰেখা অঙ্কন কৰি ক’লে- এইটো সৰল পথ। তোমালোকে ইয়াৰ অনুসৰণ কৰা। তাৰ পিছত সেই সৰল ৰেখডালৰ সোঁফালে আৰু বাওঁফালে কেইডালমান ৰেখা আঁকি ক’লে- এই পথবোৰৰ প্ৰত্যেকটোতে এজনকৈ শ্বয়তান আছে। সিহঁতে নিজ নিজ পথৰ ফালে মাতিছে। তোমালোকে সেই পথবোৰৰ অনুসৰণ নকৰিবা। যদি কৰা, তেনেহ’লে সিহঁতে তোমালোকক সৰল পথৰ পৰা বিভ্ৰান্ত কৰি পেলাব।(মিশকাত)। এই হাদীছ অনুযায়ী ৰাছূলৰ পথ চিৰাতুল মুস্তাকীমৰ বাহিৰে অন্য পথবোৰ শ্বয়তানৰ পথ নহয় নেকি?
(৩৭) কলিমা পঢ়া হয় নবীৰ নামত, কবৰত ৰখা হয় নবীৰ তৰীকাত, কবৰত প্ৰশ্ন কৰা হব নবীৰ কথা, হাশ্বৰৰ ময়দানতো নবীয়ে শ্বাফায়াত কৰিব। সেই মহানবীৰ তৰীকা বাদ দি আন কাৰোবাৰ তৰীকা মানিলে নাজাত পোৱা যাবনে?
(৩৮) ভাৰত উপমহাদেশত মাজাৰ আৰু পীৰৰ অন্ত নাই, যিমান পীৰ সিমান তৰীকা। পীৰ চাহেবসকলে আজিকালি কিবলা বনাই লৈছে। মানুহ মানুহৰ কিবলা হব পাৰে নেকি?
(৩৯) তেওঁলোকে তেওঁলোকৰ আস্তানাসমূহক দায়ৰা শ্বৰীফ, খানকা শ্বৰীফ, মাজাৰ শ্বৰীফ, উৰছ শ্বৰীফ প্ৰভৃতি নাম দি মুছলিমসকলৰ তীৰ্থস্থান মক্কা ও মদীনাক অৱমাননা কৰা নাইনে?
(৪০) এইবোৰ দ্বীন আৰু শ্বৰীয়তৰ নামত ভণ্ডামি নহয় নেকি?
(৪১) মুছলিমসকলৰ আল্লাহ এক, নবী এক, কুৰআন এক, কিবলা এক আৰু এটাই তেওঁলোকৰ ধৰ্ম-কৰ্ম, ৰীতি-নীতি। গতিকে তেওঁলোকৰ মুক্তি আৰু কল্যাণৰ পথ হৈছে মাত্ৰ এটাই। সেয়া হ’ল ইছলাম, চিৰাতে মুস্তাকীম বা তৰীকায়ে মুহাম্মাদী।
মাজহাবৰ অৰ্থ চলাৰ পথ। এইটোৱেই সঠিক অৰ্থ। কিন্তু মাজহাবীসকলৰ মতে মাজহাবৰ অৰ্থ মত ও পথ। এই অৰ্থত পৃথিৱীত যিমান মত ও পথ আছে সকলোবোৰ মাজহাব। তেওঁলোকে কয়, ইমাম আবু হানিফাৰ মত ও পথ হানাফি মাজহাব। ইমাম মালিকৰ মত ও পথ মালাকী মাজহাব। ইমাম শ্বাফেয়ীৰ মত ও পথ শ্বাফেয়ী মাজহাব আৰু ইমাম আহমদ বিন হাম্বলৰ মত ও পথ হাম্বলী মাজহাব। তেনেহ’লে নবী মুহাম্মাদুৰ ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ মত ও পথ মুহাম্মাদী মাজহাব নহয় নেকি? আকৌ সকলো মত ও পথতকৈ নবী মুহাম্মাদুৰ ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ মত ও পথ যে, অতি উত্তম ও উৎকৃষ্ট মত ও পথ, এই কথা কোনো মুছলিমক কোৱাৰ প্ৰয়োজন নাই। সেয়েহে সকলো মত ও পথ পৰিহাৰ ও পৰিবৰ্জন কৰি পথ-নিৰ্দেশক মহানবীৰ মহাপবিত্ৰ মত ও পথতেই আমি চলিব লাগিব। আন কাৰো মত আৰু পথত চলাৰ কাৰণে নিৰ্দেশ নাই। যিসকল ইমামৰ নামত তেওঁলোকৰ ভক্তসকলে মাজহাব তৈয়াৰ কৰিছে, সেইসকল ইমামৰ জন্মৰ আগত মাজহাব নাছিল। তেওঁলোকৰ জামানাত মাজহাব হোৱা নাই।
মাজহাব হৈছে তেওঁলোকৰ মৃত্যুৰ বহু বছৰ পিছত।
(১) ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ জন্ম ৮০ হিজৰীত। তেওঁ ইন্তেকাল কৰিছে ১৫০ হিজৰীত।
(২) ইমাম মালিক (ৰহ.)ৰ জন্ম ৯০ হিজৰীত আৰু তেওঁৰ মৃত্যু ১৭৯ হিজৰীত।
(৩) ইমাম শ্বাফেয়ী (ৰহ.)ৰ জন্ম ১৫০ হিজৰীত আৰু তেওঁৰ মৃত্যু ২০৪ হিজৰীত। ইমাম আহমাদ বিন হাম্বল (ৰহ.)ৰ জন্ম ১৬৪ হিজৰীত আৰু মৃত্যু ২৪১ হিজৰীত।
যিটো বছৰত ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ মৃত্যু হৈছিল, সেই বছৰত ইমাম শ্বাফেয়ী (ৰহ.)ৰ জন্ম হৈছিল। এই দুগৰাকী ইমামৰ মাজত কোনো দেখা সাক্ষাৎ নাই। মাজহাব হৈছে ৪০০ হিজৰীৰ পিছত। ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ মৃত্যুৰ ২৫০ বছৰৰো অধিক কাল পিছত। এই মাজহাব মুছলিমসকলৰ কাৰণে ফৰজ কেনেকৈ হয় সুধী সমাজক বুজাবৰ কাৰণে অনুৰোধ কৰিছোঁ। চাৰি ইমামৰ জন্মৰ পূৰ্বেও ইছলাম আছিল, মুছলিম আছিল। তেতিয়া তেওঁলোকক কাৰোঁ মত ও পথৰ দৰকাৰ হোৱা নাই, এতিয়াও দৰকাৰ নাই। তেতিয়াও মুছলিমসকলৰ ওচৰত কুৰআন-হাদীছ আছিল, এতিয়াও আছে। গতিকে কুৰআন আৰু হাদীছেই যথেষ্ট। কাৰোঁ ব্যক্তিগত পথত চলাৰ নিৰ্দেশ নাই। কোনেও ভুলৰ উৰ্দ্ধত নহয়। গতিকে নিৰ্ভুল কুৰআন-হাদীছেই মুছলিমসকলে মানি চলিব লাগিব। চাৰি মাজহাবৰ কোনো এটিও মানি চলাৰ কাৰণে আল্লাহ ও ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰৰ নিৰ্দেশ নাই।

Juber Rahman..

ইজমা না কি এ্যাজমাঃ

linklinklink

ইজমা না কি এ্যাজমাঃ
@@@@@@@@@@

বুখারি মুসলিমের হাদিস থাকতেও তা না মেনে ইজমার উপর নির্ভর করে কিছু লোক, আবার ওদের কাছে হাদিস ই নাই তবুও আমল করে, কেন? বলে ইজমা!!
আসলে ইজমার নাম করে ওরা ইসলাম কে এ্যাজমা বানিয়ে ফেলেছে ফলে বুখারি মুসলিমের থেরাপি তেও তাদের রোগ সারেনা।
:
বোখারী/মুসলিমের সমস্ত হাদিস সনদের আলোকে সহী,,,,,,
কেবল মাত্র সালাতের অধ্যায়ের হাদিস গুলো ব্যতিত,,,,,,
কারন,,,,,হানাফীদের সালাতের সাথে মিল খুঁজে পাওয়া যায় না,,,,,
তাই বোখারী/মুসলিমের সালাতের অধ্যায় গুলো প্রত্যাখাতঃ
তার পরিবর্তে ইজমা ই যতেষ্ট!!!
তাই নয় কি??
এটাই কি সত্য নয়???
মাজহাব নামক নব ধর্মের চৌরঙ্গা নিয়ম-কানুনে ইবাদতকারি মাজহাবে হানাফী রঙ্গার ভাইয়েরা।
সুরা হাজ্বঃ ২২/৬৭.

” আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য ইবাদতের একটি নিয়ম-পদ্ধতি,,,,,নির্ধারন করে দিয়েছি যা তারা পালন করে “।
অথচ চারটি মাঝহাব চারটি নিয়ম-পদ্ধতি মানতে বাধ্য করে।
সুরা জাসিয়াঃ ৪৫/১৮.

“(হে নবী)
আপনাকে প্রতিষ্টিত রেখেছি ধর্মের এক বিশেষ শরিয়তের উপর।”
অথচ মাজহাব মানেই বিশেষ চার বিধানের শরিয়ত।
কোরআনে উল্লেখিত “একটি নিয়ম পদ্ধতি ও একটি শরিয়ত ” চারটি হলো কিভাবে???
উম্মতের মধ্যে ইজমা হয়েছে!!!!! আল্লাহর নির্ধারিত বিধানের বিপক্ষে তাদের ইজমা হয়েছে!!!!
এর পরেও কি বলবেন এসব ইজমা?
দয়া করে বলবেন কি,,,,,?
আসলে এগুলু মারাত্মক ” এ্যাজমা “!!!

