Category Archives: GENERAL

“হিজৰা [Hermaphrodite]”in islam-sgis-

 zz

“হিজৰা [Hermaphrodite]”
(in mixlanguage)
——————————-
Dr. Muhammad Abu Laylah, professor of the Islamic Studies & Comparative Religions at Al-Azhar Univ.কয়:-
“This is no more than perversion[abnormal] and a direct challenge to the natural inclination inculcated by Allah in the human selves.”

তেখেতে আৰু কয়, “Having sex with such persons is no more than sodomy which is totally prohibited in all religions. “

–যাক হিজৰা বুলি কোৱা হয় তেওঁ পুৰুষ অথবা মহিলা গুণসম্পন্ন তাক ঠিৰাং কৰাটো চিকিৎসকৰ কাম।ইছলামেও তাকেই বিছাৰে।এই ক্ষেত্রত হিজৰাৰ ওপৰত অধ্যয়ন কৰা শ্বেখ জাদুল হকে কয়(late Sheikh Jadul-Haq `Ali Jadul-Haq, former Grand Sheikh of Al-Azhar:-

“Islam urges Muslims to seek medication. When a trustworthy Muslim doctor decides that a certain operation is important for a patient.

ইসলামত নপুংসকৰ [ হিজৰা] স্থান:-
——————————————
–সূনান আবু দাউদ (ইফাঃ)৪৮৪৫. হারুন ইবন আবদুল্লাহ (রহঃ) ……. আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ একদা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছে একজন নপুসংক আসে, যার দু’হাত ও পা মেহেদী রংয়ে রঞ্জিত ছিল। তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জিজ্ঞাসা করেনঃ এ ব্যক্তির অবস্থা কী ? জবাবে সাহাবীগণ বলেন; ইয়া রাসূলুল্লাহ! এ ব্যক্তি স্ত্রীলোকদের সাজে সেজেছে। তখন তাকে শহর থেকে বের করে দেয়ার হুকুম হলে, তাকে নাকী নামক স্থানের দিকে বের করে দেয়া হয়। এ সময় সাহাবীগণ জিজ্ঞাসা করেনঃ ইয়া রাসূলাল্লাহ ! আমরা কি তাকে হত্যা করবো না ? তিনি বলেনঃ আমাকে নামাযীদের হত্যা করতে নিষেধ করা হয়েছে। রাবী আবূ উছমান (রহঃ) বলেনঃ নাকী স্থানটি মদীনার উপকণ্ঠে অবস্থিত। এটা বাকী নামক স্থান নয়।হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)।

–সূনান আবু দাউদ ৪৮৪৬. আবূ বকর ইবন আবূ শায়বা (রহঃ) …….. উম্মু সালামা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ একদা নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার কাছে এমন সময় প্রবেশ করেন, যখন আমর কাছে একজন নপুংসক (হিজড়া) উপস্থিত ছিল। আর সে তার ভাইকে বলছিল। আগামীকাল মহান আল্লাহ্ যদি তায়েফের উপর (মুসলমানদের) বিজয় দান করেন, তবে আমি তোমাকে এমন এক স্ত্রীলোকের খবর দেব, যার আসার সময় তার পেটে চারটি ভাঁজ দেখা যায়; আর যখন সে চলে যায় তখন তার পেটে আটটি ভাঁজ দেখা যায়। একথা শুনে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে ঘর থেকে বের করে দেয়ার নির্দেশ দেন।হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih)।
-prep.sgis-

ইজমা না কি এ্যাজমাঃ

linklinklink

ইজমা না কি এ্যাজমাঃ
@@@@@@@@@@

বুখারি মুসলিমের হাদিস থাকতেও তা না মেনে ইজমার উপর নির্ভর করে কিছু লোক, আবার ওদের কাছে হাদিস ই নাই তবুও আমল করে, কেন? বলে ইজমা!!
আসলে ইজমার নাম করে ওরা ইসলাম কে এ্যাজমা বানিয়ে ফেলেছে ফলে বুখারি মুসলিমের থেরাপি তেও তাদের রোগ সারেনা।
:
বোখারী/মুসলিমের সমস্ত হাদিস সনদের আলোকে সহী,,,,,,
কেবল মাত্র সালাতের অধ্যায়ের হাদিস গুলো ব্যতিত,,,,,,
কারন,,,,,হানাফীদের সালাতের সাথে মিল খুঁজে পাওয়া যায় না,,,,,
তাই বোখারী/মুসলিমের সালাতের অধ্যায় গুলো প্রত্যাখাতঃ
তার পরিবর্তে ইজমা ই যতেষ্ট!!!
তাই নয় কি??
এটাই কি সত্য নয়???
মাজহাব নামক নব ধর্মের চৌরঙ্গা নিয়ম-কানুনে ইবাদতকারি মাজহাবে হানাফী রঙ্গার ভাইয়েরা।
সুরা হাজ্বঃ ২২/৬৭.

” আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য ইবাদতের একটি নিয়ম-পদ্ধতি,,,,,নির্ধারন করে দিয়েছি যা তারা পালন করে “।
অথচ চারটি মাঝহাব চারটি নিয়ম-পদ্ধতি মানতে বাধ্য করে।
সুরা জাসিয়াঃ ৪৫/১৮.

“(হে নবী)
আপনাকে প্রতিষ্টিত রেখেছি ধর্মের এক বিশেষ শরিয়তের উপর।”
অথচ মাজহাব মানেই বিশেষ চার বিধানের শরিয়ত।
কোরআনে উল্লেখিত “একটি নিয়ম পদ্ধতি ও একটি শরিয়ত ” চারটি হলো কিভাবে???
উম্মতের মধ্যে ইজমা হয়েছে!!!!! আল্লাহর নির্ধারিত বিধানের বিপক্ষে তাদের ইজমা হয়েছে!!!!
এর পরেও কি বলবেন এসব ইজমা?
দয়া করে বলবেন কি,,,,,?
আসলে এগুলু মারাত্মক ” এ্যাজমা “!!!

Geeta is part of epic Mahabharata which is a story written

Geeta is part of epic Mahabharata which is a story written. As per historians, when written initially Mahabharata had only around 10 thousand verses but later it grew as every generation kept on adding episodes and new stories into it and now it has over 1 lakh verses. So Geeta which is part of Mahabharata also got changed tremendously as many different philosophies were introduced into it during the course of time. We can find many philosophies of upanishads in it like samkhya, adwaita, dwaita and people even introduced caste system into it by making it appear as if Krishna is teaching it. Gandhiji was also influenced by this and that is why blindly supported caste system.

So we can not consider Geeta as Revelation. Its a philosophical and mythical book.

Yes, Krishna was not there in Vedas, upanishads. He came to light through Mythology (Puranas). So he is a mythological figure. God taking human form (Avatar) is even against the concepts of earlier Hindu scriptures ie Vedas and Upanishads.

Read this article to understand how and why different philosophies and mythology were mixed as part of bhakti (devotion) movement. That gives you good understanding of how concept of God changed in Hinduism over time.

By..R.Tasmin

Sourse.. https://m.facebook.com/groups/1383781718590059?view=permalink&id=1414887642146133

Philosophies & Revelation

About

We have two sources for acquiring spiritual knowledge.

  1. Philosophies
  2. Revelation

Philosophies are works of human beings who tried to understand the realities around them, who tried to find answers to questions like who are we? who is God? what is the purpose of life? etc

The problem with philosophies is that every philosopher gave a different explanation for these questions. For example – philosophies of Buddha, Mahavira, Shankaracharya, Ramanuja, Madhvacharya are not only different from each other they contradict with the other on many important points.

Buddha rejected soul (Atma), mahavira accepted it (each human has a soul), Shankaracharya’s adwaita says soul in all living beings is ONE and that is Brahman (God) and so every individual is actually God, Ramanuja rejected this and said Brahman is like sun and individual souls are like rays (sun self illuminating, rays depended on sun), Madhvacharya said individual soul and Brahman are different.

Buddha, mahavira rejected the notion of God where as others accepted Brahman but defined it in entirely different ways. For shankaracharya its nirguna, nirakara, sudha chaitanyam (attributeless, formless, pure consciousness) where as for Ramanuja its saguna, saakara (with attributes, with form) and he equated Brahman with Vishnu and Madhvacharya said Brhamn is Krishna.

Similarly you will find contradictions in path to salvation, the very definition of salvation and what happens after salvation etc.,

PHILOSOPHERS ARE HUMANS AND THEIR KNOWLEDGE IS LIMITED AND THESE VARIOUS PHILOSOPHIES ARE PROOF OF IT.

There is an alternate source of spiritual information for those who are interested. Its called REVELATION. Here God is sending down a message to His chosen men, giving us the knowledge of reality of life and beyond. Quran is a perfectly preserved revelation available to us.

No matter how great a philosopher is, he cant tell us what happens after death, all they did was some predictions. God, almighty, all-knowing knows future also., he is communicating to us through Revelation about all the facts of life.

Please read Quran to understand the message of Revelation.

Leave a Reply

Your email address will not be published.Required fields are marked *

Comment

Name *

Website

Notify me of new comments via email.

:)

Hinduism – how idol worship started?

Hinduism – how idol worship started?
October 4, 2016Uncategorized
Hinduism is not a simple religion., it has various philosophies, belief systems, mythology etc., It has evolved greatly during the course of time (from Vedic to Puranic periods).

It’s difficult to grasp all about Hinduism in a small post but I am trying it here to make you understand the turf war between Vishnu and Shiva as I see lot of argument is happening on this. Pls read with patience, it will be give everyone a good historical background of facts. If you have any objection to any of the facts presented here, I am ready to correct my views if presented with sufficient authentic evidence.

Vedas, the oldest Hindu scriptures contain hymns (mantras) to worship devatas who number around 33. Indra, Agni, Varuna, surya, vaayu so on.. including Vishnu and Rudra (later became Shiva). Indra was God of lightning, Agni is fire, Varuna – God of rain etc., Anyone who has a little knowledge of Vedas know that Indra, Agni, Varuna are the prominent or most important devatas in Vedas; Vishnu and rudra are mentioned very few times (vs hundreds of hymns for Indra,agni, varuna).

Apart from devata worship, some philosophy is also there in Vedas which seems to be closer to monism (idea that all existence is one). You might have come across the famous Vedic statement- “ekam sat, vipra bahdua vadanti” (Truth is one, scholars call it with various names). Actually here “sat” means “all that is”. Various other hymns introduce purusha, hiranya garbha describing them as the entities who themselves became this entire creation. This is called Monism. Please read about Monism if you want to understand this concept further.

There was no Idol worship during Vedic period. How these devatas were worshipped then? Through Fire. Havyas (liquids made of ghee and some other herbs) were poured in to the fire (called Homa) while chanting hymns related to each devata. Agni (fire) was considered as mouth to all other devatas meaning it was believed that Agni will carry all the offerings (havyas) to other devatas. The person chanting mantras was called Hota and person conducting the whole process was known as Yajman (owner of Yagna). This is how the famous south Indian word “Yajman” came about (people call the owner of a shop or boss as Yajman).

After Vedic period came the Upanishadic period. The philosophical thought (monism) that began with Vedas was carried further and various philosophies (some of which are known as monistic idealism or idealistic monism) emerged in Upanishads which are often at odds with each other. One of the predominant philosophies of Upanishads can be called as Adwaita (non-dualism) which is explained by 4 maha vakyas (great statements of Upanishads). Here God is termed as Brahman (different from Brahma of Puranas) and defined as the consciousness present in all living beings.

