শুভ-অশুভ , মংগল অমংগলের লক্ষণ, এই সবগুলো ভ্রান্ত শিরকি বিশ্বাস

kk

শনি বারে যাত্রা করলে অশুভ…
রাতের বেলা পেঁচা ডাকলে অমংগল হবে…
অসময়ে কুকুর ডাকলে বাড়ির কেউ মারা যাবে…
দুই শালিক মংগল, এক শাকিল কুফা…
অমুক জিনিসটা কুফা অমুক জিনিসটা লক্ষী (ভালো)…
হাতের অমুক জায়গায় তিল থাকলে টাকা পয়সা হবে, অমুক জায়গায় থাকলে বউ মারা যাবে…
সাবধান !
এই রকম যত্তগুলো ভালো বা মন্দ / শুভ-অশুভ / মংগল অমংগলের লক্ষণ আছে এই সবগুলো ভ্রান্ত শিরকি বিশ্বাস। তাকদীরের ভালো বা মন্দের একমাত্র মালিক আল্লাহ তাআ’লা। অন্য কোনো কিছু তাকদীরের জন্য ভালো বা মন্দের কারণ মনে করা ঈমান বিরোধী কুসংস্কার। অনেকে বলে, আমরা এইগুলো বিশ্বাস করিনা, আমিতো এইগুলো মজা করে বলছি। আপনার জানা থাকা উচিত, সব কিছু নিয়ে মজা করা চলেনা। কেউ যদি মজা করে দুর্গাকে সেজদা করে সেটা শিরক। কেউ যদি মজা করেও শিরকি কুফুরী কথা বলে সেটা শিরকি কুফুরী বলেই গণ্য হবে !
আল্লাহ আমাদের শিরকি কুফুরী থেকে হেফাজত করুন, আমিন।
_________________________________
কুফা শিরক হবে কেনো?
কুফা মানে হচ্ছে কোনো মানুষ, দিন, সময়, জায়গা, বস্তু ইত্যাদিকে খারাপ মনে করা – এবং এইগুলোকে ভাগ্যের খারাপ কোনো কিছুর কারণ মনে করা।
যেমন বলে অমুক “কুফা” – সে আসছে বলে আমার ব্যবসার এই ক্ষতি হয়েছে।
অথচ ব্যবসার ক্ষতি, রিযিক, সম্পদ – সবকিছুই নিয়ন্ত্রন করেন একমাত্র আল্লাহ তাআ’লা। সবকিছুই আগে থেকে নির্ধারণ করে রাখেন আল্লাহ।
এখন আল্লাহকে বাদ দিয়ে অথবা (তাঁর প্রতি বিশ্বাস থাকা অবস্থায়) অন্য কাউকে বা কোনো কিছুকে ভাগ্য নিয়ন্ত্রন করতে পারে আমন ধারণা রাখা – এক কথায় যাকে কুফা বলা হয় – এটা শিরক হয়ে যায়।
কারণ এর দ্বারা সে যাকে কুফা বলছে – তাকে আল্লাহর সমকক্ষ মনে করছে – ভাগ্য নিয়ন্ত্রনকারী হিসেবে – আল্লাহর ক্ষমতার সাথে তাকেও শরীক করছে। যদিও এখানে মন্ধ ভাগ্য – কিন্তু মূল বিষয়টা এখানেই। ঈমানের ৬ নাম্বার পিলার “ওয়াল ক্বাদরী খাইরিহি ওয়া শাররিহি” – ভাগ্যের ভালো ও মন্দের নিয়ন্ত্রনকারী হচ্ছেন মহান আল্লাহ।
যদি বুঝাতে ব্যর্থ হই – তাহলে সেটা আমার ব্যর্থতা। আপনারা দয়া করে একজন আলেমের কাছে থেকে বিস্তারিত জেনে নেবেন।
————————