মাযহাব মানা কি ফরজ?

মাযহাব মানা কি ফরজ?
মাযহাব মানে মত।ফরজের মালিক এক মাএ আল্লাহ। মানুষের তৈরী কোন কিছুকে ফরজ বলা কি ঠিক?আর মাযহাব মানুষের তৈরী আর ৪ ইমাম বলে যাননি আমার মত মান।
কুরআন হাদীস ও চার ইমামদের দৃষ্টিতে মাযহাব
বর্তমানে সারাবিশ্বে মুসলমানের সংখ্যা আড়াইশো কোটিরও বেশী। পৃথিবীর প্রত্যেক তিনজন ব্যাক্তির মধ্যে একজন মুসলমান। অমুসলিমদের কাছে আমরা অর্থাৎ ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা মুসলমান বলে পরিচিত হলেও মুসলিমরা নিজেদের মধ্যে অনেক নামে পরিচিত। যেমন, হানাফী, শাফেয়ী, মালেকী, হাম্বলী প্রভৃতি। এই নাম গুলি আল্লাহ বা মুহাম্মাদ সাঃএর দেওয়া নয় এমনকি যাঁদের নামে এই মাযহাব তৈরি করা হয়েছে তারাও এই নাম গুলো দেয়নি।
মুসলমানদের মধ্যে প্রচলিত চারটি মাযহাব, দল বা ফিকাহ ইসলামের কোনো নিয়ম বা বিধান মেনে তৈরি করা হয়নি। কারন ইসলাম ধর্মে কোনো দলবাজী বা ফিরকাবন্দী নেই। মুসলমানদের বিভক্ত হওয়া থেকে এবং ধর্মে নানা মতের সৃষ্টি করা থেকে কঠোরভাবে সাবধান করা হয়েছে। এই মাযহাবগুলো রসুল (যা) এবং সাহাবাদের (রা) সময় সৃষ্টি হয়নি। এমনকি ঈমামগনের সময়ও হয়নি। চার ইমামের মৃত্যুর অনেক বছর পরে তাঁদের নামে মাযহাব তৈরি হয়েছে। কোরআন হাদীস ও চার ইমামের দৃষ্টিতে মাযহাব কি, কেন, মাযহাব কি মানতেই হবে, মাযহাব মানলে কি গোনাহ হবে, সে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করব ইনশাল্লাহ্!
মাযহাব তৈরিতে আল্লাহর কঠোর নিষেধাজ্ঞা
মুসলমানেরা যাতে বিভিন্ন দলে আলাদা বা বিভক্ত না হয়ে যায় সে জন্য আল্লাহ পাক আমাদের কঠোরভাবে সাবধান করেছেন। যেমন আল্লাহ তা’আলা কুরআনের সূরা আন-আমর এর ১৫৯ নম্বর আয়াতে বলেছেন ‘যারা দ্বীন সন্বন্ধে নানা মতের সৃষ্টি করেছে এবং বিভিন্ন, দলে বিভক্ত হয়েছে হে নবী! তাদের সাথে তোমার কোনও সম্পর্ক নেই; তাদের বিষয় আল্লাহর ইখতিয়ারভুক্ত। আল্লাহ তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম সম্পর্কে অবগত করবেন। একটু থামুন। উপরের আয়াতটা দয়া করে বারবার পড়ুন এবং বোঝার চেষ্টা করুন, চিন্তা করুন। আল্লাহ তা’আলা সরাসরি বলেছেন যারা দ্বীন বা ধর্মে অর্থাৎ ইসলামে নানা মতগের সৃষ্টি করেছে এবং বিভক্ত হয়েছে, তাদের সাথে আমাদের নবী মহাম্মাদ (সা) এর কোনো সম্পর্ক নেই। যার সাথে নবীজীর (সা) কোনো সম্পর্ক নেই সে কি মুসলমান? সে কি কখনো জান্নাতের গন্ধও পাবে। আমরা মুসলমান কোরআন হাদীস মাননে ওয়ালা এটাই আমাদের একমাত্র পরিচয়। আল্লাহ বলেন এবং তোমাদের এই যে জাতি, এতো একই জাতি; এবং আমিই তোমাদের প্রতিপালক, অতএব আমাকে ভয় করো। (সূরা মুউমিনুন ২৩/৫২)। তাহলেই বুঝতেই পড়েছেন ফরয, ওয়াজীব ভেবে আপনারা যা মেনে চলছেন আল্লাহ তা মানতে কত কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন তবে শুধু এইটুকুই নয় আল্লাহ আরও অনেক আয়াতে এ ব্যাপারে মানুষকে সাবধানবানী শুনিয়েছেন। যেমন সূরা রূমের একটি আয়াত দেখুন যেখানে আল্লাহ পাক বলছেন ‘….. তোমরা ঐ সকল মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না যারা নিজেদের দ্বীনকে শতধা বিচ্ছিন্ন করে বহু দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। প্রত্যেক দল নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়ে খুশি’ – (সূরা রুম ৩০/৩১-৩২)। বর্তমানে আমাদের সমাজের অবস্থাও ঐ মুশরিকদের মতো। ইসলামকে তারা (মাযহাবীরা) বিভিন্ন দলে বিভক্ত করেছে এবং তাদের নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়েই তারা খুশি। তাদের সামনে কোনো কথা উপস্থাপন করলে তারা বলেনা যে কুরআন হাদীসে আছে কি না। তারা বলে আমাদের ইমাম কি বলেছে। এরা কুরয়ান হাদীসের থেকেও ইমামের ফিকাহকে অধিক গুরুত্ব দেয়। অথচ ইসলামের ভিত্তি হচ্ছে কুরআন হাদীস। তা ছাড়া অন্য কিছু নয়। উপরের আযাতে আল্লাহ তা’আলা আমাদের উপদেশ দিয়েছেন তোমরা মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না; তোমরা ইসলামে মাযহাবের সৃষ্টি করো না। অথচ আমরা কুরআনের নির্দেশকে অগ্রাহ্য করে দ্বীনে দলের সৃষ্টি করেছি এবং নিজেকে হানাফী, মালেকী বা শাফেরী বলতে গর্ব অনুভব করছি। আল্লাহ বলেন ‘হে ইমানদারগন তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সামনে অগ্রগামী হয়ো না, এবং আল্লাহকে ভয় করো; আল্লাহ সর্বশ্রোতা, মহাজ্ঞানী (সূরা হুরুরতে/০১)
আমার প্রিয় মাযহাবী ভাইয়েরা! এরকম কোরআনের স্পষ্ট নির্দেশ জানার পরও কি আপনারা মাযহাবে বিশ্বাসী হবেন এবং নিজেকে মাযহাবী বলে পরিচয় দেবেন। যারা জানে না তাদের কথা আলাদা। আল্লাহ বলেন ‘বলো, যারা জানে এবং যারা জানেনা তারা কি সমান? (সূরা যুমার ৩৯/০৯)। তাই আজই তওবা করে সঠিক আব্বীদায় ফিরে আসুন। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার তোফিক দিন। আমীন!
ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি
ভারতবর্ষের বিখ্যাত হাদীসশাস্ত্রবিদ ও হানাফীদের শিক্ষাগুরু যাকে হানাফীরা ভারতবর্ষের ‘ইমাম বুখারী’ বলে থাকেন সেই শাহ আলিউল্লাহ মুহাদ্দিসদেহেলভী (রহ) বলেছেন – ‘ই’লাম আন্না না-সা-কা-নু ক্কারলাল মিআতির রা-বিআতি গাইরা মুজমিয়ীনা আলাত্-তাকলীদিল খা-লিস লিমায় হাবিন্ ওয়া-হিদিন্ বি-আইনিহী’ অর্থাৎ তোমরা জেনে রাখো যে, ৪০০ হিজরীর আগে লোকেরা কোন একটি বিশেষ মাযহাবের উপর জমে ছিল না’ (হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ; ১৫২ পৃষ্ঠা)। অর্থাৎ ৪০০ হিজরীর আগে নিজেকে হানাফী, শাফেরী বা মালেকী বলে পরিচয় দিতো না। আর চারশো হিজরীর অনেক আগে ইমামরা ইন্তেকাল করেন। ইমামদের জন্ম ও মৃত্যুর সময়কালটা একবার জানা যাক তাহলে ব্যাপারটা আরও স্পষ্ট হয়ে যাবে।
ইমামের নাম জন্ম মৃত্যু
আবু হানীফা (রহ) ৮০ হিজরী ১৫০ হিজরী
ইমাম মালেক (রহ) ৯৩ হিজরী ১৭৯ হিজরী
ইমাম শাকেরী (রহ) ১৫০ হিজরী ২০৪ হিজরী
আহমদ বিন হাম্বাল (রহ) ১৬৪ হিজরী ২৪১ হিজরী
বিশিষ্ট হানাফী বিদ্বান শাহ ওলিউল্লাহ দেহেলভী (রহ) এর কথা যদি মেনে নেওয়া যায় যে ৪০০ হিজরীর আগে কোনো মাযহাব ছিল না, এবং ৪০০ হিজরীর পরে মানুষেরা মাযহাব সৃষ্টি করেছে, তার মানে এটা দাঁড়ায় যে আবু হানীফার ইন্তেকালের ২৫০ বছর পর হানাফী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম মালেকের ইন্তেকালের ২২১ বছর পর মালেকী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম শাফেরীর ইন্তেকালের ১৯৬ বছর পরে শাফেরী মাযহাব এবং ইমাম আহমাদের ইন্তেকালের ১৫৯ বছর পর হাম্বলী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ ইমামদের জীবিত অবস্থায় মাযহাব সৃষ্টি হয়নি। তাঁদের মৃত্যুর অনেকদিন পরে মাযহাবের উদ্ভব হয়েছে। আর একবার চিন্তা করে দেখুন মাযহাব বা দল সৃষ্টি করাতে কোরআন ও হাদিসে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মহামান্য ইমামরা ছিলেন কোরআন হাদীসের পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসারী এবং ধর্মপ্রান মুসলিম। তাঁরা কি কোরআন হাদীসকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মাযহাব তৈরি করবেন যা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ, এটা কখনো হতে পারে? যারা বলে ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেছেন তারা হয় মুর্খ নয় বেইমান। তারা ইমামদের প্রতি অপবাদ দেয়।
মাযহাব সৃষ্টি হল কিভাবে
ফারসীতে একটি প্রবাদ আছে ‘মান তোরা হাজী গো ইয়াম তু মোরা হাজী বোগো’ অর্থাৎ একজন লোক আর একজনকে বলছে, ভাই! যদিও তুমি হাজী নও তথাপি আমি তোমাকে হাজী সাহেব বলছি এবং যদিও আমি হাজী নই তুমি আমাকে হাজী সাহেব বলো। এভাবে একে অপরকেহাজী সাহেব বলে ডাকার ফলে আমরা দু-জনেই হাজী সাহেব হয়ে যাবো।
এভাবেই আবু হানীফার অনুসারীদের অথবা তাঁর ফতোয়া মান্যে ওয়ালাদের অন্যেরা হানাফী একইভাবে ইমাম মালেকের ফতোয়া মাননে ওয়ালাদের মালেকী বলে ডাকাডাকির ফলে মাযহাবের সৃষ্টি হয়েছে। আজ যা বিরাট আকার ধারন করেছে। আবু হানীফা (রহ) বা তাঁর শিষ্যরা কখনো বলেননি আমাদের ফতোয়া যারা মানবা তারা নিজেদের পরিচয় হানাফী বলে দিবা। অথবা ইমাম মালেক বা শাফেয়ীও বলে যাননি যে আমার অনুসারীরা নিজেকে মালেকী বা শাফেয়ী বলে পরিচয় দিবা। ইমামরা তো বটেই এমনকি ইমামদের শাগরেদরা কিংবা তাঁর শাগরেদদের শাগরেদরাও মাযহাব সৃষ্টি করতে বলেননি। যখন আমাদের মহামতি ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি এবং করতেও বলেননি তখন উনাদের নামে মাযহাব সৃষ্টি করার অধিকার কেন দিল?
হাদীস বিরোধী বক্তব্যের ব্যাপারে ইমামদের রায়
মাযহাবীদের মধ্যে কিছু লোক দেখা যায় যারা ইমামদের তাক্কলীদ করে অর্থাৎ অন্ধ অনুসরন করে। তারা ইমামদের বক্তব্যকে আসমানী ওহীর মতো মানে। কোরআন-হাদিস বিরোধী কোনো রায় হলেও তাতে আমল করে। তাই সেই সব লোকদের জন্য হাদীস অনুসরনের ব্যাপারে ইমামদের মতামত এবং তাদের হাদীস বিরোধী বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করার ব্যাপারে তাদের কয়েকটি উক্তি দেওয়া হল। ইনশাল্লাহ্! মাযহাবী ভাইয়েরা এ থেকে অনেক উপকারিত হবেন।
আবু হানীফা (রহ)
১) যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (ইবনুল আবেদীন ১/৬৩; রাসমুল মুফতী ১/৪; ঈক্কামুল মুফতী ৬২ পৃষ্ঠা)
২) কারো জন্য আমাদের কথা মেনে নেওয়া বৈধ নয়; যতক্ষন না সে জেনেছে যে, আমরা তা কোথা থেকে গ্রহন করেছি। (হাশিয়া ইবনুল আবেদীন ২/২৯৩ রাসমুল মুফতী ২৯, ৩২ পৃষ্ঠা, শা’ রানীর মীথান ১/৫৫; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩০৯)
৩) যে ব্যাক্তি আমার দলিল জানে না, তার জন্য আমার উক্তি দ্বারা ফতোয়া দেওয়া হারাম। (আন-নাফিউল কাবীর ১৩৫ পৃষ্ঠা)
৪) আমরা তো মানুষ। আজ এক কথা বলি, আবার কাল তা প্রত্যাহার করে নিই। – (ঐ)
৫) যদি আমি এমন কথা বলি যা আল্লাহর কিবাব ও রাসুলের (সা) হাদীসের পরিপন্থি, তাহলে আমার কথাকে বর্জন করো। (দেওয়ালে ছুড়ে মারো)। (ঈক্কাবুল হিমাম ৫০ পৃষ্ঠা)
ইমাম মালেক
১) আমি তো একজন মানুষ মাত্র। আমার কথা ভুল হতে পারে আবার ঠিকও হতে পারে। সুতরাং তোমরা আমার মতকে বিবেচনা করে দেখ। অতঃপর যেটা কিতাব ও সুন্নাহর অনুকুল পাও তা গ্রহন কর। আর যা কিতাব ও সুন্নাহর প্রতিকুল তা বর্জন করো। (জানেউ বায়ানিল ইলম ২/৩২, উসুলুল আহকাম ৬/১৪৯)
২) রাসুলুল্লাহ (সা) এর পর এমন কোনো ব্যাক্তি নেই যার কথা ও কাজ সমালোচনার উর্ধে। একমাত্র রাসুলুল্লাহ (সা) ই সমালোচনার উর্ধে। (ইবনু আবদিল হাদী, ১ম খন্ড, ২২৭ পৃষ্ঠা, আল ফতোয়া – আসসাবকী, ১ম খন্ড ১৪৮ পৃষ্ঠা, উসুলুল আহকাম ইবনু হাযম, ষষ্ঠ খন্ড ১৪৫ – ১৭৯ পৃষ্ঠা)।
৩) ইবনু ওহাব বলেছেন, আমি ইমাম মালেককের উয়ব মধ্যে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার বিষএ এক প্রশ্ন করতে শুনেছি। তিনি বলেন লোকদের জন্য এটার প্রয়োজন নীই। ইবনু ওহাব বলেন, আমি মানুষ কমে গেলে তাঁকে নিরিবিলে পেয়ে বলি ‘তাতো আমাদের জন্য সুন্নাহ। ইমাম মালেক বলেন, সেটা কি? আমি বললাম, আমরা লাইস বিন সাদ, ইবনু লোহাইআ, আমর বিন হারেস, ইয়াবিদ বিন আমার আল-মা আফেরী, আবু আবদুর রহমান আল হাবালী এবং আল মোস্তাওরাদ বিন শাদ্দাদ আল কোরাশী এই সুত্র পরম্পরা থেকে জানতে পেরেছি যে, শাদ্দাদ আল কোরাশী বলেন, আমি রাসুল (সা) কে কনিষ্ঠ আঙ্গুল দিয়ে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করতে দেখেছি। ইমাম মালেক বলেন, এটা তো সুন্দর হাদীস। আমি এখন ছাড়া আর কখনো এই হাদীসটি শুনিনি। তারপর যখনই তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে, তখনই তাঁকে পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার আদেশ দিতে আমি শুনেছি। (মোকাদ্দামা আল জারাহ ওয়াত তা দীল- ইবনু হাতেমঃ ৩১- ৩২ পৃষ্ঠা)
ইমাম শাফেরীঃ-
১) হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (মাজমু ১/৬৩; শা’রানী ১/৫৭)
২) আমি যে কথাই বলি না কেন অথবা যে নীতিই প্রনয়ন করি না কেন, তা যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর নিকট থেকে বর্ণিত (হাদীসের) খিলাপ হয়, তাহলে সে কথাই মান্য, যা রাসুল (সা) বলেছেন। আর সেটাই আমার কথা। (তারীখু দিমাশ্ক; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬৬,৩৬৪)
৩) নিজ ছাত্র ইমাম আহমাদকে সম্বোধন করে বলেন) হাদীস ও রিজাল সম্বন্ধে তোমরা আমার চেয়ে বেশি জানো। অতএব হাদীস সহীহ হলে আমাকে জানাও, সে যাই হোক না কেন; কুকী, বাসরী অথবা শামী। তা সহীহ হলে সেটাই আমি আমার মাযহাব (পন্থা) বানিয়া নেবো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৪-৯৫ পৃষ্ঠা; হিলয়াহ ৯/১০৬)
৪) আমার পুস্তকে যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর সুন্নাহের খেলাপ কে কথা পাও, তাহলে আল্লাহর রাসুল (সা) এর কথাকেই মেনে নিও এবং আমি যা বলেছি তা বর্জন করো। (নাওয়াবীর মা’জমু ১/৬৩; ইলামূল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬১)
৫) যে কথাই আমি বলি না কেন, তা যদি সহীহ সুন্নাহর পরিপন্থি হয়, তাহলে নবী (সা) এর হাদীসই অধিক মান্য। সুতরাং তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না। (হাদীস ও সুন্নাহর মুল্যমান ৫৪ পৃষ্ঠা)
৬) নবী (সা) থেকে যে হাদীসই বর্ণিত হয়, সেটাই আমার কথা; যদিও তা আমার নিকট থেকে না শুনে থাকো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৩-৯৪)
ইমাম আহমাদ-
ইমাম আহমাদ
১) তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না, মালেকেরও অন্ধানুকরন করো না। অন্ধানুকরন করো না শাফেরীর আর না আওয়ারী ও ষত্তরীব বরং তোমরা সেখান থেকে তোমরা গ্রহন কর যেখান থেকে তারা গ্রহন করেছেন। (ইলামুল মোয়াক্কিঈন ২/৩০২)
২) যে ব্যক্তি আল্লাহর রাসুল (সা) এর হাদীস প্রত্যাখ্যান করে, সে ব্যক্তি ধ্বংসোন্মুখ। (ইবনুল জাওযী ১৮২ পৃষ্ঠা)
৩) আওযাঈ; ইমাম মালেক ও ইমাম আবু হানীফার রায় তাদের নিজস্ব রায় বা ইজতিহাদ। আমার কাছে এসবই সমান। তবে দলিল হল আসার অর্থাৎ সাহাবী ও তাবেঈগনের কথা। (ইবনু আবদিল বার-আল-জামে, ২ খন্ড, ১৪৯ পৃষ্ঠা)
ইমামদের এই সকল বক্তব্য জানার পর আমরা বলতে পারি প্রকৃতই যারা ইমামদের ভালোবাসেন, শ্রদ্ধা করেন, মান্য করেন তারা ইমামদের কথা অনুযায়ী চলবেন এবং সহীহ হাদীসকেই নিজের মাযহাব বানাবেন। তাক্কলীদ করবেন না। সরাসরী সেখান থেকে গ্রহন করবেন যেখান থেকে ইমামরা করেছেন অর্থাৎ সরাসরী হাদীস কোরয়ান থেকে। ইমামরা কোনো বিষয়ে ভুল ফতোয়া (সহীহ হাদীস তাঁদের কাছে না পৌছানোর কারনে) দিয়ে থাকলে তা প্রত্যাখ্যান করা এবং সহীহ হাদীসের উপর আমল করা। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার ও গ্রহীহ হাদীসের উপর আমল করার তৌফিক দিন। আমীন!