Prajnanam Brahman (Aitareya upanishad) – Consciousness or spirit which is there in all living beings is Brahman (God)
Ayamatma Brahman (Mandukya upanishad) – This atma (which is in me) is Brahman (God)
Tatvam asi (Chandogya upanishad) – That is you (your identity is same as that)
Aham Brahmaasmi (Brihadarnyaka upanishad) – I am Brahman (God)
There are more than 108 Upanishads, of which 12 are considered very important. There are contradictory concepts in them and to explain different concepts in them Hindu scholars have written shad-darshans (6 views) on Upanishads. Also pancha bhashyams (5 commentaries) are very important in Hinduism.

Brahma sutras are most important of shad-darshans in which Brahman (God), Jeeva (individual soul) and Jagat (world) are discussed.

In the 5 bhashyams, first one is of Adishankara’s (Kerala) Adwaita bhashyam.

Adwaita is defined by Adishankara as – “Brahma satyam, jaganmidhya, jeevo brahmaiva naa paraha..” Brahman is the only Truth (existence), this world is an illusion, Brahman and Jeeva are not separate (means Aham Brahmaasmi, I am Brahman). Jnana (knowledge) is the only way to salvation which is to realise that one’s self is same as Brahman. Once that is achieved no more lives (janmas) and salvation is achieved.

Brahman is defined by Adishankara as nirguna, niraakara, suddha chaitanya (attribute less, formless, pure consciousness).

It is said that Adishankara has wiped Buddhism off from India with his philosophy of Adwaita and preaching of the same across India.

Adwaita led to asceticism and monastic way of life. There was a parallel movement by People who were more inclined towards devotion (bhakti). This is where Puranas come in to picture.

Worship of Vishnu started in Tamilnadu by Alwars (during 7-9th centuries) and later propagated by Acharyas. If you remember Vishnu was one of the not so important Vedic devatas (important ones being Indra, agni, varuna). Through Puranas – mythological stories, Indra’s popularity was weakened (for example, Indra loses war with asuras and goes to Vishnu for help who saves him, several such stories were written to undermine Indra) and lot of mythology was written around Vishnu and Shiva to raise their popularity. Both competed in proving that only their deity is the greatest. This is why you can see such verses in each purana that condemn the worshipers of other deity. Also idol worship started in India due to the influence of Buddhism and Jainism., so people started giving idol forms to all their puranic figures and started worshiping them.

Ramanuja (Tamilnadu), the proponent of 2nd bhashyam belongs to the lineage of acharyas. He opposed the concept of Brahman in adwaita and proposed Vishistadwaitam.

Ramanuja argued Brahman can not be attribute less, form less, pure consciousness. He opposed every element of it and said Brahman is saguna (full of attributes), saakara (having form) and equated him with Vishnu. He further said Jnana alone is not enough, only devotion (bhakti) is the way to salvation.

Here if you notice carefully – Adwaita is a philosophy – defining God as the spirit or consciousness in all living beings. What Ramanuja did is he modified this philosophy and combined it with mythology (by equating Brahman with Vishnu). Similarly in Shaivism Brahman is equated to Shiva (rudra in vedas). So philosophy and mythology were inter-mixed.

In adwaita, there is no difference between Jeeva (individual soul) and Brahman. Where as in Vishistadwaita, ramanuja said Brahman is like sun and jeevas are like rays. Rays are different from sun but are still coming from sun. Here Brahman has two special qualities of jeeva and jagat so its called vishistadwaita.

Next came the 3rd bhashyam from Madhvacharya (Udipi, Karnataka) – who proposed Dwaita philosophy. He opposed both adwaita and vishistadwaita and said Brahman, Jeeva and Jagat are all three separate. He equated Brahman with Krishna (again mythological figure).

Other 2 bhashyams are from Andhrapradesh – Dwaitadwaita (nimbarka) Sudhadwaita (vallabha). Nimbarka said along with Krishna (Brahman), radha is also worthy of worship. Vallabha said there is a place (golok) where Krishna and radha live. Salvation is to reach there and live there eternally in their presence.

Ok, there are the 5 bhashyams.

Bhagavat Geeta – part of mahabharata can also be considered as an Upanishad (its also known as geetopanishad). It has influence of different philosophical thoughts of Upanishads.

This covers the most important concepts in Hinduism.

A quick recap:

Vedas – 33 devatas, no idol worship, little bit of philosophy (monism)

Upanishads – Philosophical (monistic idealism, idealistic monism), aham brahmaasmi concept

Puranas – mythology full of idol worship.

Shad-darshans and pancha-bhashyams – Commentaries on Upanishads.

So different Hindus follow different concepts from above. Some follow Vedas strictly and shun idol worship. Some are philosophical Adwaitists, some are involved in Krishna devotion, some worship various other puranic figures and their idols.. there are mix and matches also.

So please dont fight if idol worship is there are not etc., Everything is there in Hinduism. Atheism, monism, polytheism are all there.

The real question should be how can we understand the Truth about GOD out of all this confusion.

Main sourse.. https://followrevelation.wordpress.com/2016/10/04/hinduism-how-idol-worship-started/

কাৰবালাৰ কাহিনী অতিৰঞ্জিত কৰা হৈছে

কাৰবালাৰ কাহিনী অতিৰঞ্জিত কৰা হৈছে

————

https://d1.islamhouse.com/data/bn/ih_books/single2/bn_karbalay_ki_ghotechilo_ar_Ke_hossain_ke_hotta_korechilo.pdf

—————

—————

https://d1.islamhouse.com/data/bn/ih_books/single2/bn_karbalay_ki_ghotechilo_ar_Ke_hossain_ke_hotta_korechilo.pdf

——————

03883‬: A.ALI

90% misa, 10% bikrito. Shia aqeedah into deobondi through qabar pujari bareli…. This is karbala… Based on fictious novel book bishad sindhu.

আল্লাহর প্রথম আদেশ,পড়! এবং তা পড়তে বলেছেন রবের (তার) নামে: যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই সেই বিষয়ে অনুমান দ্বারা পরিচালিত হয়োনা

11825802_691510187646555_1968921689663605881_n

Sharifkhanbd.blogspot.com – কোরআন ও হাদিস

########আল্লাহর প্রথম আদেশ,পড়! এবং তা পড়তে বলেছেন রবের (তার) নামে।

######(দাওয়াত, সালাত,সিয়াম,হজ্জ,যাকাত,জিহাদ ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রে) সমাজে দ্বীনি বিধান নিয়ে নানা বিভ্রান্তী রয়েছে। সেই সঙ্গে রয়েছে আলেমদের যৌক্তিক ও কথিত আলেমদের অযৌক্তিক মতভেদ। সে কারণে আমরা অনেকে (ইখতিলাফ) মতভেদ ও (তানবী) প্রকারভেদ কে গুলিয়ে ফেলছি। কারণ কিছু মতভেদ সম্পুর্ণ (জাল,যঈফ হাদীস) মিথ্যার উপর প্রতিষ্ঠিত রয়েছে এবং আমরা তার উপর আমল করে চলেছি সম্পুর্ণ অন্ধ বিশ্বাসে। কিন্তু আশ্চর্য হতে হয় তখন,যখন আমাদের শরীয়প্রণেতা রাসূলে করিম (ছাঃ) যে দেশে জন্মগ্রহণ করেছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন যে দেশে ইসলাম পরিপূর্নতা লাভ করেছে। সে দেশের ইবাদতের পদ্ধতির সঙ্গে আমাদের দেশের ইবাদতের পদ্ধতির কোন মিল খুজে পওয়া না যায়! সৌদি আলেমদের যে গ্রন্থগুলো পায় যেমন-ইবনে বায(রহঃ),ইবনে উসাইমিন (রহঃ),মুহাম্মদ বিন আত তুয়াইজুরি(রহঃ)ইত্যাদি সহ বিগত শ্রেষ্ট মুহাদ্দিস এবং বর্তমান শ্রেষ্ট মুহাদ্দিস গণের লিখিত গ্রন্থসহ কোরআন ও সহীহ হাদীসে পেশকৃত বিধানের সঙ্গে অনেকাংশেই মিল নেই আমাদের ইবাদতের বিধানের ।আমাদের সমাজে যারা নিজেকে আলেম বলে প্রতিষ্টিত তাদের ফতওয়া ও কথা শুনলে মনে হবে ঐসকল অোলেমরা কিছুই বোঝেনা!এর কারণ ও আছে রাসূল(ছাঃ এর এক বর্ণনায় এসেছে পূর্বের দিকে ইরাক থেকে ফেৎনা,শুরু হবে।(আহমাদ হা/৬৩০২ সহীহ সনদে)
সেই ইরাক থেকে আমাদের ইসলাম এর আগমণ। তাই আমাদের পড়তে হবে,জানতে হবে। ভ্রান্ত আবেগ দিয়ে সঠিক ইসলাম জানা যাবে না। ভ্রান্ত আবেগের কোন মুল্য নেই, অতএব জেনে বুঝে সঠিক দলীল অনুযায়ী নিজের দ্বীনি আমলটা ঠিক করে নেওয়াই মুমিনের কাজ। প্রকৃত সত্য এই যে, আমাদের আছে ধর্মের উপর পরিপূর্ণ বিশ্বাস,কিন্তু মানার ক্ষেত্রে আমরা উদাসীন। আর সঠিক ভাবে ধর্ম মানার প্রধান শর্ত হল পড়া এবং জানা। সেজন্য ইমাম তাইমিয়া (রহঃ) বলেন, বড়ই দুঃখের বিষয়! এই ভ্রান্ত আবেগের কারণে ১৪শ বছর পার হয়ে গেলেও মাযহাবী গোড়ামী পন্থীদের এমনই দশা যে, এখনও ঐ পন্থী আলেমগণ সহীহ হাদীস জানা এবং আমল করা থেকে সম্পূর্ণ বিপরীতে অবস্থান করছে।

########আল্লাহর প্রথম আদেশ,পড়! এবং তা পড়তে বলেছেন রবের (তার) নামে। যিনি আমাদের সৃষ্টি করেছেন।(সূরা আলাক্ব-১)এর অর্থ জ্ঞান অর্জন করতে বলেছেন। আর এ বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করা প্রতেকের জন্য ফরয। (ইবনে মাজহা হা/২২৩) ।
ধর্মীয় জ্ঞান অর্জন করা আল্লাহর পথে জিহাদ সমতুল্য (ইবনে মাজহা হা/২২৬)
অথচ্ কাউকে পড়তে বললে বলবে বড় বড় আলেমরা কি কিছুবোঝেনা
? তারা যেটা বুঝেছে ওটাই আমাদের জন্য যথেষ্ট। কিন্তু ঐসব আলেমরা আলেম কিনা ! তারা যে ফতওয়া বা দলীল দিচ্ছে তা যাচাই বাছাই করার প্রয়োজন আছে কি না তা ভেবে দেখছিনা! কাউকে যাচাই বাছাই করতে বললে বলবে প্রয়োজন নেই অতঃপর বিভিন্ন ভিত্তিহীন যুক্তি পেশ ও ভ্রান্ত আবেগের বশবর্তি হয়ে বলবে আমাদের মাযহাবী মুফতিরা যা বলবে (যে ফতওয়া দেবে) আমরা তা মেনে নেব,না থাকলে তারা কি বলছে! লক্ষণীয়, সমাজে অনেক কথিত আলেমকে পরামর্শ দিতে দেখা যায় এই বলে যে, যারা দ্বিনী বিধান সম্বন্ধে জ্ঞান রাখেনা তাদের মাযহাব বা কোন আলেমের অবশ্যই তাক্বলীদ (অনুসরন) করতে হবে।সাহাবারও এক সাহাবা অন্য সাহাবার তাক্বলীদ করেছে।যেমন বলা হয়েছে‘মোট কথা,এ বিষয়ে উম্মার ইজমা সম্পন্ন হয়েছে যে,সাধারণ মানুষ নিঃশর্তভাবে মুজতহিদের অনুসরণ করতে পারেবে।
(আমিদী,আল-ইহকাম,দারুল ফিকর,৩/২৫০,নবীযীর নামায পৃঃ৮২))
কিন্তু (নিঃশর্তভাবে)একথার দলীল অনুসন্ধান করতে যেয়ে দেখেছি এ একটা মহা সর্বনাশের কথা এবং জাহান্নামে যাবার জন্য একটা সরল পথের সন্ধান! কারণএ ধরনের তাক্বলীদ করা হারাম। আল্লাহ বলেনঃ
ابن والمسيح الله ون د اربابامن نهم ورهبا رهم ااحبا و اتخذ