চার মাযহাব যদি সহিহ হয় তাহলে রাফউল ইয়াদাইন কেন করা হয়না

sogoodislam.Sufi.Sects.Shk.Bidth.I-tabligh.F-amal

<<<<চার মাযহাব যদি সহিহ হয় তাহলে রাফউল ইয়াদাইন কেন করা হয়না এবং কেন আরেক মাযহাবের বিরোধিতা করা হয়, কেননা রফউল ইয়াদাইন প্রায় ৫২ টি হাদিস দ্বারা প্রমানিত>>>
======================
======================
দয়া করে পোষ্টের যে বিষয় তা নিয়ে কথা বলবেন।
‪#‎আলহামদুলিল্লাহ‬
আমরা যারা হানাফি তারা বলি চার মাযহাব সহিহ যে কোন একটা মানলেই চলবে। তর্কের
ক্ষাতিরে মেনে নিলাম যে কোন
এক মাযহাব মেনে নিলে চলবে
‪#‎আমার‬ প্রশ্ন,
যদি মাযহাবের বিপরীতে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) এর সহিহ হাদিস থাকে, তাহলে কি হাদিস বাদ দিয়ে মাযহাব ধরে বসে থাকবো, যদি এমন কথাই বলেন তাহলে আপনার কাছে আমি দলিল চাইব এবং আমিও দলিল
দেখাব?
এখন স্বলাতে ‪#‎রাফউল‬ ইয়াদাইন করার ব্যপারে রাসুল ( সাঃ) এর একাদিক সহিহ হাদিস
রয়েছে,
‪#‎এখন‬ আমার প্রশ্ন, যারা রাফউল ইয়াদাইন করে, তাদেরকে আহলে হাদিস বলে কটাক্ষ কেন করা হয়, আর এই রফউল ইয়াদাইন তো হাম্বলী মাযহাবেও রয়েছে, তাহলে আমরা হানাফিরা জাতিকে…

View original post 370 more words

ছহী দলিলৰ সৈতে কোৰবাণীৰ মছলা[video timer mentioned]sgis

ছহী দলিলৰ সৈতে কোৰবাণীৰ মছলাsgis:-
=============================================

@কেৱল উট আৰু গৰুতহে আনে অংশিদাৰ হব পাৰে।

@বয়সঃ- উট=৫+, গৰু=২+, ছাগলী=১+ কোৰবানীৰ জন্তুৰ বয়স হোৱা উচিত।

@কাণ কটা, শিং ভঙ্গা, কণা চকু জন্তুৰ কোৰবানীহৈ যাব; কিন্তু মকৰুহ হব।

@কোৰবানীৰ জন্তু হেৰাই গলে নতুনকৈ কিনি আনি কোৰবানী দিয়াটো জৰুৰী নহয়। পাৰিলেটো ভালেই।।হেৰাই যোৱাটো বিছাৰি পালে,কোৰবানী দিবও পাৰে নিদিবও পাৰে।

@একেটা জন্তুতে কোৰবানী আৰু আকীকা দিব নোৱাৰি। ই বে’দাত।।

@ঈদৰ দিন ধৰি চাৰি/তিনি দিনলৈ কোৰবানী কৰিব পাৰে।[1:35:21]ঈদৰ দিনা কোৰবানী কৰা সুন্নত; ie-best day.

@ৰাতিও কোৰবানী কৰিব পাৰে। কৰিব নোৱাৰাৰ দলিল য’ঈফ। [1:44:17]।দিনত কৰাটো সুন্নত।

@নিজৰ কোৰবানী নিজে জবেহ কৰাটো সুন্নত। আনৰ হতুৱাইও কৰাব পাৰে[2;03;46]।মহিলাইও জবেহ কৰিব পাৰে।

@জবেহ কৰোতে “বিছমিল্লাহ ৱাল্লহু আকবৰ” কবই লাগিব। মুছলমানে জবেহ কৰাৰ সময়ত(নিয়ত ঠিকেই আছে) কিবা কাৰণত কবলৈ পাহৰি গলেও হালাল হৈযাব।লগতে কাৰ তৰফৰ পৰা কোৰবানী কৰা হৈছে তেওঁলোকৰ নাম কোৱাতো সুন্নন।[২;০৭;২৩]।

@যদি মাইকী কোৰবানী জন্তুৰ পেতত পোৱালি ওলায়, তেন্তে সেই পোৱালি হালাল। ইচ্ছা কৰিলে খাব পাৰে[ছহী দলিল আছে-২; ১১; ৩৯]।