কখনই কি চিন্তা করে দেখেছেন??
মানুষ কি ফরজের মালিক?
মানুষ কি ফরজের মালিক?।না আল্লাহ ফরজের মালিক?কারন অনেকেই বলে থাকে ৪ মাযহাবের একটি মানা ফরজ।
৪ইমাম কি মাযহাব প্রতিষ্ঠিতা ?
৪ইমাম কখনই বলেনি তোমরা আমার অনুসরন কর।তারা বলে গেছেন নবী সাঃ ,সাহাবী দের এর অনুসরন করো ।তারা নিজেরাই নবী সাঃ ,সাহাবী দের এর অনুসরন করেছেন।
কিছু লোক এই ৪ ইমাম কে অন্ধ অনুসরন করে যা এই ৪ ইমামদের মত বিরোধী কাজ।
• ৪ইমাম বলেছেন – যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব বা মত।
• মাযহাবীদের মধ্যে কিছু লোক দেখা যায় যারা ইমামদের তাক্কলীদ করে অর্থাৎ অন্ধ অনুসরন করে। তারা ইমামদের বক্তব্যকে আসমানী ওহীর মতো মানে।
• মুসলিম জাতির অনেক লোক এই ৪ ইমাম কে সামনে রেখে মানুষ কে ভিন্ন ভিন্ন দলে ভাগ করেছেন।এর জন্য কি ৪ ইমাম দায়ী?না তা নয় তাদের আমরা সম্মান করি এবং তাদের ঐ কথা কে প্রাধান্য দিই – যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব বা মত।
মাযহাব সংক্রান্ত পৃষ্ঠা পড়ুন
মেশকাত শরীফ – ৩য় খন্ড – সালাউদ্দিন বই ঘর – ১৬৪ নং হাদীস -ওমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত নবী (সাঃ) বলেছেন বনী ইসরাঈলের যা হয়েছিল আমার উম্মতের অবস্হা তাই হবে ।যেমন জুতার সাথে জুতা।এমনকি তাদের কেও যদি মায়ের সাথে প্রকাশ্য যেনা করে থাকে তবে আমার উম্মতের মধ্যও এমন নরাধম হবে,যে এ কাজ করে বসবে এ ছাড়া বনী ইসরাঈল ৭২ দলে বিভক্ত হয়েছিল আর আমার উম্মত বিভক্ত হবে ৭৩ দলে ।আর তাদের ১ টি দল ছাড়া সবাই জাহান্নামে যাবে ।সবাই বলল হে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) সেটি কোন দল?উত্তরে হুজুর (সাঃ) বললেন আমি ও আমার সাহাবীগন যে দলে আছি সেই দল।
বিভিন্ন দল হওয়ার পিছনে কারন গুলো কি কি?
• যত পীর তত দল ” চিন্তা করে দেখুন”।পীরখানা গুলো যারা চালায় তারা এর জন্য দায়ী।
• যত মাযহাবী গোঁড়ামী তত দল
• পরা শক্তি এর পিছনে কাজ করে ,কেননা মুসলমানরা এক হয়ে গেলে যদি ক্ষমতায় চলে যায় (কিছু দেশ চাই না মুসলমান এক হয়ে যাক ) শোনা কথা এর পিছনে কিছু টাকাও ব্যায় করা হয়।
• মুসলমানরা কোরআন ও সহী সুন্নাহ থেকে দূরে।
• কিছু জাল ও দুর্বল হাদিস নিয়ে তর্ক বা বিরোধ।
• মানুষদের মধ্য তাকলিদ বা গোড়ামী। মানুষের COMMON উত্তর – আমি যা এতদিন জেনে এসেছি তা ভুল?তোমরা বেশি জান।এত লোক সব ভুল করছে?আপনি যদি বুখারি বা মুসলিম শরীফের এমন কোন হাদিস বর্ণনা করেন যা মানুষ জানে না, তাহলে তারা বলবে এসব নুতুন কিছু কই পেয়েছ?আমাদের সময় এইগুলো ছিল না।
এ গুলো নিরাময়ের উপায় ?
• মানুষদের তাকলিদ বা গোড়ামী না করা ।
• জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো অনুযায়ী আমল না করা ।জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো নিয়ে তর্ক না করা ।কেন আপনি জাল ও দুর্বল হাদিস অনুযায়ী আমল করে RISK নিবেন?
• পীরখানা গুলোয় না যাওয়া। (তাদের কবর যিয়ারত করা যাবে)
• মুসলমানদের কোরআন ও সহী সুন্নাহ মেনে চলা।
• পরা শক্তি দেরকে নিজেদের মধ্য ঠায় বা প্রশয় না দেওয়া।
• প্রথমে আমাদের মানতে হবে কোরআন ও সহী হাদিস তারপর ৪ইমাম এর ফতোয়ার গুরুত্ব দিতে হবে।তাহলে সকল মুসলিম এক হয়ে যাবে
• এই হাদিস এর সঠিক মানে বুঝা – নবী সাঃ ভবিষৎ বানী করেছেন যে আমার উম্মতের মধ্য ৭৩ টা দল হবে। নবী সাঃ কখনই বলেনি তোমরা ৭৩ টা দল বানাও।
শেষ কথা
প্রতিটি দলের মাঝে ৯৫% মিল মাত্র ৫% এদিক আর সেদিক -কেউ NON MUSLIM থেকে কিছু নিয়েছে , কেউ জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো অনুযায়ী আমল করে আর কেউ সহী হাদিস অনুযায়ী আমল করে ।আসুন আমরা সকলে এই ৫% ঠিক করে নিই এবং খাটি মুসলমান হয়ে যায় – আল্লাহ যেন আমাদের সবাইকে সঠিক বোঝার তৌফিক দান করেন এবং আমরা যেন সকল মুসলমান এক হয়ে যায় ,আল্লাহ যেন আমাদের উপর রহম করেন – আমীন ।
Copied