‘তারা(ইয়াহুদী ও নাসারাগণ)আল্লাহকে ত্যাগ করে তাদের আলেমও দরবেশ গণকে রব রুপে গ্রহন করেছে’ (সুরা তাওবা-৩১)।

‘আল্লাহ না জানা লোকদের বলেন, যদি তোমরা না জান তাহলে বিজ্ঞগণকে জিজ্ঞাসা করে নাও—’ (সূরা আম্বিয়া-৭)।

আরও বলেছেন,
(بر والز لبينت با لاتعلمون كنتم ان كر الذ فسءلوااهل)
‘তোমরা না জানলে জ্ঞানীদেরকে প্রশ্ন করে স্পষ্ট দলীল সহকারে জেনে নাও।’—- (সুরা নাহল-৪৩,৪৪)।
—اان بنبافتبين فاسق جاءكم اان امنو ين الذ يايها

‘তোমাদের নিকট যদি কোন বার্তা আসে, তাহলে সেটা যাচাই বাছাই ও পরীক্ষা নিরীক্ষা করে নাও।’— (সুরা হুযরাত আয়াত-৬)।

রাসূল(ছাঃ)বলেছেন,‘যখন তাদের জানা ছিলনা তখন কেন জিজ্ঞাসা করলো না?অজ্ঞতার সমাধান হল জিজ্ঞাসা করা।’
(সুনানে আবু দাউদ:১/৪৯)

#### ব্যাপারে রাসূল(ছাঃ)-বলেছেন তুমি তোমার হৃদয়ের কাছে ফতওয়া নাও, যদিও মুফতিরা তোমাকে ফতওয়া দিয়েছে।
(আহমাদ,দারেমী,সহিহুল জামে-হা/৯৪৮)।

ইমাম আবূ হানীফা(রহঃ)বলেন,আমি কোরান ও হাদীসের ফৎওয়া কোন দলীল অবলম্বন করে দিয়েছি। ইহা যে ব্যক্তি অবগত নহে তাহার পক্ষে আমার ফৎওয়া অনুসরণ করা হালাল নয়।
(বাহরুর রায়েক, মিলহাতুল খালেক, উমদাতুর রি আয়া)।

“হারাম তাক্বলিদ এইযে মুজতাহিদকে সকল ভুল-ত্রুটির উর্ধে মনে করা।এমনকি তার কোন সিদ্ধান্ত হাদীস-পরিপন্থি হলেও তা পরিত্যাগ না করা।”(শাহওয়ালিউল্লাহ,ইক্বদুলজী,আলবাআতুস সালাফিয়া,কায়রো,পৃঃ৪২)
অতএব নিঃশর্তভাবে মুজতাহিদের অনুসরণ অথবা ফিক্বাহ গ্রন্থ থেকে কেউ যদি কোন দলীল পেশ করে তাকে অবশ্যই দলীলের উৎস এবং দলীল উল্লেখ করতে হবে।তবে তা গ্রহণযোগ্য হবে। তা না হলে নয়।
যখন মৃত ব্যক্তিকে কবরে রাখা হয়—- তখন সে বলে আমি বলতে পারি না। মানুষ যা বলতো আমিও তাই বলতাম, (প্রকৃত সত্য কি ছিল তা আমার জানা নেই) তখন তাকে বলা হয়, তুমি তোমার বিবেক দ্বারা বুঝতে চেষ্টা কর নি কেন? আল্লাহর কিতাব পড়ে বুঝার চেষ্টা কর নি কেন? —(বুখারী, মুসলিম, মিশকাত হা/১১৯)।
এসকল আয়াত ও হাদীসে বোঝা যায় মুফতিরা বা অন্য কেউ ফতওয়া দিলেও যে দলীল দ্বারা ফতওয়া দিচ্ছে তা কোরআন ও সহীহ হাদীসের সঙ্গে কতটুকু সম্পৃক্ত তা নিজ হৃদয় দ্বারা যাচাই বাছাই করতে হবে। তা না হলে মৃত্যর পরও ছাড় পাওয়া যাবেনা, অতএব তাক্বলীদ (অনুসরন) করার কোন সুযোগ নেই। সে জন্যেই আমাকে আপনাকে অবশ্যই পড়তে হবে। ঐ সম্বন্ধে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। ইলম অর্জনের পর তা আমল করা ওয়াজীব।(সুরা মুহাম্মদ-১৯)
নিজে না জেনে অপরকে জানানো বা আমল করা যেমন অর্থহীন,এর কোন নির্দেশ নেই;

#####ইমাম আবূ হানিফা(রহঃ)সহ প্রত্যেক মুজতাহিদ বলেছেন,সহীহ হাদীস তাদের মাযহাব।কিন্তু এই মাযহাব নিয়ে টানাটানি করতে যেয়ে এবং নিজ মাযহাবের পক্ষে ফতওয়া দিতে যেয়ে নির্বিচারে জাল যঈফ হাদীস প্রয়োগ এবং ফতওয়ার পক্ষে দলীল নিতে নিজেরাও জাল হাদীস তৈরি করেছে সাধারণ মাযহাব ভক্তরা ।যা কোর‘আন হাদীস থেকে সঠিকটা জানতে যে সময় তারা দিচ্ছেনা তার চেয়ে অনেক বেশি সময় দিচ্ছে কুর‘আন হাদীসের অপব্যাখা দিতে! কখনো হাদীসকে মানসুখ ঘোষণা করা হচ্ছে। এভাবে যেকোন মুল্যে নিজ মাযহাবের পক্ষে ফতওয়া টিকিয়ে রাখতেই তারা অনেক মুল্যবান সময় ন্ষ্ট করেছে বা করছে! আর এজন্যই আমাদের সমাজে মাযহাব নিয়ে এত টানাটানি আর বিভ্রান্তি।

#####মাযহাব মানার সিমাবদ্ধতা আমাদের একান্ত জানা প্রয়োজন। এখনও যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তির উপর ইজতিহাদ করার সুযোগ রয়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে, ফকীহদের মাযহাব দ্বীনের কোন অংশ নয়, ইবাদতও নয়। ইবাদতের সাহায্যের উদ্দেশ্যে তা অবলম্বন করা যাবে। যেমন, বিল্ডিং তৈরি করার জন্য ইঞ্জিনিয়ার প্রয়োজন কিন্তু ইঞ্জিনিয়ার বিল্ডিং এর কোন অংশ নয় এবং এর অর্থ (টাকা) বিল্ডিং এর কোন অংশ নয়। কিন্তু বিল্ডিং তৈরি করতে এদুটোই একান্ত প্রয়োজন। তেমনই ফকীহদের মাযহাব দ্বীন বা ইবাদত পালন করতে আমাদের প্রয়োজন দেখা দেয়।
এখন আমাদের প্রশ্ন আসতে পারে, একনিষ্টভাবে মাযহাব না মানলে আমাদের দ্বীনি আমল চলবে কিভাবে? এ কথার উত্তরে জেনে নিতে পারেন ইসলামের স্বর্ণযুগের ইতিহাস।

