সম্মানিত শাইখ, আপনারা নবীর ওয়ারিশ?

সম্মানিত শাইখ,
আপনারা নবীর ওয়ারিশ। আপনারা তো জানেন, আল্লাহপাক বলেছেন,

‘আর এভাবেই আমি প্রত্যেক নবীর শত্রু করেছি মানুষ ও জিনের মধ্য থেকে শয়তানদেরকে, তারা প্রতারণার উদ্দেশ্যে একে অপরকে চাকচিক্যপূর্ণ কথার কুমন্ত্রণা দেয় এবং তোমার রব যদি চাইতেন, তবে তারা তা করত না। সুতরাং তুমি তাদেরকে ও তারা যে মিথ্যা রটায়, তা ত্যাগ কর।’

সুরা আনআম (চতুস্পদ জন্তু) (6:112)

প্রত্যেক নবীর শক্ররা তাঁদের সাথে কোন দুনিয়াবি কারনে শত্রুতা করেনি। করেছে তাওহিদের কারনে। আপনারা নবীদের ওয়ারিশ। আপনাদের শক্র কে? কার সাথে তাওহিদের কারনে আপনাদের শত্রুতা? কারো সাথে নাই।
তাগুত, সুদখোর, ঘুষখোর, মুরতাদ, মুনাফিক সকলেই তাদের ব্যবসা প্রতিস্টানের মিলাদে, কুলখানিতে ইত্যাদিতে আপনাকে ডাকে। আপনি দুয়া করে টাকা নিয়ে চলে আসেন।
আপনার কুরআন হাদিস ফিকহ আপনার কন্ঠ পর্যন্তই থাকে, এদের কিংবা কারো সামনে বের হয় না।
মাদ্রাসার সিলেবাসে যতটুকু আছে প্রতি বছর বেছে বেছে তাই পড়ান।
মসজিদ কমিটি যেভাবে চায় সেভাবেই খুৎবা দেন।

আপনার কোন শত্রু নেই। অথচ শত্রু ছিল প্রত্যেক নবীর। তবু আপনারা নবীর ওয়ারিশ।
মেনে নিলাম।
আল্লাহকে বাদ দিয়ে মসজিদ কমিটি আর তাগুতকে রিজিকদাতা মেনে নেয়া আলিমদেরকেই আমাদের নবীর ওয়ারিশ মেনে নিতে হবে, স্বাভাবিক, কারন আমরা নিজেরাও অন্তরের এক ভয়ংকর রোগে আক্রান্ত।
মৃত্যুও আমাদের স্পর্শ করে না। নিজের বাবা, মা, ভাই, বোনের মৃত্যুতেও আমরা ঠিক ঠাহর করতে পারিনা যে, কিছুক্ষণ আগে যার সাথে এক ছাদের তলে থেকেছি, হেসেছি;কেঁদেছি, এখন তাকে একটি পরিত্যক্ত স্থানে মাটিচাপা দিয়ে এলাম, কিছুক্ষণ বাদে আমি নিজেও সেখানে কবরস্থ হতে যাচ্ছি… আমরা জাস্ট বুঝিনা। অবশ্যাম্ভাবী আখিরাতকে আমরা সবসময় কবরস্থানেই আটকে রাখতে চাই।

আমরা সকলেই পথহারা শাইখ। দলে দলে মানুষ জাহান্নামের হিংস্র ক্রুদ্ধ ধ্বংসাত্মক শাস্তিতে ঝাপ দেয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে।
আমাদের শাসক, আমাদের মিডিয়া, আমাদের সংস্কৃতি, আমাদের চেতনা এবং আমাদের লক্ষ্য – সবই সেই কৃষ্ণ-তপ্ত-আর্তনাদময় আগুনের দিকে আহবান করছে। আমাদের জাতিসত্তার কোন ক্যালকুলেশনে আল্লাহর হুকুমের ইনফ্লুয়েন্স নেই, যেমনটি ছিল না আদ, সামুদ জাতির। আমরা কি অধোবদনে তাদের সেই অনুরুপ ধ্বংসের অপেক্ষায় প্রহর গুনবো?

আমাদের পথ দেখান শাইখ, পথ দেখান।
আল্লাহপাক আপনার ওপর ও আমাদের ওপর রহম করুন।

++++++++

আপোনালোক নবীৰ ওয়াৰিশ। আপোনালোকৰ শক্র কোন? কাৰ লগত তাওহিদৰ কাৰণে আপোনালোকৰ শত্রুতা? কাৰো লগতেই শক্রতা নাই।
তাগুত, সুদখোৰ, ঘুষখোৰ, মুৰতাদ, মুনাফিকসকলে তেওঁলোকৰ ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানৰ  মিলাদ, কুলখানি ইত্যাদিলৈ আপোনাক মাতে। আপুনিও দুৱা কৰি টকালৈ গুছিআহে।
কোৰআন হাদিস ফিকহ আপনাৰ কন্ঠষ্ঠ  থাকে, এইবোৰ কিন্তু  কাৰো ওচৰত বাহিৰ নহয়।
মাদ্রাসাৰ সিলেবাসত যিখিনি আছে প্রতি বছৰে বাছি বাছি তাক পঢ়ুৱায়।
মসজিদ কমিটিয়ে যিভাবে বিছাৰে সেইভাবেই খুৎবা দিয়ে।

আপনাৰ কোনো শত্রু নাই। অথচ শত্রু আছিল প্রত্যেক নবীৰ। তথাপিও আপনালোক নবীৰ ওয়াৰিশ।
মেনে নিলাম।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s