একটি জাল তাফসীর

কেউ জাল হাদীস মানে আবার কেউ সহীহ হাদীস মানে দাবী করলেও জাল তাফসীর মানে। যেমন: একটি জাল তাফসীর হলো: “তোমাদের উপর জামাআতী যিন্দেগী ফরয করা হল।” জামাআতী যিন্দেগী মানে কি? নতুন করে দল তৈরী করে দলাদলী করা অথচ কুরআনে দলাদলী নিষেধ করা হয়েছে। জামাআত শব্দের বাংলা কি জামাআতী, সঠিক বাংলা শব্দ কি? যিন্দেগী শব্দ কোথা থেকে আসলো? যিন্দেগী শব্দের বাংলা কি? ফরয শব্দ কোথা থেকে আসলো? ইহা ১০০% জাল তাফসীর তাতে কোন সন্দেহ নাই। তাহলে সঠিক অনুবাদ কি?
রাসূলুল্লাহ (ﷺ) বলেন, عَلَيْكُمْ بِالْجَمَاعَةِ ، وَإِيَّاكُمْ وَالْفُرْقَةَ
“তোমরা জামাআত (ঐক্য) আকড়ে ধরে থাকবে এবং দলাদলি বা বিচ্ছিন্নতা থেকে সাবধান থাকবে।”
কিংবা অনুবাদ হতে পারে;
“তোমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে থাকবে আর সাবধান, দলে দলে বিভক্ত হয়ো না।” (তিরমিযী হা/২৪৬৫)।

আল্লাহ বলেন,
وَاعْتَصِمُوا بِحَبْلِ اللهِ جَمِيعًا وَّلاَ تَفَرَّقُوا
‘তোমরা সকলে সমবেতভাবে আল্লাহর রজ্জুকে ধারণ করো এবং তোমরা বিচ্ছিন্ন হয়ো না’ (আলে ইমরান ৩/১০৩)।
নু‘মান বিন বাশীর (রাঃ) হ’তে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এরশাদ করেন,
الْجَمَاعَةُ رَحْمَةٌ وَالْفُرْقَةُ عَذَابٌ
‘ঐক্য রহমত এবং বিচ্ছিন্নতা আযাব’। (আহমাদ হা/১৮৪৭২; ছহীহাহ হা/৬৬৭; ছহীহুল জামে‘ হা/৩১০৯)


comments-

মোহাম্মদ সাইদুর রহমানহাদীসটি হলো: নু‘মান বিন বাশীর (রাঃ) হ’তে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ (ﷺ) এরশাদ করেন,
الْجَمَاعَةُ رَحْمَةٌ وَالْفُرْقَةُ عَذَابٌ
‘ঐক্য রহমত এবং বিচ্ছিন্নতা আযাব’। (আহমাদ হা/১৮৪৭২; ছহীহাহ হা/৬৬৭; ছহীহুল জামে‘ হা/৩১০৯)

 

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s