#####আল্লাহ বলেন,যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই সেই বিষয়ে অনুমান দ্বারা পরিচালিত হয়োনা।(সুরা ইউসুফ-১০৮)
যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই তার পিছে পড়ো না।(অর্থাৎ যা জনো না তা করোনা অনুমানের ভিত্তিতে )(সুরা বণী ঈসরাইল-৩৬)।
হাসান বসরী (রহঃ)বলেন,অজ্ঞ আমলকারী পথহারা পথিকের ন্যায়। সে কল্যানের চেয়ে অকল্যানই বেশি করে। অতএব তুমি এমনভাবে জ্ঞান অর্জন করো-যাতে আমল ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।–(ইবনে হাজার,ফাতহূল বারী-১/২২৮পৃঃ)
তোমরা বিশুদ্ধ চিত্তে আল্লাহর ইবাদত কর।(সুরা-যুমার-২)
ইমাম বূখারী একটি অধ্যায়ের শিরোনাম দিয়েছেন,বিদ্যার স্থান হচ্ছে কথা কাজের পূর্বে—।
স্বংয় রাসূল(ছাঃ)এর সাহাবীগণও কোন বিষয়ে জানা না থাকলে, সমস্যা দেখা দিলে একাধিক সাহাবীর কাছে জানতে চাইতেন।
(আহমাদ,দাউঃ,ইঃমাজাহ, মিশকাত হা/১১৫)।
এবং যাচাই বাছাইয়ের জন্য পরষ্পর পরষ্পরের নিকট দলীল চাইতেন
(তিরঃ,মিশঃ-হা/৩৫৩৪)।
আর এটা চাওয়ার কারণ হল আসলে যেটা তারা জানছে সেটা রাসূল(ছাঃ)থেকে সত্যায়িত কিনা!কারো মন গড়া কিনা তা নিশ্চিত হতে।কিন্তু্ আমাদের সমাজে যারা নিজেকে আলেম বলে প্রচার করেছে বা না জানা মানুষের মাঝে সামাজিক প্রতিষ্ঠা পেয়েছে কোন বিষয়ে তাদের কাছে সুস্পষ্ট দলীল চাইলে বলবে কোর‘আন হাদীস খুব জটিল ব্যাপার এ আপনার মাথায় ঢুকবে না। অথচ্ আল্লাহ নিজে বলছে কোরানকে আমি সহজ করেছি যাতে সকলে বুঝতে পারে।
(সূরা হাদিদ-৯;ইউসূফÑ২;ক্বামারÑ১৭)।
আপনার মাথায় ঢুকবে না এ কথা বলার কারণ কি জানেন ? সে নিজে জানে সে এত দিন যা বলেছে তা না জেনে বলেছে এবং সেটাকেই সে সঠিক মনে করেছে,এখন ইলম সন্ধানীরা সঠিকটি জেনে গেলে এবং পরবর্তীতে তার দেওয়া ফতওয়া ভুল প্রমানিত হলে ঐ ফতওয়া প্রদান কারীর নিজ আধিপত্য হারিয়ে যাবে এ আশংকায় উল্টা-পাল্টা বকতে থাকেন এবং সবজান্তা সেজে বসেন, রাগাম্বিত হন। আর এই রাগাম্বিত হওয়ার কারণ আসলে তার ভিতরে ইলম (জ্ঞান) নেই, একটি মেশিনের ভিতর যদি সঠিক পার্টস না থাকে সেটা চালু করলে শুধু শুধু গরম হয়ে যাবে এবং উল্টো পাল্টা একটা কিছু ঘটবে। ঠিক তেমনি আলেম নামের এদের অবস্থা! আপনি যখন জানার জন্য নাছোড় হবেন তখন বলবে,এরকমও হবে,ওরকমও হবে। দলীল চাইলে বলবে আছে, কিন্তু কোথাই! তখন বলবে আলেমদের সঙ্গে এরকম বেআদবী করতে নেই। অতঃপর সেই নামধারী আলেম সাহেব না জানা ভ্রান্ত মানুষদের ইসলামের প্রতি দুর্বলতাকে পুজি করে তাদের একত্রিত করে সমাজে বলে বেড়াবে, অমুক ব্যক্তি কিছু হাদীস পড়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে, হ্যাঁ, সে কি জানে?কতটুকু জানে? হ্যাঁ,নতুন নতুন সব হদীস বের করছে! উনার কি সব হাদীস জানা হয়ে গেছে! কয়েকটা বাংলা হাদীস ও বাংলা তাফসীর পড়ে বড় বড় কথা! কিন্তু লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে, এ কথা যে বলছে হাদীসের নীতি সম্বন্ধে তার নিজেরই কোন জ্ঞানই নেই। এবং সে নিজেই একটি আরবী অক্ষরের সঠিক উচ্চারণ ও অর্থ জানেনা ব্যাখা জানেনা তারপর ও সে যা আমল করছে বা আমল করার ফৎওয়া দিচ্ছে যার পক্ষে কোন দলীলই নেই (কুরআন, সহীহ ও হাসান হাদীস)। এদেরকে সুস্পষ্ট দলীল দেখালেও বলবে আমরা এসব মানিনা। উপর থেকে আগে অর্ডার আসুক। ভাব দেখে মনে হবে উনাদের কাছে নতুন করে আল্লাহর অহি আসবে! আপনি সঠিক কুর‘আন হাদীস জানার চেষ্টা করেন দেখবেন তারা এতদিন যা বলছে সেটাই নতুন সৃষ্ট। আপনি যেটা জেনেছেন সেটা আদি আসল এবং পুরাতন। সেজন্য এদের সম্বন্ধে আল্লাহ বলেন,তারা সুস্পষ্ট প্রমান পাওয়া সত্বেও গ্রহন করে না।( বাইয়্যেনাহ-৪)}
কোরানে যাই বলুক, মহা বিপদ আপনার! তখন সবাই আপনার বিপক্ষে। অথচ্ আপনি জানেন না বলেই যে ঐ নামধারী আলেমের কাছে জানতে চেয়েছেন এ কথা একবারও প্রকাশ করবে না ! সে যে নিজেই হাদীস বিকৃত করে মন গড়া কথা বলে নতুন দ্বীন আবিষ্কার করে বিদ‘আত,শিরকে সমাজ পরিপূর্ণ করে ফেলেছে; জনগণ সে বিষয়টি সম্পূর্ণ না শুনে না জেনে যাচাই বাছাই না করে অন্ধ ভাবে আপনার বিরোধীতা করতে থাকবে এবং তাকে সমর্থন ও শক্তি যোগাবে আর এরই সুযোগে ঐ কথিত আলেম সমাজের কিছু প্রভাবশালীকে একত্রিত করে আপনার সঙ্গে সমাজের লোকজনকে মিশতে নিষেধ পর্যন্ত করবে যেমন ভাবে আবু জেহেল,আবু লাহাব ও তার দল বল করেছিল নবী মুহম্মদ(ছাঃ)এর ক্ষেত্রে ! আর আজকাল তো প্রভাবশালীরাও আসল নয়, নকল প্রভাবশালী! (এ ক্ষেত্রে এদের সঙ্গে অনেক ইসলাম নাম ধারী ছোট বড় অনেক দলও আছে) এরা বুঝাতে থাকে দশ যেখানে আল্লাহ সেখানে। টিপ্পনী করে বলে তোমার দলে কয়টা লোক আছে ! এ যারা করে বা বলে তারা জানতে পারেনা যে তারা নিজেদের অজান্তে নিজেরাই মহাপাপে জড়িয়ে পড়েছে,কারণ তারা দু‘টি নিষিদ্ধ কাজে জড়িয়ে পড়ছেঃ
১.তারা হক জানতে এবং জানাতে বাঁধা সৃষ্টি করছে ,
২. যাচাই বাছাই না করে বিরোধিতা এবং মিথ্যা প্রচার করছে।
রাসূল(ছাঃ)বলেছেন মানুষের মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য এতটুকুই যথেষ্ট যে সে যা কিছু শুনবে তাই (সত্য-মিথ্যা যাচাই ছাড়া) আমার বাণী হিসাবে বর্ণনা করবে।(মুসলিম হা/৫)।
অতএব কোন কিছু দেখলে বা শুনলে তা যাচাই বাছাই না করে বর্ণনা করাই মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য যথেষ্ট। আবার তাদের এ কথাও জানা নেই

আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করুন, তিনি আপনাকে ভালোবাসবেন

আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করুন, তিনি আপনাকে ভালোবাসবেন। অনুবাদ : সিরাজুল ইসলাম আলী আকবর, সম্পাদনা: মুহাম্মদ শামছুল হক ছিদ্দিক।
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ- قَالَ: قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمّ : إنَّ اللهَ تَعَالَى قَالَ : مَنْ عَادَى لِيْ وَلِيًّا فَقَدْ آذَنْتُهُ بِالْحََرْبِ، وَمَا تَقَرَّبَ إلَيَّ عَبْدِي بِشَيْءٍ أَحَبَّ إِلَيَّ مِمَّا افْتَرَضْتُهُ عَلَيْهِ، وَلَا يَزَالُ عَبْدِي يَتَقَرَّبُ إلَيَّ بِالنَّوَافِلِ حَتّى أُحِبَّهُ، فَإذَا أحْبَبْتُهُ كُنْتُ سَمْعُهُ الّذِيْ يَسْمَعُ بِهِ، وَبَصَرُهُ الّذِي يُبْصِرُ بِهِ، وَيَدَهُ الَّتِيْ يُبْطِشُ بِهَا، وَرِجْلُهُ الَّتِيْ يَمْشِيْ بِهَا، وَلَئِنْ سَأَلَنِيْ لَأُعْطِيَنّهُ، وَلَئِنْ اسْتَعَاذَنِيْ لَأُعِيْذَنَّهُ
আবু হুরাইরা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন: আল্লাহ তাআলা বলেন: যে ব্যক্তি আমার কোনো বন্ধুর সঙ্গে কোনো প্রকার শত্রুতা পোষণ করে, আমি তার বিরুদ্ধে যুদ্ধের ঘোষণা দেই। আমার বান্দা যে এবাদত বন্দেগির মাধ্যমে আমার সান্নিধ্য লাভ করে সে সবের মাঝে তার প্রতি আরোপিত ফরজ কাজই আমার নিকট অধিকতর প্রিয় এবং আমার বান্দা নফল কার্যাবলীর মাধ্যমে অব্যাহত ভাবে আমার নৈকট্য অর্জন করতে থাকে, এক সময় সে আমার ভালোবাসা লাভে সক্ষম হয়। আর যখন আমি তাকে ভালোবাসি তখন আমি হয়ে যাই তার কর্ণ, যার মাধ্যমে সে শ্রবণ করে। এবং হয়ে যাই তার চক্ষু, যার মাধ্যমে সে দর্শন করে, এবং তার হস্ত, যার দ্বারা সে হস্তগত করে, এবং তার চরণ হয়ে যাই যা দিয়ে বিচরণ করে। সে যদি আমার কাছে কিছু চায় আমি তাকে অবশ্যই তা প্রদান করি। যদি আমার নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করে তবে আমি তাকে অবশ্যই আশ্রয় দান করি। (বোখারি- ৬৫০২)

হাদিস বর্ণনাকারী : হাদিসটি বর্ণনাকারী আবু হুরাইরা (রাঃ), তিনি ছিলেন হাদিস কণ্ঠস্থকারী সাহাবিদের অন্যতম শীর্ষস্থানীয়। তার ও তার পিতার নাম বিষয়ে বিজ্ঞ উলামা মহলে রয়েছে মতদ্বৈধতা। তবে প্রসিদ্ধ মতানুসারে তার এবং তার পিতার নাম হলো আব্দুর রহমান, ইবনে ছখর, আদ দাওসী। তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন খায়বার যুদ্ধের বছরে, সপ্তম হিজরির প্রারম্ভে।
ইমাম জাহাবী বলেন :
حمل عن النبي صلى الله عليه وسلم علما طيبا كثيرا مباركا فيه، لم يلحق فى كثرته.
রাসূলুল্লাহ (ﷺ) হতে তিনি প্রভূত, বরকতময় জ্ঞান বহন করেন। এ ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন অতুলনীয়। রাসূলুল্লাহ (ﷺ)-এর নিরবচ্ছিন্ন সংস্রবের বরকতে পবিত্র হাদিসের বর্ণনায় তিনি ছিলেন শ্রেষ্ঠ রাবী। যে কারণে তার বর্ণিত হাদিসের সংখ্যা পাঁচ হাজার তিন শত চুয়াত্তর (৫,৩৭৪)-এ পৌঁছেছে। ইমাম বোখারি রহ. আবু হুরাইরা (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেন যে, তিনি বলেছেন :
إنكم تقولون: إن أبا هريرة يكثر الحديث عن رسول الله صلى الله عليه وسلم، وتقولون: ما بال المهاجرين والأنصار لا يحدثون عن رسول الله- صلى الله عليه وسلم- بمثل حديث أبي هريرة ؟ وإن إخوتي من المهاجرين كان يشغلهم الصفق بالأسواق، وكنت ألزم رسول الله صلى الله عليه وسلم على ملء بطني، فأشهد إذا غابوا، وأحفظ إذا نسوا، وكان يشغل إخوتي من الأنصار عمل أموالهم، وكنت امرأ مسكينا من مساكين الصفة، أعي حين ينسون.
‘তোমরা পরস্পর বলাবলি কর যে, আবু হুরাইরা রাসূল (ﷺ) হতে অসংখ্য হাদিস বর্ণনা করেন এবং তোমাদের পারস্পরিক মন্তব্য হচ্ছে যে, মুহাজির ও আনসারগণ আবু হুরাইরার মত হাদিস বর্ণনায় অংশ নেন না কেন? আমার মুহাজির ভাইরা বাজারে ব্যবসায় নিয়োজিত থাকত। আর আমি উদরপূর্তির চিন্তা বাদ দিয়ে রাসূলের সঙ্গ যাপনেই বেশি গুরুত্ব প্রদান করতাম। যখন তারা চলে যেত, তখন আমি উপস্থিত থাকতাম, আর তারা বিস্মৃত হলে আমি ব্যাপৃত হতাম কণ্ঠস্থ করণে। আমার আনসার ভাইদের ব্যস্ত রাখত সহায় সম্পত্তির ব্যস্ততা। আমি ছিলাম সুফ্ফার অসহায় কপর্দকশূন্য একজন। তারা বিস্মৃত হলে আমি মনে রাখতাম।’

একদিন রাসূল (ﷺ) হাদিস বর্ণনা করতে গিয়ে বললেন:
إنه لن يبسط أحد ثوبه حتى أقضي جميع مقالتي هذه ثم يجمع إليه ثوبه إلا وعى ما أقول. فبسطت نمرة علي ّ، حتى إذا قضى رسول الله صلى الله عليه وسلم مقالته جمعتها إلى صدري، فما نسيت من مقالة رسول الله صلى الله عليه وسلم تلك من شيء
‘আমি যতক্ষণ না আমার যাবতীয় কথা শেষ করছি ততক্ষণ পর্যন্ত কেউ যদি তার কাপড় বিছিয়ে রেখে দেয় এবং কথা শেষ হলে তা নিজের দিকে টেনে এনে জড়িয়ে ধরে, তাহলে আমার উপস্থাপিত সব কথাই তার মনে থাকবে।’তৎক্ষণা আমি আমার সাদা-কালো দাগযুক্ত পশমি চাদর পেতে দিলাম এবং যখন তিনি যাবতীয় কথা বলে শেষ করলেন, তখনি আমি আমার পাতা চাদরটি টেনে নিয়ে বুকে জড়িয়ে ধরলাম। তাই, রাসূলের বলা সেই কথাগুলোর কিছুই আমি ভুলিনি।

