[৪]-কোৰআন আৰু শ্বহী হাদিছ অনুসৰি হজ্জ ও ওমৰাহ-

Hajj-HD-pics

[৪]-কোৰআন আৰু শ্বহী হাদিছ অনুসৰি হজ্জ ও ওমৰাহ-
-সংগ্রহ,সম্পাদনা আৰু সংকলনত-
-চৈয়দ চ’গুদ ইছলাম-[২২.০৮.২০১৬]-
———————————————-
১০]-হাজাৰে আসওয়াদ ও ত্বাওয়াফ(الحجر الأسود والطواف) :-ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, ‘যি ব্যক্তিয়ে ৰুক্নে ইয়ামানী ও হাজাৰে আসওয়াদ (কলা পাথৰ) স্পর্শ কৰিব, তেওঁৰ সকলো গোনাহ সৰি পৰিব’।[24] তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘যি ব্যক্তি বায়তুল্লাহৰ সাতটি ত্বাওয়াফ কৰিব ও শেষত দুই ৰাকাত ছালাত আদায় কৰিব, তেওঁ যেন এটা গোলাম আযাদ কৰিলে’। ‘এই সময়ত প্রতি পদক্ষেপত এটাকৈ গোনাহ সৰি পৰে আৰু এটাকৈ নেকী লেখা হয়’।[25] তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘ত্বাওয়াফ হ’ল ছালাতৰ দৰে। গতিকে এই সময়ত প্রয়োজনত সামান্য নেকীৰ কথা কোৱা হ’ব’।[26]
তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘আল্লাহে ক্বিয়ামতৰ দিনা হাজাৰে আসওয়াদক উঠাব, এই অবস্থাতযে, তাত দু’টি চকু থাকিব, যাৰ দ্বাৰা সি দেখিব ও এখন কথা কব পৰা মুখ থাকিব, যাৰ দ্বাৰা সি কথা ক’ব আৰু সেই ব্যক্তিৰ বাবে সাক্ষী দিব, যি ব্যক্তিয়ে খালেছ অন্তৰে তাক স্পর্শ কৰিছিল’।[27]
ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, ‘হাজাৰে আসওয়াদ’ প্রথমে গাখীৰ বা বৰফৰত কৈয়ো বগা ও মিহি অবস্থাত জান্নাতৰ পৰা অবতীর্ণ হৈছিল। পিছত বনু আদমৰ(বংশধৰ) পাপ সমূহে তাক কলা কৰি দিয়ে’।[28]
–মনত ৰখা উচিতযে, পাথৰৰ নিজস্ব কোনো ক্ষমতা নাই। আমি কেৱলমাত্র ৰাসূলৰ(ছাঃ) সুন্নাতৰ ওপৰত আমল কৰিম। যিদৰে ওমৰ ফাৰুকে (ৰাঃ) উক্ত পাথৰত চুমা দিয়াৰ সময়ত কৈছিলে,
إِنِّىْ لَأَعْلَمُ أَنَّكَ حَجَرٌ مَا تَنْفَعُ وَلاَ تَضُرُّ، وَلَوْلاَ أَنِّيْ رَأَيْتُ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عليه وسَلَّمَ يُقَبِّلُكَ مَا قَبَّلْتُكَ، متفق عليه-
‘মই জানোযে, তুমি এটা পাথৰ মাত্র। তুমি কোনো উপকাৰ বা ক্ষতি কৰিব নোৱাৰা। সেয়েহে আমি যদি আল্লাহৰ ৰাসূলক(দঃ) নেদেখিলো হেতেঁন তোমাক চুমা দিয়া, তেতিয়া হ’লে মই তোমাক চুমা নিদিলো হেতেঁন।[29]ওমৰ ফাৰুক (ৰাঃ) উক্ত পাথৰত চুমা খাইছিলে আৰু কান্দিছিল’।[30]
১১]-. যমযম পানি (ماء زمزم):- ত্বাওয়াফৰ শেষত দুই ৰাকাত ছালাতৰ অন্তত মাত্বাফৰ পৰা ওলায়েই ওচৰৰ যমযম কুৱা এলাকাত প্রবেশ কৰিব আৰু তাতেই যমযমৰ পানী বিসমিল্লাহ বুলি ঠিয়হৈ পান কৰিব ও কিছু মূৰত দিব।[31] যমযম পানী পান কৰাৰ সময়ত ইবনু আব্বাসৰ(ৰাঃ)পৰা বর্ণিত বিশেষ দো‘আ পাঠ কৰাৰ যি প্রচলিত হাদীছটি আছে,সেইটো যঈফ।