ফরজ?
মাযহাব মানে মত।ফরজের মালিক এক মাএ আল্লাহ। মানুষের তৈরী কোন কিছুকে ফরজ বলা কি ঠিক?আর মাযহাব মানুষের তৈরী আর ৪ ইমাম বলে যাননি আমার মত মান।
কুরআন হাদীস ও চার ইমামদের দৃষ্টিতে মাযহাব
বর্তমানে সারাবিশ্বে মুসলমানের সংখ্যা আড়াইশো কোটিরও বেশী। পৃথিবীর প্রত্যেক তিনজন ব্যাক্তির মধ্যে একজন মুসলমান। অমুসলিমদের কাছে আমরা অর্থাৎ ইসলাম ধর্মাবলম্বীরা মুসলমান বলে পরিচিত হলেও মুসলিমরা নিজেদের মধ্যে অনেক নামে পরিচিত। যেমন, হানাফী, শাফেয়ী, মালেকী, হাম্বলী প্রভৃতি। এই নাম গুলি আল্লাহ বা মুহাম্মাদ সাঃএর দেওয়া নয় এমনকি যাঁদের নামে এই মাযহাব তৈরি করা হয়েছে তারাও এই নাম গুলো দেয়নি।
মুসলমানদের মধ্যে প্রচলিত চারটি মাযহাব, দল বা ফিকাহ ইসলামের কোনো নিয়ম বা বিধান মেনে তৈরি করা হয়নি। কারন ইসলাম ধর্মে কোনো দলবাজী বা ফিরকাবন্দী নেই। মুসলমানদের বিভক্ত হওয়া থেকে এবং ধর্মে নানা মতের সৃষ্টি করা থেকে কঠোরভাবে সাবধান করা হয়েছে। এই মাযহাবগুলো রসুল (যা) এবং সাহাবাদের (রা) সময় সৃষ্টি হয়নি। এমনকি ঈমামগনের সময়ও হয়নি। চার ইমামের মৃত্যুর অনেক বছর পরে তাঁদের নামে মাযহাব তৈরি হয়েছে। কোরআন হাদীস ও চার ইমামের দৃষ্টিতে মাযহাব কি, কেন, মাযহাব কি মানতেই হবে, মাযহাব মানলে কি গোনাহ হবে, সে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করব ইনশাল্লাহ্!
মাযহাব তৈরিতে আল্লাহর কঠোর নিষেধাজ্ঞা
মুসলমানেরা যাতে বিভিন্ন দলে আলাদা বা বিভক্ত না হয়ে যায় সে জন্য আল্লাহ পাক আমাদের কঠোরভাবে সাবধান করেছেন। যেমন আল্লাহ তা’আলা কুরআনের সূরা আন-আমর এর ১৫৯ নম্বর আয়াতে বলেছেন ‘যারা দ্বীন সন্বন্ধে নানা মতের সৃষ্টি করেছে এবং বিভিন্ন, দলে বিভক্ত হয়েছে হে নবী! তাদের সাথে তোমার কোনও সম্পর্ক নেই; তাদের বিষয় আল্লাহর ইখতিয়ারভুক্ত। আল্লাহ তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম সম্পর্কে অবগত করবেন। একটু থামুন। উপরের আয়াতটা দয়া করে বারবার পড়ুন এবং বোঝার চেষ্টা করুন, চিন্তা করুন। আল্লাহ তা’আলা সরাসরি বলেছেন যারা দ্বীন বা ধর্মে অর্থাৎ ইসলামে নানা মতগের সৃষ্টি করেছে এবং বিভক্ত হয়েছে, তাদের সাথে আমাদের নবী মহাম্মাদ (সা) এর কোনো সম্পর্ক নেই। যার সাথে নবীজীর (সা) কোনো সম্পর্ক নেই সে কি মুসলমান? সে কি কখনো জান্নাতের গন্ধও পাবে। আমরা মুসলমান কোরআন হাদীস মাননে ওয়ালা এটাই আমাদের একমাত্র পরিচয়। আল্লাহ বলেন এবং তোমাদের এই যে জাতি, এতো একই জাতি; এবং আমিই তোমাদের প্রতিপালক, অতএব আমাকে ভয় করো। (সূরা মুউমিনুন ২৩/৫২)। তাহলেই বুঝতেই পড়েছেন ফরয, ওয়াজীব ভেবে আপনারা যা মেনে চলছেন আল্লাহ তা মানতে কত কঠোরভাবে নিষেধ করেছেন তবে শুধু এইটুকুই নয় আল্লাহ আরও অনেক আয়াতে এ ব্যাপারে মানুষকে সাবধানবানী শুনিয়েছেন। যেমন সূরা রূমের একটি আয়াত দেখুন যেখানে আল্লাহ পাক বলছেন ‘….. তোমরা ঐ সকল মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না যারা নিজেদের দ্বীনকে শতধা বিচ্ছিন্ন করে বহু দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। প্রত্যেক দল নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়ে খুশি’ – (সূরা রুম ৩০/৩১-৩২)। বর্তমানে আমাদের সমাজের অবস্থাও ঐ মুশরিকদের মতো। ইসলামকে তারা (মাযহাবীরা) বিভিন্ন দলে বিভক্ত করেছে এবং তাদের নিজেদের কাছে যা আছে তা নিয়েই তারা খুশি। তাদের সামনে কোনো কথা উপস্থাপন করলে তারা বলেনা যে কুরআন হাদীসে আছে কি না। তারা বলে আমাদের ইমাম কি বলেছে। এরা কুরয়ান হাদীসের থেকেও ইমামের ফিকাহকে অধিক গুরুত্ব দেয়। অথচ ইসলামের ভিত্তি হচ্ছে কুরআন হাদীস। তা ছাড়া অন্য কিছু নয়। উপরের আযাতে আল্লাহ তা’আলা আমাদের উপদেশ দিয়েছেন তোমরা মুশরিকদের অন্তর্ভুক্ত হয়ো না; তোমরা ইসলামে মাযহাবের সৃষ্টি করো না। অথচ আমরা কুরআনের নির্দেশকে অগ্রাহ্য করে দ্বীনে দলের সৃষ্টি করেছি এবং নিজেকে হানাফী, মালেকী বা শাফেরী বলতে গর্ব অনুভব করছি। আল্লাহ বলেন ‘হে ইমানদারগন তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের সামনে অগ্রগামী হয়ো না, এবং আল্লাহকে ভয় করো; আল্লাহ সর্বশ্রোতা, মহাজ্ঞানী (সূরা হুরুরতে/০১)
আমার প্রিয় মাযহাবী ভাইয়েরা! এরকম কোরআনের স্পষ্ট নির্দেশ জানার পরও কি আপনারা মাযহাবে বিশ্বাসী হবেন এবং নিজেকে মাযহাবী বলে পরিচয় দেবেন। যারা জানে না তাদের কথা আলাদা। আল্লাহ বলেন ‘বলো, যারা জানে এবং যারা জানেনা তারা কি সমান? (সূরা যুমার ৩৯/০৯)। তাই আজই তওবা করে সঠিক আব্বীদায় ফিরে আসুন। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার তোফিক দিন। আমীন!
ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি
ভারতবর্ষের বিখ্যাত হাদীসশাস্ত্রবিদ ও হানাফীদের শিক্ষাগুরু যাকে হানাফীরা ভারতবর্ষের ‘ইমাম বুখারী’ বলে থাকেন সেই শাহ আলিউল্লাহ মুহাদ্দিসদেহেলভী (রহ) বলেছেন – ‘ই’লাম আন্না না-সা-কা-নু ক্কারলাল মিআতির রা-বিআতি গাইরা মুজমিয়ীনা আলাত্-তাকলীদিল খা-লিস লিমায় হাবিন্ ওয়া-হিদিন্ বি-আইনিহী’ অর্থাৎ তোমরা জেনে রাখো যে, ৪০০ হিজরীর আগে লোকেরা কোন একটি বিশেষ মাযহাবের উপর জমে ছিল না’ (হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ; ১৫২ পৃষ্ঠা)। অর্থাৎ ৪০০ হিজরীর আগে নিজেকে হানাফী, শাফেরী বা মালেকী বলে পরিচয় দিতো না। আর চারশো হিজরীর অনেক আগে ইমামরা ইন্তেকাল করেন। ইমামদের জন্ম ও মৃত্যুর সময়কালটা একবার জানা যাক তাহলে ব্যাপারটা আরও স্পষ্ট হয়ে যাবে।
ইমামের নাম জন্ম মৃত্যু
আবু হানীফা (রহ) ৮০ হিজরী ১৫০ হিজরী
ইমাম মালেক (রহ) ৯৩ হিজরী ১৭৯ হিজরী
ইমাম শাকেরী (রহ) ১৫০ হিজরী ২০৪ হিজরী
আহমদ বিন হাম্বাল (রহ) ১৬৪ হিজরী ২৪১ হিজরী
বিশিষ্ট হানাফী বিদ্বান শাহ ওলিউল্লাহ দেহেলভী (রহ) এর কথা যদি মেনে নেওয়া যায় যে ৪০০ হিজরীর আগে কোনো মাযহাব ছিল না, এবং ৪০০ হিজরীর পরে মানুষেরা মাযহাব সৃষ্টি করেছে, তার মানে এটা দাঁড়ায় যে আবু হানীফার ইন্তেকালের ২৫০ বছর পর হানাফী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম মালেকের ইন্তেকালের ২২১ বছর পর মালেকী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। ইমাম শাফেরীর ইন্তেকালের ১৯৬ বছর পরে শাফেরী মাযহাব এবং ইমাম আহমাদের ইন্তেকালের ১৫৯ বছর পর হাম্বলী মাযহাব সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ ইমামদের জীবিত অবস্থায় মাযহাব সৃষ্টি হয়নি। তাঁদের মৃত্যুর অনেকদিন পরে মাযহাবের উদ্ভব হয়েছে। আর একবার চিন্তা করে দেখুন মাযহাব বা দল সৃষ্টি করাতে কোরআন ও হাদিসে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মহামান্য ইমামরা ছিলেন কোরআন হাদীসের পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসারী এবং ধর্মপ্রান মুসলিম। তাঁরা কি কোরআন হাদীসকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মাযহাব তৈরি করবেন যা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ, এটা কখনো হতে পারে? যারা বলে ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেছেন তারা হয় মুর্খ নয় বেইমান। তারা ইমামদের প্রতি অপবাদ দেয়।