সাতান্ন হিজরিতে তিনি পরলোক গমন করেন।

শাব্দিক আলোচনা:
إنَّ اللهَ تَعَالَى قَالَ
হাদিসের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত এ ধরণের বাক্যরূপ প্রমাণ করে হাদিসট ‘হাদিসে কুদসী’। হাদিসে কুদসী হল:
هو ما أضيف إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم وأسنده إلى ربه عز وجل.
রাসূল (ﷺ) যা নিজের সাথে সংশ্লিষ্ট করে বর্ণনা করেন, কিন্তু বরাত দেন আল্লাহ তাআলার কালাম হিসেবে।
مَنْ عَادَى لِيْ وَلِيًّا
(যে আমার কোনো ওলি (বন্ধু)- এর সঙ্গে শত্রুতা পোষণ করল) ভিন্ন বর্ণনায় এসেছে:
من أهان لي وليّا فقد بارزني بالمحاربة
যে আমার কোনো প্রিয় বান্দাকে অপমাণিত করল সে আমার সঙ্গে লড়াইয়ের ঘোষণা দিল। ‘ওয়ালিয়্যুন’ শব্দটি ‘মুওয়ালাত’ থেকে উৎপন্ন, যার অর্থ নৈকট্য। ওলি কাকে বলে ?
الولي : هو القريب من الله بعمل الطاعات والكف عن المعاصي
ওলি তাকেই বলে যে যথার্থ এবাদত বন্দেগি ও সর্বপ্রকার পাপাচার পরিহারে দৃঢ়তার স্বাক্ষর রেখে মহান আল্লাহ পাকের নৈকট্যে উপনীত হতে সক্ষম ও সফল হয়েছে।

فَقَدْ آذَنْتُهُ بِالْحََرْبِ
অর্থাৎ, যেহেতু আমার নৈকট্যপ্রাপ্ত বান্দাদের সাথে শত্রুতা পোষণ করে সেহেতু আমিও তার সঙ্গে যুদ্ধের ঘোষণা দিলাম।

وَمَا تَقَرَّبَ إلَيَّ عَبْدِي بِشَيْءٍ أَحَبَّ إِلَيَّ مِمَّا افْتَرَضْتُهُ عَلَيْهِ
‘আমার বন্ধুদের সাথে শত্রুতা প্রকারান্তরে আমার সাথে যুদ্ধ ঘোষণারই অনুরূপ’—এ আলোচনার অবতারণার পর আল্লাহ তাআলা তার বন্ধুদের গুণ বর্ণনা করেছেন, যাদের সাথে শত্রুতা নিষিদ্ধ, এবং যাদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ আল্লাহর কাম্য। আল্লাহর প্রিয় বান্দা তারাই, যারা নৈকট্যদানকারী বিষয়কে অবলম্বন করে, বলাবাহুল্য এর শীর্ষে অবস্থান করে শরিয়তের অবশ্য পালনীয় বিধান বা ফরজ সমূহ।

فَإذَا أحْبَبْتُهُ كُنْتُ سَمْعُهُ الّذِيْ يَسْمَعُ بِهِ، وَبَصَرُهُ الّذِي يُبْصِرُ بِهِ، وَيَدَهُ الَّتِيْ يُبْطِشُ بِهَا، وَرِجْلُهُ الَّتِيْ يَمْشِيْ بِهَا
বাক্যাংশের উদ্দেশ্য এই যে, প্রথমত: ফরজ, দ্বিতীয়ত: নফল-ইত্যাদির মাধ্যমে সে নিরত হবে আল্লাহ তাআলার নৈকট্যলাভের অধ্যবসায়, আল্লাহ তাকে আপন করে নিবেন, ঈমানের স্তর হতে তাকে উন্নীত করবেন এহসানের স্তরে। ফলে সে এমনভাবে আল্লাহ পাকের এবাদতে লিপ্ত হবে; যেন সে আল্লাহর দর্শন লাভ করছে, তার হৃদয় পূর্ণ হবে আল্লাহর মারেফাতে, তার মহববত ও মহত্ত্বে। তার আত্মা কম্পিত হবে আল্লাহর ভীতি ও মাহাত্ম্যে। তার হৃদয় কোন্দর বিগলিত হবে তার সংশ্লিষ্টতা ও তার প্রতি প্রবল ব্যগ্রতায়। এক সময় তার মনে হবে, অন্তরদৃষ্টি দ্বারা সে আল্লাহকে দর্শন করছে তার কথন হবে আল্লাহর কথন, শ্রবণ হবে তারই শ্রবণ, দৃষ্টি হবে তারই দৃষ্টি।

وَلَئِنْ سَأَلَنِيْ لَأُعْطِيَنّهُ، وَلَئِنْ اسْتَعَاذَنِيْ لَأُعِيْذَنَّهُ.
অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাকের সে-রূপ নৈকট্যশালী সৌভাগ্যবান বান্দার বিশিষ্ট মর্যাদা রয়েছে তাঁর সমীপে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে সে যদি তাঁর সকাশে কিছু চায় তবে তিনি তাকে তা দিয়ে দেন। কোনো বিষয় থেকে আশ্রয় কামনা করলে তিনি তা থেকে তাকে আশ্রয় দেন। তাঁকে ডাকলে তিনি সাড়া দেন। অতএব আল্লাহ পাকের সকাশে তার এহেন সম্মান থাকায় সে
الدَّعْوَةِ مُسْتَجَابُ
(যার দোয়া কবুল করা হয়) বান্দায় পরিণত হয়।

বিধান ও উপকারিতা:
ওয়াজিব-মোস্তাহাব, বা আবশ্যক-অনাবশ্যক সর্বস্তরের এবাদত বন্দেগির অভ্যন্তরে বিচরণ, এবং ছোট বড় সর্বশ্রেণীর পাপাচার অনাচারের ভয়ংকর বৃত্ত থেকে সম্পূর্ণ ভাবে আত্মরক্ষা এ দু’টি বিষয়ই মানব-মানবীর ভিতরে অলিত্বের প্রতিভা সৃষ্টি করে। শামিল করে তাদের সেই শ্রেষ্ঠ অলিদের কাতারে যারা মহববত করে আল্লাহকে। আল্লাহ পাকও তাদের মহববত করেন কেবল তাই নয়, বরং যারা তাদের মহববত করে তিনি তাদেরকেও ভালোবাসেন। অধিকন্তু, যে সমস্ত লোক আল্লাহ তাআলার এমন বন্ধুদের সাথে শত্রুতা পোষণ করে, অথবা তাদের কষ্ট দেয়, কিংবা ঘৃণা করে, অথবা তাদের সাথে প্রতারণা ও প্রবঞ্চনা মূলক দুরাচার, অথবা কোনোরূপ অনিষ্ট ও ক্ষতি সাধনের কুটিল মতলব নিয়ে তাদের পিছু নেয়, তিনি সে সমস্ত দুষ্টদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। কেননা, আল্লাহ তাআলা তাদের সাহায্য সহযোগিতার জিম্মাদার হন। বিধায় তিনি তাদের সহায়তা করেন।

আল্লাহর বন্ধুদের প্রতি মহববত পোষণ আবশ্যক, অপরদিকে তাদের প্রতি শত্রুতা পোষণ অবৈধ। এমনিভাবে, যারা তার সাথে শত্রুতায় লিপ্ত তাদের সাথে শত্রুতার মনোভাব ও তাদের বন্ধুত্ব বর্জন আবশ্যক।
পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন;
لَا تَتَّخِذُوا عَدُوِّي وَعَدُوَّكُمْ أَوْلِيَاءَ
যারা আমার ও তোমাদের শত্রু, তাদের বন্ধুরূপে গ্রহণ করো না।

অপর এক স্থানে তিনি বলেন—
وَمَنْ يَتَوَلَّ اللَّهَ وَرَسُولَهُ وَالَّذِينَ آَمَنُوا فَإِنَّ حِزْبَ اللَّهِ هُمُ الْغَالِبُونَ . (المائدة: ৫৬)
যারা আল্লাহ, তার রাসূল ও মোমিনদের সাথে বন্ধুতা করে, তারাই আল্লাহর দল, আর আল্লাহর দলই বিজয়ী।

আল্লাহ তার প্রিয় বান্দাদের গুণ বর্ণনা প্রসঙ্গে আরো বলেছেন, তারা মোমিনদের প্রতি সদয় এবং কাফেরদের প্রতি কঠোর।

হাদিসটি প্রমাণ করে, আল্লাহর বন্ধু দু শ্রেণীতে বিভক্ত।

প্রথমত: যারা ফরজ আদায়ের মাধ্যমে তার নৈকট্য হাসিল করে। এরা আসহাবে ইয়ামিন বা মধ্যপন্থী। ফরজ আদায়, নি:সন্দেহ, সর্বোত্তম এবাদত, যেমন বলেছেন উমর ইবনুল খাত্তাব (রাঃ)
أفضل الأعمال أداء ما افترض الله، والورع عما حرم الله، وصدق النية فيما عند الله.
‘সর্বোত্তম এবাদত হল যা আল্লাহ তাআলা ফরজ করেছেন, অত:পর আল্লাহ কর্তৃক নিষিদ্ধ বিষয় পরিহার এবং যা আল্লাহর কাছে রক্ষিত, তা লাভের ক্ষেত্রে বিশুদ্ধ নিয়ত।’

দ্বিতীয়ত: ফরজ আদায়ের পর যারা নফল এবাদত, মাকরূহ বিষয়াদি পরিহার—ইত্যাদির অধ্যবসায়ের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য হাসিল করে। আল্লাহ তাদের প্রতি ভালোবাসা আবশ্যক করে নেন। উল্লেখিত হাদিসে এ দ্বিতীয় প্রকার অলিদের প্রতি বিশেষ আলোকপাত করে বলা হয়েছে—
وَلَا يَزَالُ عَبْدِي يَتَقَرَّبُ إلَيَّ بِالنَّوَافِلِ حَتّى أُحِبَّهُ
নফল এবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে আমার বান্দা আমার নৈকট্য লাভ অব্যাহত রাখে এমনকি এ পর্যায়ে আমি তাকে ভালোবাসি।

আল্লাহ তাআলা যে বান্দাকে ভালোবাসেন, সে বান্দার হৃদয়ে তার বাস্তব ভালোবাসা জাগিয়ে তোলেন এবং স্মরণ ও এবাদত-বন্দেগিতে আত্ম-নিমগ্ন থাকতে পারে; এরূপ শক্তি-সামর্থ্য ও হিম্মত তাকে দান করেন। তদুপরি, আল্লাহ পাকের সান্নিধ্য ও নৈকট্য বয়ে আনে এমন ধর্ম কর্ম বা ধর্ম-পরায়ণতায় সে তার অন্তরঙ্গতা ও নিবিড় আন্তরিকতা খুঁজে পায়। ফলে ওই সব সু-কর্ম নিশ্চিত করে মহান আল্লাহর নিকটবর্তিতা এবং সাব্যস্ত করে ওই সংরক্ষিত অনন্ত নেয়ামত রাজি যা তাঁরই সকাশে সংরক্ষিত। আল্লাহ তাআলা বলেন:
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آَمَنُوا مَنْ يَرْتَدَّ مِنْكُمْ عَنْ دِينِهِ فَسَوْفَ يَأْتِي اللَّهُ بِقَوْمٍ يُحِبُّهُمْ وَيُحِبُّونَهُ أَذِلَّةٍ عَلَى الْمُؤْمِنِينَ أَعِزَّةٍ عَلَى الْكَافِرِينَ يُجَاهِدُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ وَلَا يَخَافُونَ لَوْمَةَ لَائِمٍ ذَلِكَ فَضْلُ اللَّهِ يُؤْتِيهِ مَنْ يَشَاءُ وَاللَّهُ وَاسِعٌ عَلِيمٌ (المائدة :৫৪)
হে মোমিনগণ, তোমাদের মধ্য থেকে যে স্বীয় ধর্ম থেকে ফিরে যাবে, অচিরে আল্লাহ এমন এক সম্প্রদায় সৃষ্টি করবেন যাদেরকে তিনি ভালোবাসবেন এবং তারা তাঁকে ভালোবাসবে। তারা মুসলিমদের প্রতি বিনয়-বিনম্র হবে, এবং কাফেরদের প্রতি হবে কঠোর। তারা আল্লাহর পথে জেহাদ করবে, এবং কোন তিরস্কারকারীর তিরস্কারে ভীত হবে না। এটা আল্লাহর অনুগ্রহ, যাকে ইচ্ছা তিনি তা দান করেন। আল্লাহ প্রাচুর্যময় সর্বজ্ঞ।

