বাপ দাদাৰ দোহাই দি ইছলাম নচলে,

From Afzal hussain

★★বাপ দাদাৰ দোহাই দি ইছলাম নচলে,★
১. বাপ-দাদাসকলে ইমান দিনে ভুল কৰি আহিছে নেকি?
২. অধিকাংশ মানুহেই কি ভুল কৰি আহিছে?
৩. ইমান ডাঙৰ ডাঙৰ আলিমেতো এনেকৈয়েই আ’মল কৰি আহিছে! তেওঁলোকে কি ভুল কৰি
আছে?
• মূলতঃ এই তিনিটা কাৰণতে
মানুহে কুৰআন আৰু
ছহীহ হাদীছৰ দাওৱাতক পৰিত্যাগ কৰে।
“অধিকাংশ” কোনো দলীল নহয়। দলীল হ’ল কুৰআন
আৰু ছহীহ হাদীছ।
অধিকাংশৰ বিষয়ে আল্লাহ্ তা’আ়ালাই
কুৰআনত কৈছে–
• “অধিকাংশ মানুহ প্রকৃত
বিষয় সম্পর্কে অৱগত নহয়” [ছুৰা ইউচুফ : ৬৮]
• “অধিকাংশই নির্বোধ” [ছুৰা মায়িদাহ : ১০৩]
• “অধিকাংশ লোকেই অৱগত নহয়” [ছুৰা আনআম : ৩৭]
• “অধিকাংশই অজ্ঞ” [ছুৰা
আনআম : ১১১]
• “অধিকাংশই নাজানে” [ছুৰা আৰাফ : ১৩১]
• “তুমি যিমানেই প্রবল আগ্রহেৰে নোচোৱা কিয়,
মানুহৰ অধিকাংশই ঈমান আনিব নোখোজে” [ছুৰা ইউচুফ :
১০৩]
• “আমি তোমাৰ ওচৰত সুস্পষ্ট আয়াত নাজিল
কৰিছো, ফাছিকসকলৰ বাহিৰে আন কোনেও
তাক অস্বীকাৰ
নকৰে; বৰং তেওঁলোকৰ
অধিকাংশই ঈমান
নাৰাখে” [ছুৰা বাকাৰাহ
: ৯৯-১০০]
• “আমিতো তোমালোকৰ
ওচৰলৈ সত্য লৈ গৈছিলো, কিন্তু, তোমালোকৰ অধিকাংশই আছিল সত্য
অপছন্দকাৰী” [ছুৰা যুখৰুফ : ৭৮]
• “সিহঁতৰ অধিকাংশকেই
আমি প্রতিশ্রুতি পালনকাৰী হিচাবে পোৱা নাই, বৰং
অধিকাংশ ফাচিকেই পাইছো” [ছুৰা আৰাফ : ১০২]
• “তুমি যদি পৃথিৱীৰ
অধিকাংশ লোকৰ
অনুসৰণ কৰা তেনেহলে সিহঁতে তোমাক আল্লাহৰ
পথৰ পৰা পথভ্ৰষ্ট কৰি
পেলাব, সিহঁতে কেৱল
আন্দাজ-অনুমানৰ অনুসৰণ
কৰি চলে; সিহঁত মিছলীয়াৰ বাহিৰে আন একোৱেই নহয়” [ছুৰা
আনআম : ১১৬]
• ‘’সিহঁতৰ অধিকাংশই
কেৱল ধাৰণাৰ অনুসৰণ
কৰে; সত্যৰ মোকাবেলাত
ধাৰণা কোনো কামত নাহে’’ [ছুৰা ইউচুফ : ৩৬]
• “অধিকাংশ মানুহে আল্লাহক বিশ্বাস কৰে, কিন্তু লগতে শ্বিৰ্কও কৰে’’ [ছুৰা ইউচুফ : ১০৬]
• “আমি তোমালোকক নজনামনে চয়তানবোৰ কাৰ ওচৰত অৱতীর্ণ হয়?
সিহঁত অৱতীর্ণ হয়
প্রত্যেকজন চৰম মিথ্যাবাদী আৰু পাপীষ্ঠৰ ওচৰত। সিহঁতে কাণ পাতি থাকে আৰু তেওঁলোকৰ অধিকাংশই
মিথ্যাবাদী’’ [ছুৰা শু’আৰা :
২২১-২২৩]
• “সিহঁতে সিহঁতৰ পিতৃ-
পুৰুষসকলক বিপথগামী
পাইছিল। তাৰ পিছতো
সিহঁতৰেই পদাংক অনুসৰণ
কৰি গৈ আছিল। তেওঁলোকৰ আগৰ লোকসকলৰো
অধিকাংশই গুমৰাহ হৈ আছিল” [ছুৰা চাফফাত : ৬৯-৭১]
আৰবী ভাষাত কুৰআন,
জ্ঞানসম্পন্ন মানুহৰ কাৰণে
সু-সংবাদবাহী আৰু
সাৱধানকাৰী। কিন্তু সিহঁতৰ
অধিকাংশই (এই কুৰআনৰ
পৰা) মুখ ঘূৰাই নিছে, গতিকে সিহঁতে নুশুনে” [ছুৰা
ফুচচিলাত : ১-৪]
গতিকে হে আমাৰ মুছলিম
ভাইসকল আহক আমি
“অধিকাংশৰ” অজুহাত
বাদ দি “কুৰআন”
আৰু “ছহীহ হাদীছৰ” অনুসৰণ
কৰো।