@ছামৰা ছদকা কৰিব বা নিজে ব্যৱহাৰ কৰিব পাৰে। কটা-বছা কৰা সকলক ভাগ দিব নোৱাৰে[ 2; 23; 33]।

@ধাৰ(loan) মৰাত সক্ষম থাকিলে ধাৰলৈ কোৰবানী কৰিব পাৰে[45 ; 19]

@কোৰবানী এটা জন্তুত গোটেই পৰিয়ালৰ বাবে।[47;03]।ইচ্ছা কৰিলে বেছিও কৰিব পাৰে[৫০;৫৮]।
 
@মাংস তিনিভাগ কৰাৰ কোনো দলিল নাই যদিও এনে পদ্ধতি বেয়া নহয়। দুটা ভাগ কৰি, এটা নিজৰ বাবে আৰু আনটো দুখিয়াক ছদকা আৰু অঙহী-বঙহী, ওচৰ চুবুৰিয়াক দিয়াটো উত্তম।[২;১৭;০৭]।

@মুছাফিৰে কোৰবানী কৰিব পাৰে[০;৫২;৩২]।

@Q:- friend-firoz sultan এ প্রশ্ন কৰিছে-“কোৰবানী অকল জীৱিত ব্যক্তিৰ বাবেই হয়নে ? মোৰ আব্বা নাই । অমুকৰ পুতেক অমুক বুলি কোৱাৰ লগতে দাদাজীৰ নাম ক’ব লাগিব নেকি ?”—Ans:- নোৱাৰে।। এই প্রশ্নটোৰ উত্তৰত এখতিলাফ আছে যদিও, যি ছহী হাদিছত থকা ৰছুলে(দঃ) নিজৰ আৰু উম্মতৰ তৰফৰ পৰা কোৰবানী কৰিছিল বুলি দেখুৱাই তাক পেছ কৰে সেয়া বিশ্লেষণত গ্রহন যোগ্য নহয়। আৰু আপোনাৰ-মোৰ কত উম্মত আছে।[details-video-0;54;17]। ইয়াৰ উপৰিও দিঘলীয়া article আছে।তাতো নোৱাৰে বুলি কৈছে। লৰা-ছোৱালীৰ যিকোনো ভাল কামৰ ভাগ মৃত সকলে পায়।

–[ এই ভিডিঅটো চাই আছো। প্রায় ২ঃ৩০ ঘঃ। উটত ৭/১০ আৰু গৰুত ৭জনে ভাগ লব পাৰে। ।।। https://youtu.be/ciG8qZ_LUFE]