বান্দার জন্য আল্লাহর মহববত অন্যতম মুখ্য বিষয়। যে ব্যক্তি তা প্রাপ্ত হবে, প্রাপ্ত হবে দুনিয়া ও আখেরাতের যাবতীয় কল্যাণ ও সৌভাগ্য। প্রকৃত মোমিন সেই, যে আল্লাহর অলি হওয়ার আকাঙ্খায় ব্যাগ্র-কাতর হবে। এ লক্ষ্যে নিজেকে নিয়োজিত করবে চূড়ান্ত অধ্যবসায়। আল্লাহর অলি হওয়ার লক্ষ্য অর্জিত হয় নানাভাবে;

(ক) যা পালন আল্লাহ তাআলা বান্দার জন্য ফরজ করেছেন, তা সুচারুরূপে পালন করা। হাদিসে এসেছে’

وَمَا تَقَرَّبَ إلَيَّ عَبْدِي بِشَيْءٍ أَحَبَّ إِلَيَّ مِمَّا افْتَرَضْتُهُ عَلَيْهِ

আমার বান্দা যে সমস্ত উপায়ে আমার নৈকট্য পায়, তন্মধ্যে তার প্রতি আমার আরোপিত ফরজ কর্ম সমূহই আমার নিকট সবচেয়ে প্রিয়।

কিছু ফরজ কর্মের উদাহরণ নিম্নরূপ :

তাওয়াহ্‌য়ীদ বা একত্ববাদের বাস্তবিক রূপায়ণ, ফরজ স্বলাত আদায়, জাকাত প্রদান, এবং মাহে-রমজানের সিয়াম পালন, ও বায়তুল্লাহর হজ পালন, এবং পিতা-মাতার সঙ্গে সদাচার ও আত্মীয়ের হক আদায়। তদুপরি সততা, নিষ্ঠা, উদারতা, সহানুভূতি, অনুনয়-বিনয় এবং উ কৃষ্ট কথন-বলন ও উত্তম ব্যবহার; প্রভৃতির ন্যায় শ্রেষ্ঠ চরিত্রে চরিত্রবান হওয়া।

(খ) ছোট বড় সকল হারাম বস্ত্ত সহ মাকরূহ বা অপছন্দনীয় বিষয়াদি থেকে যথা সাধ্য দূরত্ব বজায় রাখা।

(গ) নানাবিধ নফল স্বলাত, সদকা, সিয়াম, জিকির, কোরআন তেলাওয়াত, সৎ কর্মের আদেশ, অসৎ কর্মের নিষেধসহ ইত্যাদি নফল বা ঐচ্ছিক নেক কর্মে নিয়োজিত হয়ে মহান আল্লাহ পাকের সান্নিধ্য অর্জনে ব্রতী হওয়া।

উল্লেখযোগ্য কিছু নফল-কর্ম :

এক : অনুধাবন ও চিন্তা-গবেষণাসহ কোরআন তেলাওয়াত, এবং সে অনুসারে চিন্তা-ভাবনা করে তা শ্রবণ, যথাসাধ্য তার মুখস্থ এবং কণ্ঠস্থকৃত অংশগুলোর বারংবার পুনরাবৃত্তি এবং উক্ত আবৃত্তির মাধ্যমে আন্তরিক প্রশান্তি উপভোগ করা। কেননা মাহবুবের কথন-বলন ও শ্রবণে যে মধুরতা নিহিত, মহববত পোষণকারী মহলে তার চেয়ে তীব্রতর মধুরতা ও মিষ্টতা আর কিছুই নেই। খুঁজে পায় সেখানে তারা চরম ও পরম তৃপ্তি। কোরআন কারীমের পাঠ সংক্রান্ত উক্ত স্বাদ উপলব্ধি করার ক্ষেত্রে সহায়তা করে—এমন কিছু উপায় নিম্নে উল্লেখ করা হলো :

এক—উক্ত বিষয়ে দৃঢ় সংকল্প করা।

দুই—উক্ত বিষয়ে মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা।

তিন—উক্ত বিষয়ে পরিকল্পনা গ্রহণ।

চার—উপরোক্ত তিনটি কাজ শেষ করার পর যে মূল কর্মটি হাতে নিতে হবে তা হলো দৈনন্দিন কোরআন করীমের একটি পারার তেলাওয়াত নিয়মতান্ত্রিকভাবে চালিয়ে যাবে এবং যথাসাধ্য উক্ত নিয়মানুবর্তিতা ও ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চলবে। কিছুতেই তা ভঙ্গ করবে না।

দুই : আত্মিক ও মৌখিকভাবে আল্লাহর স্মরণে অধিকহারে ব্যাপৃত হওয়া। বিশুদ্ধ হাদিসে কুদসীতে এসেছে যে;
يقول الله تعالي : أنا عند ظن عبدى بى، وأنا معه حين يذكرني، فان ذكرني في نفسه ذكرته في نفسي، وان ذكرني في ملأ ذكرته في ملأ خير منهم.

আল্লাহ তাআলা বলেন : আমার প্রতি আমার বান্দা যেরূপ ধারণা পোষণ করে আমি তার সে-রূপ ধারণা অনুযায়ী কাজ করি। আমি তার সাথে থাকি যখন সে আমায় স্মরণ করে। অতএব সে যদি আমাকে নির্জনে স্মরণ করে আমি তাকে নির্জনে স্মরণ করি। আর যদি সে আমাকে ভরা মজলিসে স্মরণ করে তবে আমি তাদের চেয়ে উত্তম সমাবেশে তাকে স্মরণ করি। এবং আল্লাহ তাআলা বলেন :
فَاذْكُرُونِي أَذْكُرْكُمْ (البقرة: ১৫২)

তোমরা আমার স্মরণ কর আমি তোমাদের স্মরণ করব।

তিন : আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য তার পরম বন্ধুদের ভালোবাসা। পাশাপাশি উক্ত উদ্দেশ্যে তাঁর শত্রুদের সঙ্গে বিদ্বেষপূর্ণ মনোভাব পোষণ করা। উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত : তিনি বলেন : নবী করীম (ﷺ) বলেছেন:
إن من عباد الله لأناسا ما هم بأنبياء ولا شهداء، يغبطهم الأنبياء والشهداء يوم القيامة بمكانهم من الله ةعالى، يوم القيامة بمكانهم من الله ةعالي، قالوا: يا رسول الله، ةخبرنا من هم ؟ قال: هم قوم ةحابوا بروح الله علي غير أرحام بينهم، ولا أموال يةعاطونها، فوالله إن وجوههم لنور، وإنهم علي منابر من نور لا يخافون إذا خاف الناس، ولا يحزنون إذا حزن الناس، وقرأ هذه الآية : أَلَا إِنَّ أَوْلِيَاءَ اللَّهِ لَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ [يونس: ৬২]
আল্লাহর বান্দাদের মাঝে এমন কিছু লোক রয়েছে যারা নবী কিংবা শহীদ নয়। আল্লাহর পক্ষ হতে প্রাপ্ত বিশেষ মর্যাদার কারণে নবী ও শহীদগণ কেয়ামত দিবসে তাদের প্রতি ঈর্ষান্বিত হবেন। তারা বললেন : হে আল্লাহর রাসূল (ﷺ) তারা কারা, আপনি আমাদের তা অবহিত করবেন কী ? তিনি বললেন : তারা হল সে সমস্ত লোক যারা একে অপরকে ভালো বেসেছিল শুধু আল্লাহর ইচ্ছা বাস্তবায়নে, কোন আত্মীয়তার বন্ধনের তাগিদে নয়, কিংবা তাদের পারস্পরিক সম্পদের আদান-প্রদানের কারণেও নয়। আল্লাহর শপথ ! নিশ্চয় তাদের মুখমন্ডল হবে আলোময় (ঝলমলে) তারা উপবিষ্ট থাকবে জ্যোতির তৈরি মিম্বার (মঞ্চ) সমূহে। লোকেরা যখন শঙ্কায় কাতর হবে, তখন তারা হবে নি:শঙ্কচিত্ত। মানুষ যখন শোকে কাতর হবে, তখন তারা হবে আনন্দচিত্ত।

অত:পর তিনি এ আয়াত পাঠ করলেন :—
أَلَا إِنَّ أَوْلِيَاءَ اللَّهِ لَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ [يونس: ৬২]
আল্লাহর বন্ধুদের কোন ভয়-ভীতি কিংবা শোক-দু:খ নেই।

পাঁচ : হাদিসটি প্রমাণ করে; রাসূল (ﷺ)-এর মাধ্যমে আল্লাহ তাআলা তার আনুগত্য ও বন্ধুত্বের যে বিধান দিয়েছেন, তা ব্যতীত ভিন্ন কোন পথ-পদ্ধতির মাধ্যমে তা লাভের দাবি খুবই অসাড়, মিথ্যা তাই সর্বার্থে বর্জনীয়। মুশরিকরা আল্লাহর নৈকট্য হাসিলের ভিন্ন উপায় হিসেবে গায়রুল্লাহর এবাদত করত কোরআনে প্রসঙ্গটি উত্থাপন করে আল্লাহ তাআলা বলেন
مَا نَعْبُدُهُمْ إِلَّا لِيُقَرِّبُونَا إِلَى اللَّهِ زُلْفَى (الزمر ৩)আমরা তাদের উপাসনা শুধু এ জন্যই করি যাতে তারা আমাদের আল্লাহর নিকটস্থ করে দেয়।

এমনিভাবে আল্লাহ তাআলা ইহুদি খ্রিস্টানদের সম্বন্ধে তাদের উক্তি তুলে ধরে বলেন:
نَحْنُ أَبْنَاءُ اللَّهِ وَأَحِبَّاؤُهُ (المائدة : ১৭)
আমরা আল্লাহর পুত্র ও তাঁর বন্ধু।

অথচ তারা সমস্ত রাসূলদেরই মিথ্যা প্রতিপন্ন করে উদ্ধতভাবে এবং তাদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা অমান্য ও ফরজ-কর্মসমূহ পরিহারে তারা থাকে অটল ও অনড়।

ছয় : মুসলিম মাত্র আশা রাখে যে তার দোয়া কবুল করা হবে, গ্রহণ করা হবে তার কর্মগুলো, দান করা হবে তাকে তার প্রার্থিত বিষয়। যা থেকে সে পরিত্রান প্রার্থনা করবে, তা থেকে তাকে পরিত্রান দেয়া হবে। এগুলো মানুষের খুবই আন্তরিক ও আত্মিক বাসনা, যার সঠিক সন্ধান দিতে পারে একমাত্র ওলায়াত বা বন্ধুত্বের পথ। যে পথের পুরোটাই জুড়ে থাকবে ফরজ ও শরিয়ত কর্তৃক নির্ধারিত-সমর্থিত নফল এবাদত; যার পিছনে কাজ করবে বিশুদ্ধ নিয়ত ও রাসূলের আনুসরণ এবং তার নির্দেশিত পথের অনুবর্তন।