[32] ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ) কৈছিল,خَيْرُماءٍ عَلَى وَجْهِ الْأَرْضِ مَاءُ زَمْزَمَ، فِيْهِ طَعَامٌ مِِّنَ الطُّعْمِ وَشِفَاءٌ مِّنَ السُّقْمِ ‘ভূপৃষ্ঠত উৎকৃষ্ট পানী হ’ল যমযমৰ পানী। ইয়াত আছে পুষ্টিকৰ খাদ্য আৰু ৰোগৰ পৰা আৰোগ্য’।[33] অন্য বর্ণনাত আহিছে إِنَّهَا مُبَارَكَةٌ ‘ই বৰকত মন্ডিত’।[34] ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, এই পানী কোনো ৰোগৰ পৰা আৰোগ্যৰ উদ্দেশ্যে পান কৰিলে তোমাক আল্লাহে আৰোগ্য দান কৰিব’।[35] বস্ত্ততঃ যমযম হ’ল আল্লাহৰ বিশেষ অনুগ্রহত সৃষ্ট এক অলৌকিক কুৱা। যিটো শিশু ইছমাইল(আঃ) ও তেওঁ মাক হাজেৰাৰ জীবন ৰক্ষার্থে আৰু পৰবর্তীত মক্কাৰ আবাদ ও শেষনবী (ছাঃ)-ৰ আগমন স্থল হিচাবে গঢ়ি তোলাৰ উদ্দেশ্যে সৃষ্টি হৈছিল।[36]
——————————————-
NOTE:-
[24]. ছহীহ ইবনু খুযায়মা হা/২৭২৯; ছহীহ নাসাঈ হা/২৭৩২।
[25]. তিৰমিযী ও অন্যান্য, মিশকাত হা/২৫৮০।
[26].তিৰমিযী, নাসাঈ, মিশকাত হা/২৫৭৬; ইৰওয়া হা/১১০২।
[27]. তিৰমিযী, ইবনু মাজাহ, দাৰেমী, মিশকাত হা/২৫৭৮।
[28]. তিৰমিযী, মিশকাত হা/২৫৭৭; ছহীহ ইবনু খুযায়মা হা/২৭৩৩।
[29]. মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/২৫৮৯।
[30]. বায়হাক্বী ৫/৭৪ পৃঃ, সনদ জাইয়িদ।
[31]. মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/৪২৬৮; আহমাদ (কায়ৰো, তাবি) হা/১৫২৮০ সনদ ছহীহ, আৰনাঊত্ব; ক্বাহত্বানী পৃঃ ৯৩।
[32]. ইৰওয়া ৪/৩৩২-৩৩ পৃঃ হা/১১২৬-ইয়াৰ আলোচনা দ্রঃ।
[33]. ত্বাবাৰাণী আওসাত্ব হা/৩৯১২; ছহীহাহ হা/১০৫৬।
[34]. আহমাদ, মুসলিম; ছহীহাহ হা/১০৫৬।
[35]. দাৰাকুৎনী, হাকেম, ছহীহ তাৰগীব হা/১১৬৪।
[36]. ছহীহ বুখাৰী হা/৩৩৬৪; দ্রঃ লেখক প্রণীত ‘নবীদেৰ কাহিনী’ ১/১৩৪-৩৫ পৃঃ।
[N.B-to be translate]-‘যমযম’ (زمزم) : ১৮ ফুট দৈর্ঘ, ১৪ ফুট প্রস্থ ও অন্যূন ৫ ফুট গভীরতার এই ছোট্ট কুয়াটি অত্যাশ্চর্য বৈশিষ্ট্যমন্ডিত। বিগত প্রায় চার হাযার বছরের অধিককাল ধরে এই কুয়া থেকে দৈনিক হাযার হাযার গ্যালন পানি মানুষ পান করছে ও সুস্থতা লাভ করছে। কিন্তু কখনোই পানি কম হ’তে দেখা যায়নি বা নষ্ট হয়নি। বিজ্ঞানীরা বহু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অবশেষে এ পানির অলৌকিকত্ব স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন। ইউরোপীয় বিজ্ঞানীদের ল্যাবরেটরী রিপোর্ট এই যে, এ পানিতে ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম সল্টের আধিক্যের কারণেই পানকারী হাজীদের ক্লান্তি দূর হয়। অধিকহারে ফ্লোরাইড থাকার কারণে এ পানিতে কোন শেওলা ধরে না বা পোকা জন্মে না’। অথচ দেড় হাযার বছর আগেই নিরক্ষর নবী মুহাম্মাদ (ছাঃ) এ পানির উচ্চগুণ ও মর্যাদা সম্পর্কে বর্ণনা করে গেছেন(দ্রঃ মাসিক আত-তাহরীক, রাজশাহী ৪/৭ সংখ্যা, এপ্রিল ২০০১, পৃঃ ১৭-১৮)।
Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s