[৪]-কোৰআন আৰু শ্বহী হাদিছ অনুসৰি হজ্জ ও ওমৰাহ-

Hajj-HD-pics

[৪]-কোৰআন আৰু শ্বহী হাদিছ অনুসৰি হজ্জ ও ওমৰাহ-
-সংগ্রহ,সম্পাদনা আৰু সংকলনত-
-চৈয়দ চ’গুদ ইছলাম-[২২.০৮.২০১৬]-
———————————————-
১০]-হাজাৰে আসওয়াদ ও ত্বাওয়াফ(الحجر الأسود والطواف) :-ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, ‘যি ব্যক্তিয়ে ৰুক্নে ইয়ামানী ও হাজাৰে আসওয়াদ (কলা পাথৰ) স্পর্শ কৰিব, তেওঁৰ সকলো গোনাহ সৰি পৰিব’।[24] তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘যি ব্যক্তি বায়তুল্লাহৰ সাতটি ত্বাওয়াফ কৰিব ও শেষত দুই ৰাকাত ছালাত আদায় কৰিব, তেওঁ যেন এটা গোলাম আযাদ কৰিলে’। ‘এই সময়ত প্রতি পদক্ষেপত এটাকৈ গোনাহ সৰি পৰে আৰু এটাকৈ নেকী লেখা হয়’।[25] তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘ত্বাওয়াফ হ’ল ছালাতৰ দৰে। গতিকে এই সময়ত প্রয়োজনত সামান্য নেকীৰ কথা কোৱা হ’ব’।[26]
তেওঁ(ছাঃ) কৈছিল, ‘আল্লাহে ক্বিয়ামতৰ দিনা হাজাৰে আসওয়াদক উঠাব, এই অবস্থাতযে, তাত দু’টি চকু থাকিব, যাৰ দ্বাৰা সি দেখিব ও এখন কথা কব পৰা মুখ থাকিব, যাৰ দ্বাৰা সি কথা ক’ব আৰু সেই ব্যক্তিৰ বাবে সাক্ষী দিব, যি ব্যক্তিয়ে খালেছ অন্তৰে তাক স্পর্শ কৰিছিল’।[27]
ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, ‘হাজাৰে আসওয়াদ’ প্রথমে গাখীৰ বা বৰফৰত কৈয়ো বগা ও মিহি অবস্থাত জান্নাতৰ পৰা অবতীর্ণ হৈছিল। পিছত বনু আদমৰ(বংশধৰ) পাপ সমূহে তাক কলা কৰি দিয়ে’।[28]
–মনত ৰখা উচিতযে, পাথৰৰ নিজস্ব কোনো ক্ষমতা নাই। আমি কেৱলমাত্র ৰাসূলৰ(ছাঃ) সুন্নাতৰ ওপৰত আমল কৰিম। যিদৰে ওমৰ ফাৰুকে (ৰাঃ) উক্ত পাথৰত চুমা দিয়াৰ সময়ত কৈছিলে,
إِنِّىْ لَأَعْلَمُ أَنَّكَ حَجَرٌ مَا تَنْفَعُ وَلاَ تَضُرُّ، وَلَوْلاَ أَنِّيْ رَأَيْتُ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عليه وسَلَّمَ يُقَبِّلُكَ مَا قَبَّلْتُكَ، متفق عليه-
‘মই জানোযে, তুমি এটা পাথৰ মাত্র। তুমি কোনো উপকাৰ বা ক্ষতি কৰিব নোৱাৰা। সেয়েহে আমি যদি আল্লাহৰ ৰাসূলক(দঃ) নেদেখিলো হেতেঁন তোমাক চুমা দিয়া, তেতিয়া হ’লে মই তোমাক চুমা নিদিলো হেতেঁন।[29]ওমৰ ফাৰুক (ৰাঃ) উক্ত পাথৰত চুমা খাইছিলে আৰু কান্দিছিল’।[30]
১১]-. যমযম পানি (ماء زمزم):- ত্বাওয়াফৰ শেষত দুই ৰাকাত ছালাতৰ অন্তত মাত্বাফৰ পৰা ওলায়েই ওচৰৰ যমযম কুৱা এলাকাত প্রবেশ কৰিব আৰু তাতেই যমযমৰ পানী বিসমিল্লাহ বুলি ঠিয়হৈ পান কৰিব ও কিছু মূৰত দিব।[31] যমযম পানী পান কৰাৰ সময়ত ইবনু আব্বাসৰ(ৰাঃ)পৰা বর্ণিত বিশেষ দো‘আ পাঠ কৰাৰ যি প্রচলিত হাদীছটি আছে,সেইটো যঈফ।