Main link…

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=1414220528591474&id=100000106201797

আমরা কেন আরব আলেমদের অনুসরণ করব, বিশেষ করে সৌদি আলেমদের

a

আমরা কেন আরব আলেমদের অনুসরণ করব, বিশেষ করে সৌদি আলেমদের:

এ বিষয়ে বলতে গেলে আমাদের প্রথমে জানতে হবে আমাদের ভারত উপমহাদেশের ইসলাম আগমনের ইতিহাস। ইসলামের ইতিহাসে পাওয়া যায় রাসূল এর যুগে ইরান বা পারস্য (ইরাক হতে আমু দরিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত বর্তমান ইরান নিয়ে পারস্য) এর অধিবাসীরা অগ্নিপূজা করত তারা অগ্নির দেবতাকে ‘খোদা’ বলত এবং তাকে পূজা বা উপাসনা করাকে বলত ‘নামায’। সেই সঙ্গে ঐ দেবতার উদ্দেশ্যে না খেয়ে থাকাকে বলত ‘রোযা’। পরবর্তীতে খলীফা আবু বকর (রাঃ) এর সময় খালিদ বিন ওয়ালিদ এর নেতৃত্বে ১৩ হিজরী ৬৩৩ খ্রিষ্টাব্দে পারস্য বিজয় করেন। এবং ঐ সময় ঐ এলাকার অধিবাসীগণ দ্বীনের হক সম্পর্কে পরিষ্কারভাবে না বুঝে ইসলামের মহত্ব আর মুসলমানদের আদর্শে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্রহন করতে থাকে। দ্বীনের হক সম্বন্ধে আক্বিদা পরিষ্কার না হওয়ায় তারা আল্লাহকে ‘খোদা’ সালাহকে সালাহ না বলে ‘নামায’ ও সওমকে ‘রোযা’ বলতে শুরু করে। কিন্তু তাদের অগ্নিপূজার আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে যে বিষয়গুলো ছিলনা যেমন, হজ্জ, যাকাত এরকম কিছুকে তারা পরিবর্তন করতে পারেনি।
এখন প্রশ্ন হল ভারত উপমহাদেশে এগুলো কোথা থেকে প্রচলন হয়েছে? ইসলামের ইতিহাসের দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায় এই উপমহাদেশের ইসলাম এসেছে সরাসরি মক্কা মদীনার মধ্যে দিয়ে নয় পারস্য সম্রাজ্যের ভিতর দিয়ে। এবং আসার সময় পারস্যের কৃষ্টি কালচার ও সংস্কৃতি নিয়ে এই উপমহাদেশে প্রবেশ করে, ফলে আমরাও ‘খোদা’ ‘নামায’ ‘রোযা’ শব্দগুলো শিখে ফেলেছি। এছাড়াও আরও অনেক কিছু শিখেছি যার কারণে মদীনার সঙ্গে অনেক কিছুতেই আমদের অমিল রয়ে গেছে। কুফা ও দামেস্কের জাল যঈফ আবর্জনা ও বানোয়াটি হাদীসের কারখানা থেকে অনেক হাদীস আমাদের ভারত উপ মহাদেশে প্রবেশ করেছে। অনেকটা এরকম যে,কোন এলাকায় বন্যা হলে তা যখন বিস্তার লাভ করে ঐ বন্যার পানি ধাওয়া করে তা শুধু পরিষ্কার পানি আসেনা ময়লা আর্বজনা সহ ভাল মন্দ সবই আসে। তাই সঠিক বেঠিক বিষয়গুলো জেনে আমাদের সংশোধন হওয়া উচিত। ( বিঃদ্রঃআর বিষয়ে সৌদী হক্কানি আলেমরা পরিষ্কার বলতে পারবে। তবে এর বাইরের অলেমরা ও বলতে পারবে যদি সে প্রকৃত আলেম হয়।) এর হুশিয়ারী রাসূল এর এক বর্ণনায় এসেছে পূর্বের দিকে ইরাক থেকে ফেৎনা শুরু হবে।(আহমাদ হা/৬৩০২ সহীহ সনদে) কুফা ইরাকের একটা শহর। (উল্লেখ্য ৭১৭ ও ৭২০ খ্রিষ্টাব্দে খলিফা দ্বিতীয় উমরের খিলাফতকালে তার প্রেরিত একদল ধর্ম প্রচারকের প্রভাবে ভারত উপমহাদেশের অনেক হিন্দু ইসলাম গ্রহন করে)।

নাবী (ছাঃ) বলেছেন,জাবির বিন আবদুল্লাহ (রাঃ) হতে বর্নিত, তিনি বলেছেন যে, একদা আমরা নাবী (ছাঃ) এর নিকট ছিলাম,তিনি একটি সরল রেখা আকলেন এবং ডান দিকে দুটি এবং বাম দিকে দুটি রেখা আকলেন । অতঃপর তিনি তাঁর হাতকে মধ্য রেখায় রেখে বললেনঃ এটাই আল্লাহর পথ। অতঃপর এই আয়াত পাঠ করলেন ” এটাই আমার সোজা পথ, তোমরা এই পথেরই অনুসরন কর এবং অন্য পথ সমূহের অনুসরন করোনা। যদি কর তবে তা আল্লাহর সোজা পথ হতে তোমাদেরকে বিভ্রান্ত করে দিবে ।”( আহমাদ, নাসাঈ, দারেমী ।)
আর আমরা যারা মাযহবের মানি তাদেরকে জানতে হবে। মাযহাব ‘ইসমে যরফ’এর সীগা। যার অর্থ যাওয়ার স্থান বা যাওয়ার সময় অর্থাৎ মুসলিমদের যাওয়ার তথা নাবী (ছাঃ) এর সময় যেভাবে ইসলাম ছিল সেভাবে অনুসরন করার দিকে যাওয়া এবং যাওয়ার স্থান তথা ইসলাম যেখানে প্রসার লাভ করেছিল অর্থাৎ মাক্কাহ ওমাদীনার আলেমদের থেকে প্রকৃত ইসলাম শিক্ষা করা ও তাদেরকে অনুসরণ করা, সেটাই মুসলিমদের যাওয়ারস্থান প্রকৃত ইসলাম শিক্ষা নেওয়ার স্থান অথবা বাইরে থেকে শিক্ষা গ্রহণের পর নিজ ইলমের মাক্কাহ ও মাদীনার বিজ্ঞ আলেমগণের স্বিকৃত প্রাপ্ত হওয়া। কেননা ইসলাম সমস্ত পৃথিবীতে পরিবর্তন হয়ে গেলেও মাক্কাহ ও মাদীনায় সঠিক অবস্থায় থাকবে।
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, «إِنَّ الإِيمَانَ لَيَأْرِزُ إِلَى الْمَدِينَةِ كَمَا تَأْرِزُ الْحَيَّةُ إِلَىجُحْرِهَا. “ঈমান মদীনার দিকে ফিরে আসবে, যেভাবে সাপ তার গর্তের দিকে ফিরে আসে’’। [সহীহ বুখারী – ১৮৭৬ ও মুসলিম – ৩৭২]
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, «يَضْرِبُونَ أَكْبَادَ الإِبِلِ يَطْلُبُونَ الْعِلْمَ فَلاَ يَجِدُونَ عَالِمًا أَعْلَمَ مِنْعَالِمِ الْمَدِينَة ‘‘মানুষ হন্যে হয়ে ইলম অনুসন্ধান করবে, তবে মদীনার আলেমের চেয়ে অধিক বিজ্ঞ কোন আলেম তারা খুঁজে পাবে না।’’[ নাসায়ী: ৪২৭৭ ও হাকেম: ৩০৭ সহীহ]
عَن أبي هُرَيْرَة رِوَايَةً: «يُوشِكُ أَنْ يَضْرِبَ النَّاسُ أَكْبَادَ الْإِبِلِ يَطْلُبُونَ الْعِلْمَ فَلَا يَجِدُونَ أَحَدًا أَعْلَمَ مِنْ عَالم الْمَدِينَة»
হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। ইলমের সন্ধানে মানুষ হন্যে হয়ে ঘুরে বেড়াবে। তখন তারা মদীনার আলেমের তুলনায় বড় কোন আলেম তারা দেখতে পাবে না। {মিশকাতুল মাসাবীহ,হাদীস নং-২৪৬}
এই হাদীছের ব্যাখায় অনেকেই বলেছেন এটি সাহাবীগণ ও তাবেয়ীগণের জমানা। এরপর মদীনায় থাকা উলামায়ে কেরাম অধিকাংশ ইসলামী সম্রাজ্যের প্রতিটি শহরে শহরে ছড়িয়ে পড়েছেন।[তাই ইযাফতটি জিনসী]
কেউ কেউ বলেন, এর দ্বারা উদ্দেশ্য হল রাসূল সাঃ। [তাই ইযাফতটি আ’হদী] রাসূল (ছাঃ) ভবিষৎ বাণী দ্বারা রাসূল সাঃ কে উদ্দেশ্য!kemon alem!kemon bujlen mathy ase kee!!!
( এ বিষয়ে বলতে হয়ঃ উলামায়ে কেরাম অধিকাংশ ইসলামী সম্রাজ্যের প্রতিটি শহরে শহরে ছড়িয়ে পড়েছেন। কথাটা ১০০% ঠিক কিন্তু যখন আমাদের মাঝে ভুল বুঝিাবুঝি হবে তখন আমরা কোর‘আন–হাদসি এবং মদীনর আলেমদের শরনাপন্ন অবশ্যই হতে হবে।)
হযরত উম্মিহানী বিনতে আবী তালিব রা:)হতে বর্ণিত আছে যে,রাসূলুল্লাহ্(ছাঃ)বলেছেন:“ আল্লাহ তা’আলা কুরায়েশদেরকে সাতটি ফযীলত প্রদান করেছেন। ১.আমি তাদেরই অন্তর্ভুক্ত।২. নবুওয়াত তাদের মধ্যে রয়েছে। ৩.তারা আল্লাহর ঘরের তত্ত্বাবধায়ক। ৪.তারা যমযম কূপের পানি পরিবেশনকারী। ৫.আল্লাহ তা’আলা তাদেরকে হস্তী অধিপতিদের উপর বিজয় দান করেছেন। ৬.দশবছর পর্যন্ত তারা আল্লাহর ইবাদত করেছে যখন অন্য কেউ ইবাদত করতো না। ৭. তাদের সম্পর্কে আল্লাহ তা’আলা কুরআন করীমের একটি সূরা অবতীর্ণ করেছেন”[বায়হাকী]হাদিসটির সনদ দুর্বল হলেও, এটি সত্য যে আল্লাহ তা’আলা কুরায়েশদেরকে অন্য সকল জাতি থেকে বেশি সম্মানিত করেছেন। কাবা শরীফ হওয়ার কারনে এবং রাসূল (ছাঃ),কে সেখানে পাঠানোর কারনে। বলা হয়ে থাকে আরবেরা সব থেকে জাহেলিয়তে বসবাস করত, তাই সেখানে আল্লাহ রাসূল (ছাঃ)-কে পাঠিয়েছেন, সেখানে নবজাতক কন্যা সন্তানকে মেরে ফেলা হত। সেই দিক থেকে ভারতও কম জাহেলিয়েতে ছিল না। ভারতে এমন কি আমাদের দেশের হিন্দুরা মারাগেলে তার জীবিত স্ত্রীকেও পুড়িয়ে ফেলত, ইতিহাস তার সাক্ষী। তারাও আরবদের মত একাধিক দেব-দেবীর পূজা করত, এমন কি ভারতে এখনও তা হচ্ছে। আল্লাহ চাইলে সেখানে রাসূল (ছাঃ)-কে পাঠাতে পারতেন। কিন্তু আল্লাহ আরবদের কাছেই রাসূল (ছাঃ)কে পাঠালেন এবং আরব জাতিকে সম্মানিত করলেন
## নবুয়াতের পর আরবের অবস্থা কি রুপ হবে:
যখন হুদাইফা(রা:)জিজ্ঞাসা করল, ও আল্লাহর রাসূল (ছাঃ),আমরা জাহিলীয়াত এবং খারাপ অবস্থায় ছিলাম, এরপর আল্লাহ আমাদের ভালোর দিকে নিয়েএসেছে। এই ভালোর পর কি কোনো খারাপ আসবে? রাসূল (ছাঃ) বললেন: “হাঁ”,হুদায়ফা জিজ্ঞাসা করল,খারাপের পর কি কোনো ভাল অবস্থা আসবে? তিনি বললেন,“হাঁ,কিন্তু তাতে কিছু দাখান (স্বল্প খারাপ অবস্থা) বিদ্যমান থাকবে”,আমি জিজ্ঞাসা করলাম, এর খারাপ অবস্থা কি হবে? তিনি বললেন, “কিছু সংখ্যক লোক থাকবে যারা (মানুষকে) পথ দেখাবে আমার নির্দেশিত পথ ব্যতীত অন্য কিছু দ্বারা এবং তাদের পরিচালন করবে আমার সুন্নত ব্যতীত অন্য কিছু দ্বারা। তুমি তাদের কাজ দেখবে এবং সমর্থন করবে না”হুদায়ফা বলল, “ঐ ভালর পর কি খারাপ হবে? তিনি বললেন, “হাঁ, কিছু মানুষ থাকবে যারা অন্যদের জাহান্নামের দিকে আহব্বান করবে, এবং যারা তাদের দাওয়াত গ্রহন করবে তাদের তাতে নিক্ষেপ করা হবে (তাদের দারাই),হুদাইফা বললেন,ও আল্লাহর রাসূল(ছাঃ)আমাদেরকে তাদের সম্পর্কে বলুন। তিনি বললেন,তারা আমাদের মধ্য থেকেই হবে এবং আমাদের ভাষা বলবে (আরবীয়রা), হুদায়ফা জিজ্ঞাসা করল, “সেই ক্ষেত্রে আপনি আমাদের কি করতে বলেন?” তিনি বললেন,মুসলিম দল এবং নেতাদের সাথে দৃঢ়ভাবে অবস্থান করবে”, হুদাইফা জিজ্ঞাসা করল, কোনো (হক্ক) দল বা নেতা যদি না থাকে? তিনি বললেন, অন্য সব ভিন্ন দল থেকে দূরে থাকবে, যদিও তোমাদের গাছের শিকড় কামড়াতে হয়,যতখন পর্যন্ত তুমি ঐ অবস্থায় থাকো আর তোমার মৃত্যু হয় [বুখারী, মুসলিম]
পরিস্থিতি যখন খারাপ হবে তখন আল্লাহ মুজাদ্দেদীন পাঠিয়ে আবার তৌহীদ প্রতিষ্ঠা করবেন,যেভাবে নবুয়াতের পর সৌদি আরবে আবার শির্ক প্রবেশ করেছিল এবং আব্দুল ওহ্হাবকে দিয়ে আল্লহ্ সৌদি আরবকে শির্ক থেকে মুক্ত করেন। আর এখন পর্যন্ত আল্লাহর রহমতে সৌদি আরব শির্ক মুক্ত আছে। সেখানে কোন কবর পূজা হয় না, কোন পীর নেই যারা বিভিন্ন কেরামতি দেখিয়ে থাকেন ইত্যাদি।
আল্লাহ প্রত্যেক শতাব্দীতে এই উম্মত থেকে একজন মুজাদ্দিদ পাঠাবেন যিনি ধর্মকে পুনরায় প্রতিষ্ঠিত করবে
[সুনানে আবুদাউদ]
ইমাম মাহদি হবে রাসূল (ছাঃ) এর বংশধর, আল্লাহ তাকে কিয়ামতের পূর্বে পাঠাবেন: ইবনে মাসউদ (রা:) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (ছাঃ) বলেন: পৃথিবীর জীবন সায়াহ্নে যদি একটি মাত্র দিন অবশিষ্ট থাকে, তবে সেই দিনটিকে আল্লাহ দীর্ঘ করে আমার পরিবারস্থ একজন ব্যক্তিকে প্রেরন করে ছাড়বেন, তার নাম আমার নাম এবং তার পিতার নাম আমার পিতার নাম সদৃশ হবে ৃ[তিরমিযী, আবুদাউদ]
আবু সাঈদ (রা:) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (ছাঃ) বলেন, মাহদী আমার বংশধর। উজ্জ্বল ললাট ও নত নাসিকা বিশিষ্ট। ন্যায় নিষ্ঠায় পৃথিবী ভরে দেবে, ঠিক যেমন ইতিপূর্বে অত্যাচার-অবিচার ভরে গিয়েছিল। সাত বৎসর রাজত্ব করবে” ৃ[আবুদাউদ]
আল্লাহ এভাবেই আরবদের মধ্যে দ্বীন প্রতিষ্ঠিত রাখবেন, আর আমাদের কাজ হচ্ছে তাদের পথ অনুস্মরণ করা, যেহেতু তারা হক্ক পথে আছে এবং কিয়ামতের আগ পর্যন্ত থাকবে ইনশাআল্লাহ।
মক্কা এবং মদিনা যেহেতু সৌদিদের হাতে তাই এটা হতে পারে না যে আল্লাহ তাদের থেকে দ্বীনের এলেম উঠিয়ে নিবেন। অন্য সকল স্থান থেকে দ্বীনের এলেম উঠে গেলেও সৌদি আরবে আল্লাহ দ্বীন প্রতিষ্ঠিত রাখবেন। পৃথিবীর সব থেকে বড় ফিতনা যা হচ্ছে দাজ্জালের ফিতনা তা কখনোই মক্কা এবং মদিনাতে প্রবেশ করতে পারবে না।
আনাস(রা:)থেকে বর্ণিত: নবী করীম (ছাঃ)বলেন,মক্কা-মদিনা ব্যতীত পৃথিবীর এমন কোন শহর নেই, যেখানে দাজ্জাল গিয়েপৌছবে না ৃ[বুখারী, মুসলিম]