মাযহাব সৃষ্টি হল কিভাবে
ফারসীতে একটি প্রবাদ আছে ‘মান তোরা হাজী গো ইয়াম তু মোরা হাজী বোগো’ অর্থাৎ একজন লোক আর একজনকে বলছে, ভাই! যদিও তুমি হাজী নও তথাপি আমি তোমাকে হাজী সাহেব বলছি এবং যদিও আমি হাজী নই তুমি আমাকে হাজী সাহেব বলো। এভাবে একে অপরকেহাজী সাহেব বলে ডাকার ফলে আমরা দু-জনেই হাজী সাহেব হয়ে যাবো।
এভাবেই আবু হানীফার অনুসারীদের অথবা তাঁর ফতোয়া মান্যে ওয়ালাদের অন্যেরা হানাফী একইভাবে ইমাম মালেকের ফতোয়া মাননে ওয়ালাদের মালেকী বলে ডাকাডাকির ফলে মাযহাবের সৃষ্টি হয়েছে। আজ যা বিরাট আকার ধারন করেছে। আবু হানীফা (রহ) বা তাঁর শিষ্যরা কখনো বলেননি আমাদের ফতোয়া যারা মানবা তারা নিজেদের পরিচয় হানাফী বলে দিবা। অথবা ইমাম মালেক বা শাফেয়ীও বলে যাননি যে আমার অনুসারীরা নিজেকে মালেকী বা শাফেয়ী বলে পরিচয় দিবা। ইমামরা তো বটেই এমনকি ইমামদের শাগরেদরা কিংবা তাঁর শাগরেদদের শাগরেদরাও মাযহাব সৃষ্টি করতে বলেননি। যখন আমাদের মহামতি ইমামরা মাযহাব সৃষ্টি করেননি এবং করতেও বলেননি তখন উনাদের নামে মাযহাব সৃষ্টি করার অধিকার কেন দিল?
হাদীস বিরোধী বক্তব্যের ব্যাপারে ইমামদের রায়
মাযহাবীদের মধ্যে কিছু লোক দেখা যায় যারা ইমামদের তাক্কলীদ করে অর্থাৎ অন্ধ অনুসরন করে। তারা ইমামদের বক্তব্যকে আসমানী ওহীর মতো মানে। কোরআন-হাদিস বিরোধী কোনো রায় হলেও তাতে আমল করে। তাই সেই সব লোকদের জন্য হাদীস অনুসরনের ব্যাপারে ইমামদের মতামত এবং তাদের হাদীস বিরোধী বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করার ব্যাপারে তাদের কয়েকটি উক্তি দেওয়া হল। ইনশাল্লাহ্! মাযহাবী ভাইয়েরা এ থেকে অনেক উপকারিত হবেন।
আবু হানীফা (রহ)
১) যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (ইবনুল আবেদীন ১/৬৩; রাসমুল মুফতী ১/৪; ঈক্কামুল মুফতী ৬২ পৃষ্ঠা)
২) কারো জন্য আমাদের কথা মেনে নেওয়া বৈধ নয়; যতক্ষন না সে জেনেছে যে, আমরা তা কোথা থেকে গ্রহন করেছি। (হাশিয়া ইবনুল আবেদীন ২/২৯৩ রাসমুল মুফতী ২৯, ৩২ পৃষ্ঠা, শা’ রানীর মীথান ১/৫৫; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩০৯)
৩) যে ব্যাক্তি আমার দলিল জানে না, তার জন্য আমার উক্তি দ্বারা ফতোয়া দেওয়া হারাম। (আন-নাফিউল কাবীর ১৩৫ পৃষ্ঠা)
৪) আমরা তো মানুষ। আজ এক কথা বলি, আবার কাল তা প্রত্যাহার করে নিই। – (ঐ)
৫) যদি আমি এমন কথা বলি যা আল্লাহর কিবাব ও রাসুলের (সা) হাদীসের পরিপন্থি, তাহলে আমার কথাকে বর্জন করো। (দেওয়ালে ছুড়ে মারো)। (ঈক্কাবুল হিমাম ৫০ পৃষ্ঠা)
ইমাম মালেক
১) আমি তো একজন মানুষ মাত্র। আমার কথা ভুল হতে পারে আবার ঠিকও হতে পারে। সুতরাং তোমরা আমার মতকে বিবেচনা করে দেখ। অতঃপর যেটা কিতাব ও সুন্নাহর অনুকুল পাও তা গ্রহন কর। আর যা কিতাব ও সুন্নাহর প্রতিকুল তা বর্জন করো। (জানেউ বায়ানিল ইলম ২/৩২, উসুলুল আহকাম ৬/১৪৯)
২) রাসুলুল্লাহ (সা) এর পর এমন কোনো ব্যাক্তি নেই যার কথা ও কাজ সমালোচনার উর্ধে। একমাত্র রাসুলুল্লাহ (সা) ই সমালোচনার উর্ধে। (ইবনু আবদিল হাদী, ১ম খন্ড, ২২৭ পৃষ্ঠা, আল ফতোয়া – আসসাবকী, ১ম খন্ড ১৪৮ পৃষ্ঠা, উসুলুল আহকাম ইবনু হাযম, ষষ্ঠ খন্ড ১৪৫ – ১৭৯ পৃষ্ঠা)।
৩) ইবনু ওহাব বলেছেন, আমি ইমাম মালেককের উয়ব মধ্যে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার বিষএ এক প্রশ্ন করতে শুনেছি। তিনি বলেন লোকদের জন্য এটার প্রয়োজন নীই। ইবনু ওহাব বলেন, আমি মানুষ কমে গেলে তাঁকে নিরিবিলে পেয়ে বলি ‘তাতো আমাদের জন্য সুন্নাহ। ইমাম মালেক বলেন, সেটা কি? আমি বললাম, আমরা লাইস বিন সাদ, ইবনু লোহাইআ, আমর বিন হারেস, ইয়াবিদ বিন আমার আল-মা আফেরী, আবু আবদুর রহমান আল হাবালী এবং আল মোস্তাওরাদ বিন শাদ্দাদ আল কোরাশী এই সুত্র পরম্পরা থেকে জানতে পেরেছি যে, শাদ্দাদ আল কোরাশী বলেন, আমি রাসুল (সা) কে কনিষ্ঠ আঙ্গুল দিয়ে দুই পায়ের আঙ্গুল খেলাল করতে দেখেছি। ইমাম মালেক বলেন, এটা তো সুন্দর হাদীস। আমি এখন ছাড়া আর কখনো এই হাদীসটি শুনিনি। তারপর যখনই তাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে, তখনই তাঁকে পায়ের আঙ্গুল খেলাল করার আদেশ দিতে আমি শুনেছি। (মোকাদ্দামা আল জারাহ ওয়াত তা দীল- ইবনু হাতেমঃ ৩১- ৩২ পৃষ্ঠা)
ইমাম শাফেরীঃ-
১) হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব। (মাজমু ১/৬৩; শা’রানী ১/৫৭)
২) আমি যে কথাই বলি না কেন অথবা যে নীতিই প্রনয়ন করি না কেন, তা যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর নিকট থেকে বর্ণিত (হাদীসের) খিলাপ হয়, তাহলে সে কথাই মান্য, যা রাসুল (সা) বলেছেন। আর সেটাই আমার কথা। (তারীখু দিমাশ্ক; ইলামুল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬৬,৩৬৪)
৩) নিজ ছাত্র ইমাম আহমাদকে সম্বোধন করে বলেন) হাদীস ও রিজাল সম্বন্ধে তোমরা আমার চেয়ে বেশি জানো। অতএব হাদীস সহীহ হলে আমাকে জানাও, সে যাই হোক না কেন; কুকী, বাসরী অথবা শামী। তা সহীহ হলে সেটাই আমি আমার মাযহাব (পন্থা) বানিয়া নেবো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৪-৯৫ পৃষ্ঠা; হিলয়াহ ৯/১০৬)
৪) আমার পুস্তকে যদি আল্লাহর রাসুল (সা) এর সুন্নাহের খেলাপ কে কথা পাও, তাহলে আল্লাহর রাসুল (সা) এর কথাকেই মেনে নিও এবং আমি যা বলেছি তা বর্জন করো। (নাওয়াবীর মা’জমু ১/৬৩; ইলামূল মুওয়াক্কিঈন ২/৩৬১)
৫) যে কথাই আমি বলি না কেন, তা যদি সহীহ সুন্নাহর পরিপন্থি হয়, তাহলে নবী (সা) এর হাদীসই অধিক মান্য। সুতরাং তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না। (হাদীস ও সুন্নাহর মুল্যমান ৫৪ পৃষ্ঠা)
৬) নবী (সা) থেকে যে হাদীসই বর্ণিত হয়, সেটাই আমার কথা; যদিও তা আমার নিকট থেকে না শুনে থাকো। (ইবনু আবী হাতীম ৯৩-৯৪)
ইমাম আহমাদ-
ইমাম আহমাদ
১) তোমরা আমার অন্ধানুকরন করো না, মালেকেরও অন্ধানুকরন করো না। অন্ধানুকরন করো না শাফেরীর আর না আওয়ারী ও ষত্তরীব বরং তোমরা সেখান থেকে তোমরা গ্রহন কর যেখান থেকে তারা গ্রহন করেছেন। (ইলামুল মোয়াক্কিঈন ২/৩০২)
২) যে ব্যক্তি আল্লাহর রাসুল (সা) এর হাদীস প্রত্যাখ্যান করে, সে ব্যক্তি ধ্বংসোন্মুখ। (ইবনুল জাওযী ১৮২ পৃষ্ঠা)
৩) আওযাঈ; ইমাম মালেক ও ইমাম আবু হানীফার রায় তাদের নিজস্ব রায় বা ইজতিহাদ। আমার কাছে এসবই সমান। তবে দলিল হল আসার অর্থাৎ সাহাবী ও তাবেঈগনের কথা। (ইবনু আবদিল বার-আল-জামে, ২ খন্ড, ১৪৯ পৃষ্ঠা)
ইমামদের এই সকল বক্তব্য জানার পর আমরা বলতে পারি প্রকৃতই যারা ইমামদের ভালোবাসেন, শ্রদ্ধা করেন, মান্য করেন তারা ইমামদের কথা অনুযায়ী চলবেন এবং সহীহ হাদীসকেই নিজের মাযহাব বানাবেন। তাক্কলীদ করবেন না। সরাসরী সেখান থেকে গ্রহন করবেন যেখান থেকে ইমামরা করেছেন অর্থাৎ সরাসরী হাদীস কোরয়ান থেকে। ইমামরা কোনো বিষয়ে ভুল ফতোয়া (সহীহ হাদীস তাঁদের কাছে না পৌছানোর কারনে) দিয়ে থাকলে তা প্রত্যাখ্যান করা এবং সহীহ হাদীসের উপর আমল করা। আল্লাহ আমাদের সকলকে ইসলাম বোঝার ও গ্রহীহ হাদীসের উপর আমল করার তৌফিক দিন। আমীন!