[32] ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ) কৈছিল,خَيْرُماءٍ عَلَى وَجْهِ الْأَرْضِ مَاءُ زَمْزَمَ، فِيْهِ طَعَامٌ مِِّنَ الطُّعْمِ وَشِفَاءٌ مِّنَ السُّقْمِ ‘ভূপৃষ্ঠত উৎকৃষ্ট পানী হ’ল যমযমৰ পানী। ইয়াত আছে পুষ্টিকৰ খাদ্য আৰু ৰোগৰ পৰা আৰোগ্য’।[33] অন্য বর্ণনাত আহিছে إِنَّهَا مُبَارَكَةٌ ‘ই বৰকত মন্ডিত’।[34] ৰাসূলুল্লাহে (ছাঃ)কৈছিল, এই পানী কোনো ৰোগৰ পৰা আৰোগ্যৰ উদ্দেশ্যে পান কৰিলে তোমাক আল্লাহে আৰোগ্য দান কৰিব’।[35] বস্ত্ততঃ যমযম হ’ল আল্লাহৰ বিশেষ অনুগ্রহত সৃষ্ট এক অলৌকিক কুৱা। যিটো শিশু ইছমাইল(আঃ) ও তেওঁ মাক হাজেৰাৰ জীবন ৰক্ষার্থে আৰু পৰবর্তীত মক্কাৰ আবাদ ও শেষনবী (ছাঃ)-ৰ আগমন স্থল হিচাবে গঢ়ি তোলাৰ উদ্দেশ্যে সৃষ্টি হৈছিল।[36]
——————————————-
NOTE:-
[24]. ছহীহ ইবনু খুযায়মা হা/২৭২৯; ছহীহ নাসাঈ হা/২৭৩২।
[25]. তিৰমিযী ও অন্যান্য, মিশকাত হা/২৫৮০।
[26].তিৰমিযী, নাসাঈ, মিশকাত হা/২৫৭৬; ইৰওয়া হা/১১০২।
[27]. তিৰমিযী, ইবনু মাজাহ, দাৰেমী, মিশকাত হা/২৫৭৮।
[28]. তিৰমিযী, মিশকাত হা/২৫৭৭; ছহীহ ইবনু খুযায়মা হা/২৭৩৩।
[29]. মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/২৫৮৯।
[30]. বায়হাক্বী ৫/৭৪ পৃঃ, সনদ জাইয়িদ।
[31]. মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/৪২৬৮; আহমাদ (কায়ৰো, তাবি) হা/১৫২৮০ সনদ ছহীহ, আৰনাঊত্ব; ক্বাহত্বানী পৃঃ ৯৩।
[32]. ইৰওয়া ৪/৩৩২-৩৩ পৃঃ হা/১১২৬-ইয়াৰ আলোচনা দ্রঃ।
[33]. ত্বাবাৰাণী আওসাত্ব হা/৩৯১২; ছহীহাহ হা/১০৫৬।
[34]. আহমাদ, মুসলিম; ছহীহাহ হা/১০৫৬।
[35]. দাৰাকুৎনী, হাকেম, ছহীহ তাৰগীব হা/১১৬৪।
[36]. ছহীহ বুখাৰী হা/৩৩৬৪; দ্রঃ লেখক প্রণীত ‘নবীদেৰ কাহিনী’ ১/১৩৪-৩৫ পৃঃ।
[N.B-to be translate]-‘যমযম’ (زمزم) : ১৮ ফুট দৈর্ঘ, ১৪ ফুট প্রস্থ ও অন্যূন ৫ ফুট গভীরতার এই ছোট্ট কুয়াটি অত্যাশ্চর্য বৈশিষ্ট্যমন্ডিত। বিগত প্রায় চার হাযার বছরের অধিককাল ধরে এই কুয়া থেকে দৈনিক হাযার হাযার গ্যালন পানি মানুষ পান করছে ও সুস্থতা লাভ করছে। কিন্তু কখনোই পানি কম হ’তে দেখা যায়নি বা নষ্ট হয়নি। বিজ্ঞানীরা বহু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অবশেষে এ পানির অলৌকিকত্ব স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছেন। ইউরোপীয় বিজ্ঞানীদের ল্যাবরেটরী রিপোর্ট এই যে, এ পানিতে ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম সল্টের আধিক্যের কারণেই পানকারী হাজীদের ক্লান্তি দূর হয়। অধিকহারে ফ্লোরাইড থাকার কারণে এ পানিতে কোন শেওলা ধরে না বা পোকা জন্মে না’। অথচ দেড় হাযার বছর আগেই নিরক্ষর নবী মুহাম্মাদ (ছাঃ) এ পানির উচ্চগুণ ও মর্যাদা সম্পর্কে বর্ণনা করে গেছেন(দ্রঃ মাসিক আত-তাহরীক, রাজশাহী ৪/৭ সংখ্যা, এপ্রিল ২০০১, পৃঃ ১৭-১৮)।