++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++

যেতিয়াই আপুনি সমাজত প্রচলিত কোনো শির্ক বা বিদ’আত আমলক ধৰি দিব, তেতিয়াই কিছুলোকে এনেকৈ ক’ব:-

-বাপ-দাদাসকলে কি ইমান দিন ভুল কৰি আহিছিল?
-ইমান ডাঙৰ ডাঙৰ আলেম/মুফতি/হুজুৰেটো এনেকৈয়েই আমল কৰি আহিছে! তেওঁলোকো ভুল?
-অধিকাংশ মানুহেইটো এই আমল কৰিছে, সব ভুল আৰু বে’দাত?
-ইমান ডাঙৰ হুজুৰে মাজাৰত শির্ক কৰিছে ?
-আমাৰ বাপ দাদাই কি নেজানিছিল?
-আৰে এইবোৰটো ফেতনা, আমি হকত আছো!
-আমাৰ হুজুৰসকলে কি কম বুজে?

Note:- তেওঁলোকে কোৰআন সহীহ হাদীসৰ কোনো দলিলদি কথা নকয়। তেওঁলোকে নাজানে অধিকাংশই কোনো দলিল নহয়, দলিল হ’ল কোৰআন ও সহীহ হাদীস। কিন্তু মহান আল্লাহ তা’লই ইয়াৰ উত্তৰদি থৈছে।।-sgis-

+++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++

হক গ্রহন করতে মানুষ যে সকল বাঁধার সম্মুখীন হয় তা হলো :—-
————-
বাপ-দাদারা কি এতদিন ভুল করে আসছন?
এত বড় বড় আলেম তো এভাবেই আমল করে আসছেন! তারাও ভুল?
অধিকাংশ মানুষই তো এই আমল করছে, সবাই ভুল?
এত বড় বড় হুজুর এ আমল করছে, তা কি ভুল ?
এত লোক অমুক আমল করছে , তা কি আর বিদআত হয় ?
এত বড় হুজুর মাজারে শিরক করছে ?
আমাদের বাপ দাদা কি জানত না ?
আরে এগুলো তো ফেৎনা, আমরা সবাই হক!
আমাদের হুজুরেরা কি কম বুঝে?

যখনই আপনি সমাজে প্রচলিত কোন কোন শিরক বা বিদ’আত আমলকে ধরিয়ে দিবেন, তখনই কিছু লোক এসব কথা বলে। তারা কোরআন হাদীসের কোন দলির দিয়ে কথা বলবে না। তারা জানে না অধিকাংশ কোন দলিল নয়, দলিল হলো কোরআন ও সহীহ হাদীস। কিন্তু দেখুন মহান আল্লাহ কি বলেছেন,
অধিকাংশই নির্বোধ। [মায়িদাহ ১০৩]
অধিকাংশ লোকই অবগত নয়। [আনআম ৩৭]
অধিকাংশই অজ্ঞ [আনআম ১১১]
অধিকাংশই জানে না [আরাফ ১৩১]
তুমি যতই প্রবল আগ্রহ ভরেই চাও না কেন, মানুষদের অধিকাংশই ঈমান আনবে না [ইউসুফ ১০৩]
তুমি যদি পৃথিবীর অধিকাংশ লোকের অনুসরন কর তাহলে তারা তোমাকে আল্লাহর পথ হতে বিচ্যুত করে ফেলবে, তারা কেবল আন্দাজ-অনুমানের অনুসরন করে চলে; তারা মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই করে না [আনআম ১১৬]
তাদের অধিকাংশই কেবল ধারনার অনুসরন করে; সত্যের মুকাবালায় ধারনা কোন কাজে আসে না [ইউসুফ ৩৬]
অধিকাংশ মানুষ আল্লাহ্তে বিশ্বাস করে, কিন্তু সাথে সাথে শিরকও করে। [ইউসুফ ১০৬]
আমি কি তোমাদের জানাব কাদের নিকট শয়তানরা অবতীর্ণ হয়? তারা অবতীর্ণ হয় প্রত্যেকটি চরম মিথ্যুক ও পাপীর নিকট। ওরা কান পেতে থাকে আর তাদের অধিকাংশই মিথ্যাবাদী [শু’আরা ২২১-২২৩]
তারা তাদের পিতৃ- পুরুষদের বিপথগামী পেয়েছিল। অতঃপর তাদেরই পদাংক অনুসরন করে ছুটে চলেছিল। এদের আগের লোকদের অধিকাংশই গুমরাহ হয়ে গিয়েছিল‌ [সাফফাত ৬৯-৭১]
.
সুতরাং অধিকাংশ মানুষ গোমড়াহীতে থাকলেই সেটা হক্ব হয়ে যায় না। হক্ব সেটাই যেটা কোরআন আর সহীহ হাদীসে আছে সেটা।
.
আল্লাহ আমাদের হ্ক দ্বীন চেনার, বোঝার এবং মানার তৌফিক দান করুন,,,,,, আমীন।
—————-

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s