প্রত্যেকটো এবাদতৰ কাৰণে আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰছুলৰ(ছঃ) এপ্রোভেলৰ প্রয়োজন

=এবাদতৰ বাবে এপ্রোভেলৰ প্রয়োজন=

ইছলামত ছালাতৰ কথাতো বাদেই, প্রত্যেকটো এবাদতৰ কাৰণে আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰছুলৰ(ছঃ) এপ্রোভেলৰ প্রয়োজন। নহলে আল্লাহ তা’লাৰ ওচৰত সেই এবাদত গ্রহনযোগ্য হবও পাৰে অথবা নহবও পাৰে। এনে আনএপ্রোভদ বহুত ভাল ভাল দোৱা আছে। যেনেঃ- এটা সুন্দৰ দুআ আছে যিটো আপুনি তাশাহুদত দুআ মাসুৰা হিসাবে পঢ়িব পাৰে বুলি কোৱা হয়, সেইটো হল –

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ صِحَّةً فِي إِيمَانٍ، وَإِيمَانًا فِي حُسْنِ خُلُقٍ، وَنَجَاحًا يَتْبَعُهُ فَلَاحٌ، وَرَحْمَةً مِنْكَ وَعَافِيَةً،

وَمَغْفِرَةً مِنْكَ وَرِضْوَانًا
”হে আল্লাহ ! আমি তোমাৰ ওচৰত ঈমানত স্বচ্ছতা, অনুপম আদর্শ, সাফল্যৰ পিছত সাফল্য, তোমাৰ পক্ষৰ পৰা ৰহমত, তোমাৰ পক্ষৰ পৰা নিৰাপত্তা, তোমাৰ পক্ষৰ পৰা ক্ষমা ও তোমাৰ সন্তুষ্টি কামনা কৰিছো”।
(মাজমু আল-আওসাত ৯৩৩৩; মুস্তাদৰাক হাকেম ১৯১৯; দুআ কাবীৰ বায়হাক্বী ২২৫)

কিন্তু দুঃখৰ বিষয়যে হাদীছৰ সনদত আছে আব্দুল্লাহ ইবনু আল-ওয়ালীদ, যি এজন যঈফুল হাদীছ। আলবানী (ৰহ) হাদীছটোক যঈফ বুলি কৈছে। (যঈফাহ ২৯১১; যঈফুল জামে ১১৯৫)

–এতিয়া এই যঈফ সনদত বর্ণিত এই দুআ আমি ছালাত(নামাজ)ত পাৰিম নে নোৱাৰো সেয়া এক চিন্তাৰ বিষয়।এনে যঈফ হাদীছত আকীদাগত সমস্যাৰ পূর্ণ সম্ভৱনা থাকে। গতিকে যঈফ হাদীছৰ পৰা আতৰত থকা ভাল।–SGIS-

————————————–

ইছলামত ছালাতৰ কথাতো বাদেই, প্রত্যেকটো এবাদতৰ কাৰণে আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰছুলৰ(ছঃ) এপ্রোভেলৰ প্রয়োজন। নহলে আল্লাহ তা’লাৰ ওচৰত সেই এবাদত গ্রহনযোগ্য হবও পাৰে অথবা নহবও পাৰে। এনে আনএপ্রোভদ বহুত ভাল ভাল দোৱা আছে। যেনে-(বাংলাত)ঃ- একটি সুন্দর দুআ আছে যা আপনি তাশাহুদে দুআ মাসুরা হিসাবে পড়তে পারেন, যেটা হল –
اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ صِحَّةً فِي إِيمَانٍ، وَإِيمَانًا فِي حُسْنِ خُلُقٍ، وَنَجَاحًا يَتْبَعُهُ فَلَاحٌ، وَرَحْمَةً مِنْكَ وَعَافِيَةً، وَمَغْفِرَةً مِنْكَ وَرِضْوَانًا
হে আল্লাহ ! আমি তোমার নিকট ঈমানে স্বচ্ছতা, অনুপম আদর্শ, সাফল্যের পর সাফল্য, তোমার পক্ষ থেকে রহমত, তোমার পক্ষ থেকে নিরাপত্তা, তোমার পক্ষ থেকে ক্ষমা ও তোমার সন্তুষ্টি কামনা করছি।

(মাজমু আল-আওসাত ৯৩৩৩; মুস্তাদরাক হাকেম ১৯১৯; দুআ কাবীর বায়হাক্বী ২২৫)

কিন্তু দুঃখের বিষয় হাদীছের সনদে আছেন আব্দুল্লাহ ইবনু আল-ওয়ালীদ, যিনি একজন যঈফুল হাদীছ। আলবানী (রহ) হাদীছটিকে যঈফ বলেছেন। (যঈফাহ ২৯১১; যঈফুল জামে ১১৯৫)

এখন এই যঈফ সনদে বর্ণিত এই দুআ আমরা ছালাতে পড়তে পারি কিনা তাই নিয়ে চিন্তায় আছি। যদিও শাইখ আব্দুল হামীদ ফাইজি বলেছেন “পড়তে পারেন তবে এটা রাসুল (সাঃ) এর সুন্নাহ হিসাবে ভাবলে হবে না।”-

[NB:- ইমাম আহমদসহ আহলুস সুন্নাহর অনেক মুহাদ্দিসের বক্তব্য হল,দু’আ,তারগীব,তারহীবের ক্ষেত্রে যদি হাদিস যঈফু জিদ্দান বা মুনকার অর্থাৎ অন্য কোন গ্রহণযোগ্য হাদিসবিরোধী না হয়,বা আকীদাগত সমস্যা না থাকে,তবে সেগুলোতে আমল করায় দোষ নেই।কেবল,ওগুলোকে সুন্নাহ ভাবা যাবে না।]-sgis.

 

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s