আবু হুরায়রা (রা:) থেকে বর্ণিত, নবী করীম (ছাঃ) বলেন: এমন এক সময় আসবে, যখন মদিনার লোক নিকটাত্মীয়কে ডেকে বলতে থাকবে চল! উন্নত শহরে চলে যাই! আধুনিক নগরীতে গিয়ে বসবাস করি! অথচ মদিনাই তাদের জন্য সর্বোত্তম স্থান ছিল। আল্লাহর শপথ করে বলছি মদিনা বিরাগী হয়ে যখনই এখান থেকে কেউ চলে যাবে, আল্লাহ তার চেয়ে উত্তম মানুষ দিয়ে মদিনা আবাদ করে দেবেন। মদিনা একটি পবিত্র ভুমি, কপট বিশ্বাসীদের এখানে কোন স্থান নেই। কেয়ামত সংঘটিত হবে না, যতক্ষন না মদিনা সকল অনিষ্টকে বের করে দেবে, ঠিক যেমন কামারের হাপর লোহার আবর্জনাকে বের করে দেয় [মুসলিম]
তথা কথিত আলেম ও কিছু সংখ্যক লোক না জেনে সৌদি আলেম ও সৌদীদের সম্পর্কে নানান উক্তি করে থাকে, যা মোটেই ঠিক নয়। তারা বলে থাকে সৌদি আরবের মানুষেরা খারাপ। হাঁ,অবশ্যই কিছু সংখ্যক লোক খারাপ,কিন্তু তার থেকেও কি অধিক সংখ্যক লোক ভাল নয়। যদি পরিসংখ্যান নেয়া হয় তবে দেখা যাবে ভাল মানুষের অনুপাত বিশ্বের অন্যান্য দেশ অপেক্ষা সৌদি আরবে অনেক বেশি। আরবে এখনও হক্কানী আলেমগণের সহযোগীতায় কোরআন-হাদসি অনুসারণের মাধ্যমে শরীয়া আইন দ্বারা আইন ব্যবস্থা পরিচালিত হয়।
তোমাদের পালনকর্তা বলেন, তোমরা আমাকে ডাক, আমি সাড়া দেব। যারা আমরা এবাদতে অহংকার করে তারা সত্বরই জাহান্নামে প্রবেশ করবে অপমানিত অবস্থায় ৃ[সূরা গাফের,আয়াত-৬০]
এসকল ভ্রান্ত দল থেকে আমাদের আলেমেরা সাবধান করেছে। বলার অপেক্ষা রাখে না যে প্রত্যেক ভ্রান্ত দলেও বড় মাপের আলেম থাকে যারা মানুষকে জাহান্নামের পথে ধরে রাখে। নিজ দলের কাছে তারা বড় আলেম কিন্তু আরব আলেমদের কাছে তারা বড় আলেম নন, বরং তারা পথভ্রষ্ট।
তাই বলা যাবে না যে উনি আমাদের বড় আলেম এবং আসুন আমরা তাকে অন্ধ ভাবে মানি।আর আমরা যদি অন্ধ ভাবে কাউকে অনুস্মরণ করি তবে আমরা পথভ্রষ্ট হব এতে কোনো সন্দেহ নেই। কারন সাধারন মানুষ বুঝতে পারবে না কোন আলেমের আকিদা সঠিক এবং কোন আলেমের আকিদা ভুল।
মুহাম্মদ বিন আব্দুল্লাহ্ ক্বাহতানী। সৌদি আরবের রিয়াদে আত্মপ্রকাশ করে। স্বপ্নযোগে মাহদীত্ব (ইমাম মাহাদী) পেয়েছে বলে দাবী করলে একদল লোক তার হাতে বায়াআত গ্রহন করে। ১৯৮০ ইং সনে মক্কার মসজিদে হারামে তাকে অবরোধ করা হয় । হত্যার মধ্যদিয়ে অবরধের সমাপ্তি ঘটে। ঘটনাটি ফেতনায়ে হারাম নামে প্রসিদ্ধ।
আমাদের দেশের অনেকেই বিশ্বাস করে স্বপ্নের মাধ্যমে কোন কিছু হাছিল করলে নিশ্চয়ই তা ভাল।কিন্তু তারা এটা ভাবে না যে তা ভাল নাও হতে পারে। যা আমরা উপরের ঘটনা থেকে বুঝতে পারি। একজন দাবি করল সে স্বপ্নযোগে মাহদীত্ব পেয়েছে কিন্তু তা হচ্ছে সম্পূর্ণ একটি মিথ্যা বা শয়তানের ধোঁকা ছাড়া অন্য কিছু নয়। ঘটনাটি ফেতনায়ে হারাম নামে প্রসিদ্ধ।
আমাদের দেশের অনেকেই বিশ্বাস করে স্বপ্নের মাধ্যমে কোন কিছু হাছিল করলে নিশ্চয়ই তা ভাল।কিন্তু তারা এটা ভাবে না যে তা ভাল নাও হতে পারে। যা আমরা উপরের ঘটনা থেকে বুঝতে পারি। একজন দাবি করল সে স্বপ্নযোগে মাহদীত্ব পেয়েছে কিন্তু তা হচ্ছে সম্পূর্ণ একটি মিথ্যা বা শয়তানের ধোঁকা ছাড়া অন্য কিছু নয়।

main sourse- https://www.facebook.com/groups/islamicask/permalink/1283230778396404/