কখনই কি চিন্তা করে দেখেছেন??
মানুষ কি ফরজের মালিক?
মানুষ কি ফরজের মালিক?।না আল্লাহ ফরজের মালিক?কারন অনেকেই বলে থাকে ৪ মাযহাবের একটি মানা ফরজ।
৪ইমাম কি মাযহাব প্রতিষ্ঠিতা ?
৪ইমাম কখনই বলেনি তোমরা আমার অনুসরন কর।তারা বলে গেছেন নবী সাঃ ,সাহাবী দের এর অনুসরন করো ।তারা নিজেরাই নবী সাঃ ,সাহাবী দের এর অনুসরন করেছেন।
কিছু লোক এই ৪ ইমাম কে অন্ধ অনুসরন করে যা এই ৪ ইমামদের মত বিরোধী কাজ।
• ৪ইমাম বলেছেন – যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব বা মত।
• মাযহাবীদের মধ্যে কিছু লোক দেখা যায় যারা ইমামদের তাক্কলীদ করে অর্থাৎ অন্ধ অনুসরন করে। তারা ইমামদের বক্তব্যকে আসমানী ওহীর মতো মানে।
• মুসলিম জাতির অনেক লোক এই ৪ ইমাম কে সামনে রেখে মানুষ কে ভিন্ন ভিন্ন দলে ভাগ করেছেন।এর জন্য কি ৪ ইমাম দায়ী?না তা নয় তাদের আমরা সম্মান করি এবং তাদের ঐ কথা কে প্রাধান্য দিই – যখন হাদীস সহীহ হবে, তখন সেটাই আমার মাযহাব অর্থাৎ হাদীস সহীহ হলে সেটাই আমার মাযহাব বা মত।
মাযহাব সংক্রান্ত পৃষ্ঠা পড়ুন
মেশকাত শরীফ – ৩য় খন্ড – সালাউদ্দিন বই ঘর – ১৬৪ নং হাদীস -ওমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত নবী (সাঃ) বলেছেন বনী ইসরাঈলের যা হয়েছিল আমার উম্মতের অবস্হা তাই হবে ।যেমন জুতার সাথে জুতা।এমনকি তাদের কেও যদি মায়ের সাথে প্রকাশ্য যেনা করে থাকে তবে আমার উম্মতের মধ্যও এমন নরাধম হবে,যে এ কাজ করে বসবে এ ছাড়া বনী ইসরাঈল ৭২ দলে বিভক্ত হয়েছিল আর আমার উম্মত বিভক্ত হবে ৭৩ দলে ।আর তাদের ১ টি দল ছাড়া সবাই জাহান্নামে যাবে ।সবাই বলল হে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) সেটি কোন দল?উত্তরে হুজুর (সাঃ) বললেন আমি ও আমার সাহাবীগন যে দলে আছি সেই দল।
বিভিন্ন দল হওয়ার পিছনে কারন গুলো কি কি?
• যত পীর তত দল ” চিন্তা করে দেখুন”।পীরখানা গুলো যারা চালায় তারা এর জন্য দায়ী।
• যত মাযহাবী গোঁড়ামী তত দল
• পরা শক্তি এর পিছনে কাজ করে ,কেননা মুসলমানরা এক হয়ে গেলে যদি ক্ষমতায় চলে যায় (কিছু দেশ চাই না মুসলমান এক হয়ে যাক ) শোনা কথা এর পিছনে কিছু টাকাও ব্যায় করা হয়।
• মুসলমানরা কোরআন ও সহী সুন্নাহ থেকে দূরে।
• কিছু জাল ও দুর্বল হাদিস নিয়ে তর্ক বা বিরোধ।
• মানুষদের মধ্য তাকলিদ বা গোড়ামী। মানুষের COMMON উত্তর – আমি যা এতদিন জেনে এসেছি তা ভুল?তোমরা বেশি জান।এত লোক সব ভুল করছে?আপনি যদি বুখারি বা মুসলিম শরীফের এমন কোন হাদিস বর্ণনা করেন যা মানুষ জানে না, তাহলে তারা বলবে এসব নুতুন কিছু কই পেয়েছ?আমাদের সময় এইগুলো ছিল না।
এ গুলো নিরাময়ের উপায় ?
• মানুষদের তাকলিদ বা গোড়ামী না করা ।
• জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো অনুযায়ী আমল না করা ।জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো নিয়ে তর্ক না করা ।কেন আপনি জাল ও দুর্বল হাদিস অনুযায়ী আমল করে RISK নিবেন?
• পীরখানা গুলোয় না যাওয়া। (তাদের কবর যিয়ারত করা যাবে)
• মুসলমানদের কোরআন ও সহী সুন্নাহ মেনে চলা।
• পরা শক্তি দেরকে নিজেদের মধ্য ঠায় বা প্রশয় না দেওয়া।
• প্রথমে আমাদের মানতে হবে কোরআন ও সহী হাদিস তারপর ৪ইমাম এর ফতোয়ার গুরুত্ব দিতে হবে।তাহলে সকল মুসলিম এক হয়ে যাবে
• এই হাদিস এর সঠিক মানে বুঝা – নবী সাঃ ভবিষৎ বানী করেছেন যে আমার উম্মতের মধ্য ৭৩ টা দল হবে। নবী সাঃ কখনই বলেনি তোমরা ৭৩ টা দল বানাও।
শেষ কথা
প্রতিটি দলের মাঝে ৯৫% মিল মাত্র ৫% এদিক আর সেদিক -কেউ NON MUSLIM থেকে কিছু নিয়েছে , কেউ জাল ও দুর্বল হাদিস গুলো অনুযায়ী আমল করে আর কেউ সহী হাদিস অনুযায়ী আমল করে ।আসুন আমরা সকলে এই ৫% ঠিক করে নিই এবং খাটি মুসলমান হয়ে যায় – আল্লাহ যেন আমাদের সবাইকে সঠিক বোঝার তৌফিক দান করেন এবং আমরা যেন সকল মুসলমান এক হয়ে যায় ,আল্লাহ যেন আমাদের উপর রহম করেন – আমীন ।
Copied

