তাশাহ্‌হুদে বসে শাহাদাৎ আঙ্গুল উঠানোঃ

তাশাহ্‌হুদে বসে শাহাদাৎ আঙ্গুল উঠানোঃ
===========================
প্রশ্নঃ আমরা এতকাল তাশাহ্‌হুদে বসে শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা একবার ইশারা করা শিখে আসছি। আপনারা দেখছি আঙ্গুল নাড়াতেই থাকেন, নাড়াতেই থাকেন! এর কাহিনী (দলিল) কি?

উত্তরঃ
======
তাশাহ্‌হুদে বসে শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা একবার ইশারা করা আমরাও এতকাল করেছি। কিন্তু এখন আমরা দেখতে পাই একবার ইশারা করার কোন দলিল নেই। এমনকি এর পক্ষে কোন জাল হাদীসও নেই।

আঙ্গুল কখন উঠাতে হবে এই নিযেও আমরা এতকাল ভুলের মধ্যে ছিলাম। প্রচলিত নামাজ শিক্ষার বইগুলোতে উল্লেখ আছে ‘লা ইলাহা’ বলার সময় আঙ্গুল উঠাতে হবে।। কিছু কিছু বইতে আছে ‘ইল্লাল্লাহ’ বলার সময় আঙ্গুল উঠাতে হবে। এগুলো সবই ব্যক্তি মতামত। সহীহ হাদীসে এগুলোর কোন দলিল নেই। সহীহ সনদ তো দূরের কথা জঈফ বা জাল সনদেও নেই।
অনুরূপভাবে আঙ্গুল উঠিয়ে আবার রেখে দেওয়ার কোন ভিত্তি নেই। বরং সহীহ হাদীস দ্বারা প্রমানীত যে, সালাম পর্যন্ত আঙ্গুল নাড়াতে হবে।[১]

উল্লেখ্য অনেকে আঙ্গুর উঠিয়ে রাখে কিন্তু ইশারা করে না। এটাও ঠিক নয়। কারন উক্ত মর্মে যে হাদীসটি আছে তা জঈফ।
আব্দুল্লাহ বিন যুবায়ের (রাঃ) বলেন,
-“রাসুলুল্লাহ ﷺ যখন দু’আ করতেন তখন আঙ্গুল দ্বারা ইশরা করতেন। কিন্তু নাড়াতেন না।”[২]
→তাহক্বীকঃ বর্ননাটি জঈফ।[৩]
‘আঙ্গুল নাড়াতেন না’ এই অংশটুকু সহীহ হাদীসে নেই। বরং আঙ্গুল নাড়ানোর পক্ষেই সহীহ হাদীস রয়েছে। রাবী ওয়ায়েল বিন হুজুর বলেন, আমি দেখতাম তিনি আঙ্গুল নাড়িয়ে দা’আ করতেন।[৪]

ইবনু আবযা(রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসুল ﷺ সালাতে শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করতেন।[৫]

►অতএব তাশাহ্‌হুদ পড়ার সময় করনীয়গুলো হলো-
√ রাসুল ﷺ যখন তাশাহ্‌হুদে বসতেন, তখন দু’আ করতেন। তিনি ডান হাত ডান উরুর উপর এবং বাম হাত বাম উরুর উপর রাখতেন। আর শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করতেন এবং বৃদ্ধা আঙ্গুল মধ্যমা আঙ্গুলের উপর রাখতেন। আর বাম হাতের পাতা দ্বারা বাম হাঁটু চেপে ধরতেন।[৬]
√ শুরু করে শেষ পর্যন্ত কিংবা শেষ বৈঠক সালাম ফিরানো পর্যন্ত হাতের শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা সর্বদা ইশারা করতে হবে।
√ এসময় দৃষ্টি থাকবে আঙ্গুলের মাথায়।[৭]
√ দুই তাশাহ্‌হুদেরই ইশারা করতে হবে।[৮]
√ আরবী তিপ্পান্নের ন্যায় ডান হাত মুষ্টিবদ্ধ করে শাহাদাৎ আঙ্গুল দ্বারা ইশারা করা।[৯]
√ হাতের সবগুলো অঙ্গুলী মুষ্টিবদ্ধ করে তর্জনী দ্বারা কিবলার দিকে ইঙ্গিত করা ও সেদিকে দৃষ্টি নিক্ষপ করা।
-“রাসুল ﷺ বাম হাতের তালু বাম হাঁটুর উপর বিছিয়ে দিতেন, আর ডান হাতের সবগুলো অঙ্গুলী মুষ্টিবদ্ধ করে তর্জনী দ্বারা কিবলার দিকে ইঙ্গিত করতেন এবং সেদিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করতেন।” [সহীহ মুসলিম হ/১৩৩৮, ১১৮৬(ইফা)]

[আল্লাহ আলেম]
—————
[১] তাহক্বীক মিশকাত হা/৯০৬ এর টীকা দ্রঃ
[২] আবু দাউদ হা/৯৮৯, ১/১২৪ পৃঃ; নাসাঈ আল-কুবরা ১/৩৭২; বায়হাকী ২/১৩২; মিশকাত হা/৯১২]
[৩] জঈফ আবুদ হা/৯৮৯;
[৪] নাসাঈ হা/৮৮৯, ১/১০৩ পৃঃ ও ১২৬৮, ১/১৪২ পৃঃ সনদ সহীহ।
[৫] আহমাদ হা/১৫৪০৫, সনদ সহীহ, সিলসিলা সহীহহা হা/৩১৮১
[৬] সহীহ মুসলীম হা/১১৯৫, ১১৮৪(ই.ফা),১১৯৬(ই.সে)
[৭] নাসাঈ হা/১২৭৫, ১/১৪২ পৃঃ হা/১১৬০, ১/১৩০ পৃঃ
[৮] বায়হাকী সুনানুল কুবরা হা/২৯০৩; সনদ সহীহ, সিফাতু সালাতিন নবী, পৃঃ১৫৯]
[৯] সহীহ মুসলীম হা/১১৯৭, ১১৮৬(ই.ফা),১১৯৮(ই.সে)
[১০] [সহীহ মুসলিম হ/১৩৯৮, ১১৮৭(ইফা), ১১৯৯(ই.সে)]

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s