অজু কৰি থকা ব্যক্তিৰ ওপৰত চাৰিজন ফিৰিস্তাই এখন ৰুমাল ধৰি থাকে-fake

‪#‎ইলিয়াচী_তবলীগ_জামাতত_বহুল_প্রচলিত_এটি_জাল_হাদিছ‬

অজু কৰি থকা ব্যক্তিৰ ওপৰত চাৰিজন ফিৰিস্তাই এখন ৰুমাল ধৰি থাকে। অজু কৰি থকা ব্যক্তিয়ে এটা কথা ক’লে এজন ফিৰিস্তাই ৰুমাল এৰি দিয়ে¸ আৰু এটা কথা ক’লে আন এজন ফিৰিস্তাই ৰুমাল এৰি দিয়ে। পুনৰ কথা ক’লে তৃতীজন ফিৰিস্তাই ৰুমাল এৰি দিয়ে। অৱশেষত চাৰিওজন ফিৰিস্তাই ৰুমাল লৈ গুচি যায়। বিভিন্নধৰণে সমাজত প্রচলিত হৈ আছে এই কাহিনী।

তবলীগ জামাতত যেতিয়া মই জড়িত আছিলোঁ‚ ময়ো এই জাল হাদীছ প্রচাৰ কৰিছিলোঁ। সত্য জনাৰ পিছত এইবোৰ পৰিত্যাগ কৰিছোঁ। আলহামদুলিল্লাহ। এই হাদীছৰ কোনো ভিত্তি নাই। কিয়ামত পর্যন্ত বিচাৰিলেও ইয়াৰ কোনো ভিত্তি নাপাব। এনেকুৱা অসংখ্য জাল-জঈফ হাদীছ আৰু কিচ্ছা-কাহিনী প্ৰচলিত তবলীগ জামাতে প্ৰচাৰ কৰি আছে।

গতিকে এই হাদীছ প্রচাৰ কৰাৰ পৰা সাৱধান হওঁক। নহ’লে নাবী চাল্লাল্লহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ নামত মিছা প্ৰচাৰৰ সৈতে চামিল হ’ব লাগিব। যাৰ পৰিণাম জাহান্নাম।

Collected & Edited.

fake pictures

pic

 

রেডিও মুন্না, রেডিও স্বদেশ টাইপের পেইজগুলা না থাকলে আমরা কখনও জানতাম না রুটির মধ্যে, আপেলের মধ্যে, মাংসের টুকরার মধ্যেও আল্লাহু লিখা দেখা যায়। (লা হাওলা ওয়ালা কুয়াতা ইল্লা বিল্লাহ)
.
এবং এটাও কখনো জানতাম না যে, এগুলো দেখার পর কমেন্টে আমিন/
সুবহানআল্লাহ্ ইত্যাদি লিখেই জান্নাতের টিকিট পাওয়া যায়। এগুলো শেয়ার করলে মুসলিম হওয়া যায় আর না লিখলেই কাফের হয়ে যায়।
.
Evergreen Bangladesh কিংবা Bangladesh টাইপের গ্রুপগুলা না থাকলে জানতামই না আল্লাহু/লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ লিখে ১৮+ জনকে পাঠালেই জান্নাত সু-নিশ্চিত।
.
এই ধরণের কিছু পেইজ না থাকলে কোথাকার কোন জুতা, লাঠি, তরবারী, পাগড়ীর মত চরম ভুয়া কিছু ছবি যে রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) – এর ছবি; তা জানতেই পারতাম না।
কোন জায়গার কোন বট গাছ যে সাহাবী গাছ– এমন ভুয়া তথ্যও আমাদের পক্ষে জানা সম্ভব ছিল না।
.
আসুন আমরা এভাবে অন্ধভাবে আমল না করে কুর’আন-হাদীসের আলোকে, ইসলামকে বুঝে মেনে চলার চেষ্টা করি।
.
বি.দ্র.: এই পোস্টটি ১ লক্ষবার শেয়ার করলেও আমরা আপনাকে জান্নাতের প্রতিশ্রুতি দিতে পারবো না। এই এখতিয়ার শুধুই জান্নাতের মালিকের!
শুধু সঠিকটা জানানোর চেষ্টা করলাম মাত্র।