Tahara begum fb

Geeta is part of epic Mahabharata which is a story written

Geeta is part of epic Mahabharata which is a story written. As per historians, when written initially Mahabharata had only around 10 thousand verses but later it grew as every generation kept on adding episodes and new stories into it and now it has over 1 lakh verses. So Geeta which is part of Mahabharata also got changed tremendously as many different philosophies were introduced into it during the course of time. We can find many philosophies of upanishads in it like samkhya, adwaita, dwaita and people even introduced caste system into it by making it appear as if Krishna is teaching it. Gandhiji was also influenced by this and that is why blindly supported caste system.

So we can not consider Geeta as Revelation. Its a philosophical and mythical book.

Yes, Krishna was not there in Vedas, upanishads. He came to light through Mythology (Puranas). So he is a mythological figure. God taking human form (Avatar) is even against the concepts of earlier Hindu scriptures ie Vedas and Upanishads.

Read this article to understand how and why different philosophies and mythology were mixed as part of bhakti (devotion) movement. That gives you good understanding of how concept of God changed in Hinduism over time.

By..R.Tasmin

Sourse.. https://m.facebook.com/groups/1383781718590059?view=permalink&id=1414887642146133

Philosophies & Revelation

About

We have two sources for acquiring spiritual knowledge.

  1. Philosophies
  2. Revelation

Philosophies are works of human beings who tried to understand the realities around them, who tried to find answers to questions like who are we? who is God? what is the purpose of life? etc

The problem with philosophies is that every philosopher gave a different explanation for these questions. For example – philosophies of Buddha, Mahavira, Shankaracharya, Ramanuja, Madhvacharya are not only different from each other they contradict with the other on many important points.

Buddha rejected soul (Atma), mahavira accepted it (each human has a soul), Shankaracharya’s adwaita says soul in all living beings is ONE and that is Brahman (God) and so every individual is actually God, Ramanuja rejected this and said Brahman is like sun and individual souls are like rays (sun self illuminating, rays depended on sun), Madhvacharya said individual soul and Brahman are different.

Buddha, mahavira rejected the notion of God where as others accepted Brahman but defined it in entirely different ways. For shankaracharya its nirguna, nirakara, sudha chaitanyam (attributeless, formless, pure consciousness) where as for Ramanuja its saguna, saakara (with attributes, with form) and he equated Brahman with Vishnu and Madhvacharya said Brhamn is Krishna.

Similarly you will find contradictions in path to salvation, the very definition of salvation and what happens after salvation etc.,

PHILOSOPHERS ARE HUMANS AND THEIR KNOWLEDGE IS LIMITED AND THESE VARIOUS PHILOSOPHIES ARE PROOF OF IT.

There is an alternate source of spiritual information for those who are interested. Its called REVELATION. Here God is sending down a message to His chosen men, giving us the knowledge of reality of life and beyond. Quran is a perfectly preserved revelation available to us.

No matter how great a philosopher is, he cant tell us what happens after death, all they did was some predictions. God, almighty, all-knowing knows future also., he is communicating to us through Revelation about all the facts of life.

Please read Quran to understand the message of Revelation.

Leave a Reply

Your email address will not be published.Required fields are marked *

Comment

Name *

Website

Notify me of new comments via email.

:)

Hinduism – how idol worship started?

Hinduism – how idol worship started?
October 4, 2016Uncategorized
Hinduism is not a simple religion., it has various philosophies, belief systems, mythology etc., It has evolved greatly during the course of time (from Vedic to Puranic periods).

It’s difficult to grasp all about Hinduism in a small post but I am trying it here to make you understand the turf war between Vishnu and Shiva as I see lot of argument is happening on this. Pls read with patience, it will be give everyone a good historical background of facts. If you have any objection to any of the facts presented here, I am ready to correct my views if presented with sufficient authentic evidence.

Vedas, the oldest Hindu scriptures contain hymns (mantras) to worship devatas who number around 33. Indra, Agni, Varuna, surya, vaayu so on.. including Vishnu and Rudra (later became Shiva). Indra was God of lightning, Agni is fire, Varuna – God of rain etc., Anyone who has a little knowledge of Vedas know that Indra, Agni, Varuna are the prominent or most important devatas in Vedas; Vishnu and rudra are mentioned very few times (vs hundreds of hymns for Indra,agni, varuna).

Apart from devata worship, some philosophy is also there in Vedas which seems to be closer to monism (idea that all existence is one). You might have come across the famous Vedic statement- “ekam sat, vipra bahdua vadanti” (Truth is one, scholars call it with various names). Actually here “sat” means “all that is”. Various other hymns introduce purusha, hiranya garbha describing them as the entities who themselves became this entire creation. This is called Monism. Please read about Monism if you want to understand this concept further.

There was no Idol worship during Vedic period. How these devatas were worshipped then? Through Fire. Havyas (liquids made of ghee and some other herbs) were poured in to the fire (called Homa) while chanting hymns related to each devata. Agni (fire) was considered as mouth to all other devatas meaning it was believed that Agni will carry all the offerings (havyas) to other devatas. The person chanting mantras was called Hota and person conducting the whole process was known as Yajman (owner of Yagna). This is how the famous south Indian word “Yajman” came about (people call the owner of a shop or boss as Yajman).

After Vedic period came the Upanishadic period. The philosophical thought (monism) that began with Vedas was carried further and various philosophies (some of which are known as monistic idealism or idealistic monism) emerged in Upanishads which are often at odds with each other. One of the predominant philosophies of Upanishads can be called as Adwaita (non-dualism) which is explained by 4 maha vakyas (great statements of Upanishads). Here God is termed as Brahman (different from Brahma of Puranas) and defined as the consciousness present in all living beings.

Prajnanam Brahman (Aitareya upanishad) – Consciousness or spirit which is there in all living beings is Brahman (God)
Ayamatma Brahman (Mandukya upanishad) – This atma (which is in me) is Brahman (God)
Tatvam asi (Chandogya upanishad) – That is you (your identity is same as that)
Aham Brahmaasmi (Brihadarnyaka upanishad) – I am Brahman (God)
There are more than 108 Upanishads, of which 12 are considered very important. There are contradictory concepts in them and to explain different concepts in them Hindu scholars have written shad-darshans (6 views) on Upanishads. Also pancha bhashyams (5 commentaries) are very important in Hinduism.

Brahma sutras are most important of shad-darshans in which Brahman (God), Jeeva (individual soul) and Jagat (world) are discussed.

In the 5 bhashyams, first one is of Adishankara’s (Kerala) Adwaita bhashyam.

Adwaita is defined by Adishankara as – “Brahma satyam, jaganmidhya, jeevo brahmaiva naa paraha..” Brahman is the only Truth (existence), this world is an illusion, Brahman and Jeeva are not separate (means Aham Brahmaasmi, I am Brahman). Jnana (knowledge) is the only way to salvation which is to realise that one’s self is same as Brahman. Once that is achieved no more lives (janmas) and salvation is achieved.

Brahman is defined by Adishankara as nirguna, niraakara, suddha chaitanya (attribute less, formless, pure consciousness).

It is said that Adishankara has wiped Buddhism off from India with his philosophy of Adwaita and preaching of the same across India.

Adwaita led to asceticism and monastic way of life. There was a parallel movement by People who were more inclined towards devotion (bhakti). This is where Puranas come in to picture.

Worship of Vishnu started in Tamilnadu by Alwars (during 7-9th centuries) and later propagated by Acharyas. If you remember Vishnu was one of the not so important Vedic devatas (important ones being Indra, agni, varuna). Through Puranas – mythological stories, Indra’s popularity was weakened (for example, Indra loses war with asuras and goes to Vishnu for help who saves him, several such stories were written to undermine Indra) and lot of mythology was written around Vishnu and Shiva to raise their popularity. Both competed in proving that only their deity is the greatest. This is why you can see such verses in each purana that condemn the worshipers of other deity. Also idol worship started in India due to the influence of Buddhism and Jainism., so people started giving idol forms to all their puranic figures and started worshiping them.

Ramanuja (Tamilnadu), the proponent of 2nd bhashyam belongs to the lineage of acharyas. He opposed the concept of Brahman in adwaita and proposed Vishistadwaitam.

Ramanuja argued Brahman can not be attribute less, form less, pure consciousness. He opposed every element of it and said Brahman is saguna (full of attributes), saakara (having form) and equated him with Vishnu. He further said Jnana alone is not enough, only devotion (bhakti) is the way to salvation.

Here if you notice carefully – Adwaita is a philosophy – defining God as the spirit or consciousness in all living beings. What Ramanuja did is he modified this philosophy and combined it with mythology (by equating Brahman with Vishnu). Similarly in Shaivism Brahman is equated to Shiva (rudra in vedas). So philosophy and mythology were inter-mixed.

In adwaita, there is no difference between Jeeva (individual soul) and Brahman. Where as in Vishistadwaita, ramanuja said Brahman is like sun and jeevas are like rays. Rays are different from sun but are still coming from sun. Here Brahman has two special qualities of jeeva and jagat so its called vishistadwaita.

Next came the 3rd bhashyam from Madhvacharya (Udipi, Karnataka) – who proposed Dwaita philosophy. He opposed both adwaita and vishistadwaita and said Brahman, Jeeva and Jagat are all three separate. He equated Brahman with Krishna (again mythological figure).

Other 2 bhashyams are from Andhrapradesh – Dwaitadwaita (nimbarka) Sudhadwaita (vallabha). Nimbarka said along with Krishna (Brahman), radha is also worthy of worship. Vallabha said there is a place (golok) where Krishna and radha live. Salvation is to reach there and live there eternally in their presence.

Ok, there are the 5 bhashyams.

Bhagavat Geeta – part of mahabharata can also be considered as an Upanishad (its also known as geetopanishad). It has influence of different philosophical thoughts of Upanishads.

This covers the most important concepts in Hinduism.

A quick recap:

Vedas – 33 devatas, no idol worship, little bit of philosophy (monism)

Upanishads – Philosophical (monistic idealism, idealistic monism), aham brahmaasmi concept

Puranas – mythology full of idol worship.

Shad-darshans and pancha-bhashyams – Commentaries on Upanishads.

So different Hindus follow different concepts from above. Some follow Vedas strictly and shun idol worship. Some are philosophical Adwaitists, some are involved in Krishna devotion, some worship various other puranic figures and their idols.. there are mix and matches also.

So please dont fight if idol worship is there are not etc., Everything is there in Hinduism. Atheism, monism, polytheism are all there.

The real question should be how can we understand the Truth about GOD out of all this confusion.

Main sourse.. https://followrevelation.wordpress.com/2016/10/04/hinduism-how-idol-worship-started/

চতুর্মুখী দলের ফেতনা

চতুর্মুখী দলের ফেতনা!!! ১) একদল কুরআনে মানবে কিন্তু হাদীস মানবে না। তাদের যুক্তি হাদীসে যেহেতু সন্দেহ রয়েছে তাই হাদীস মানা যাবে না। আর তারা কুরআন মানবে নিজেদের মনমত ব্যাখ্যা করে, আর দাবী করে তারা আহলূল কুরআন।
২) আরেক দল হাদীস মানবে সেই হাদীসগুলো যেগুলো রাসূলের নাম দিয়ে মানুষ তৈরী করছে। তাদের যুক্তি হলো হাদীস আবার মিথ্যা/জাল হয় নাকি। আরে ভাই, রাসুলের নামে যে হাদীস বানানো হবে সেই কথাতো রাসুলের হাদীসেই আছে। এরা এই দেশে সংখ্যাগরিষ্ট।
৩) আরেক দল হাদীস মানবে কিন্তু হাদীসগুলোকে নিজেদের মনমতো একটা ব্যাখ্যা বা রূপ দিবে তারপর হাদীস মানবে। এরা নিজেদেরকে আহমদী বলে দাবী করে আর তারা কাদিয়ানী নামে পরিচিত।
৪) আরেক দল হাদীস মানবে কিন্তু হাদীসের ভুল অনুবাদ দ্বারা এমন ভাবে তাফসীর করবে যেন হাদীসের ব্যাখ্যাগুলো তাদের দলের মতের অনুকুলে যায়। এরা সহীহ হাদীস মানার দাবী করে জাল অনুবাদ ও জাল তাফসীর মানে। এরা আবার নিজেদেরকে আহলে হাদীস দাবী করে।
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন-
كُلُّ أُمَّتِي يَدْخُلُونَ الجَنَّةَ إِلَّا مَنْ أَبَى قَالُوا: يَا رَسُولَ اللَّهِ، وَمَنْ يَأْبَى؟ قَالَ
যে আবা (অর্থাৎ যে জান্নাতে যেতে অস্বীকার করবে) সে ছাড়া আমার প্রত্যেক উম্মাত জান্নাতে প্রবেশ করবে। জিজ্ঞেস করা হল, হে আল্লাহর রাসূল! কে সে-ই আবা (অর্থাৎ এমন কে আছে যে জান্নাতে যেতে অস্বীকার করবে)? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন-
مَنْ أَطَاعَنِي دَخَلَ الجَنَّةَ وَمَنْ عَصَانِي فَقَدْ أَبَى
যে আমার অনুসরণ করবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে আর যে আমার অবাধ্য হবে সে-ই আবা (অর্থাৎ সে-ই জান্নাতে যেতে অস্বীকার করল)। (সহীহুল বুখারী: ৭২৮০)

হকপন্থীদেরকে এখন থেকে এই চতুর্মুখী দলের ফেতনা মোকাবেলা করে হকের উপর টিকে থাকতে হবে। আর সামান্য ভুল হলেই হক থেকে ছিটকে ফেতনাবাজ যে কোন দলে শামিল হতে হবে। তাই সবাই ওয়াহীর জ্ঞান অর্জন করুন এবং হকপন্থী দল চিনে তাদের শামিল হন এবং হকের উপর টিকে থাকুন। নতুবা পরকালে, হায়! আফসোস! করতে হবে।