হানাফী মাযহাবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও পরিচয়

Aminul islamas

#হানাফী মাযহাবের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও পরিচয়
===============>>>><<<<===========
আমাদের সমাজে হানাফী মাযহাবের আলেমগণের মুখে ইমাম আবু হানিফার (রহঃ) নামে বহু রকম মনগড়া মিথ্যা, বানোয়াট কথাবার্তা শুনা যায় ৷ তাদের মিথ্যা ও মনগড়া বানোয়াট কথাবার্তার জবাব স্বরুপ সংক্ষেপে কিছু কথা তুলে ধরা হল:

#হাদীছ , তাফছীর, ফিকাহ্ কোন বিষয়েই ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) কোন কিতাব লিখে যাননি। তিনি বিভিন্ন লোককে বিভিন্ন বিষয়ে কিছু পত্র লিখেছিলেন। তার মৃত্যুর পর, ঐ সকল পত্রসমুহ বিভিন্ন নামে প্রকাশিত হয়। যেমন, ফিক্বহুল আকবার, আল-আকিমু অল-মুতায়াল্লিমু, আর-রাদ্দু আলাল-কাদ্রিয়াহ্ প্রভৃতি —– (রাদ্দুল মুহতার, মুকাদ্দামা, নাক্লু, মাযহাবি আবু হানীফা ১ম খন্ড ৩৮-পৃ)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহ) তার শিষ্যদিগকে মৌখিক শিক্ষাদান করতেন; তিনি তার কিছুই লিখে যাননাই।–(ইসলামী সংস্কৃতির ইতিহাস -১৯৬ পৃ: সামসুদ্দিন; ইসলামীক ফাউন্ডেশন ; বাংলাদেশ)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) আলোচনা মৌখিক করতেন ; শিষ্য বা অন্য কাউকে দিয়ে তার কোন মত বা ফতুয়া লেখাতেননা। তিনি বলতেন “আমি একজন মানুষ ; আজ একটি মত প্রকাশ করছি; পরেরদিন বিবেচনা করে দেখছি আমার গতকালের মত ঠিক ছিলনা। তাই গতকালের মত পরিবর্তন করি ৷ তাই আমার মতামত কেউ লিখে রাখবেনা”।–(তাবিলু মুখতালিফিল হাদীস -৬২-৬৩ পৃ: মুহাম্মদ বিন। কুতায়বা)।

#ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) এর কোন প্রানান্য লেখা বর্তমান নাই; হয়তো আদৌ ছিলনা।–(সংখিপ্ত ইসলামী বিশ্বকোষ -২৮ পৃ: ইসলামীক ফাউন্ডেশন ; প্রকাশকাল-১৯৮২-জুন)

ই.তবলীগ,afjal hissain

#প্রশ্নঃ- প্ৰচলিত ইলয়াছি তবলীগ জামাত আৰু ইলয়াছি তবলীগ তাবলীগ জামাতৰ বিশ্ব ইজতেমা বিদ‘আত কেনেকৈ হ’ল? ইলয়াছি তাবলীগ জামাতে তো ভাল কথাই কয়? #উত্তৰঃ- হয়¸ বিদ‘আত। প্ৰচলিত ইলয়াছি তাবলীগ জামাতৰ লোকসকলে তো ভাল কথাই কয়, দ্বীনৰ দাওৱাত দিয়ে, নামাযৰ দাওৱাত দিয়ে, তেনেহ’লে তেওঁলোকক বেয়া বুলি কিয় কৈছে? এই যুক্তি বহুতো সাধাৰণ মুছলিম ভায়ে উত্থাপন কৰি থাকে। এইসকল ভাইৰ প্ৰশ্নোত্তৰত সামান্য মন্তব্য দাঙি ধৰিলোঁ, হয়তো বহুতে বুজিব বেয়াটো ক’ত? ১- ইয়াতে কোনো সন্দেহ নাই যে, নবী মুহাম্মদ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম সকলোতকৈ ডাঙৰ ও সত্য মুবাল্লিগ (তাবলীগকাৰী)। ইয়াৰ পিছত তেওঁৰ চাহাবাসকল¸ যিসকলে গোটেই বিশ্বত নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ নিয়মত তাবলীগ কৰি গৈছে। কিন্তু বর্তমান যুগৰ তাবলীগ জামা‘আতে সেই নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম আৰু তেওঁৰ চাহাবাসকলৰ তাবলীগ বাদ দি কেইটামান দশকৰ পুর্বে ভাৰতৰ চাহাৰানপুৰৰ ইলিয়াছ চাহেবে তৈয়াৰ কৰা বৰং সপোনত পোৱা তাবলীগ গ্ৰহণ কৰিছে। নবী চাল্লাল্লাহ আলাইহি ৱাছাল্লাম আৰু তেওঁৰ চাহাবাসকলৰ তাবলীগ যথেষ্ট নহয় নেকি? সেইটো উত্তম তাবলীগ নহয় নেকি? নে এই যুগত সি অচল? ২- নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ তাবলীগৰ মূল কথা আছিল বৰং ইছলামৰ মূল কথাই হৈছে, ‘তাওহীদ’। কিন্তু বর্তমানৰ তাবলীগত তাওহীদৰ দাওৱাত নাই। ৩- নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ তাবলীগত যি বিষয়ৰ পৰা সকলোতকৈ বেছি সতর্ক কৰা হৈছে সেইটো হ’ল, ‘শির্ক’ৰ পৰা সতর্কতা। ইলিয়াছী তাবলীগত শ্বির্কৰ কথা কোৱা নহয়; অথচ দেশৰ চুকে-কোণে অহৰহ শ্বির্ক ও শ্বির্কৰ আড্ডা বিদ্যমান। ৪-নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ দাওৱাতৰ সকলোতকৈ ডাঙৰ অংশ আছিল, মুশ্বৰিকসকলক ইছলামৰ দাওৱাত দিয়া। কিন্তু বর্তমান তাবলীগ জামাতত তেওঁলোকক দাওৱাত দিয়া নহয়। অথচ তাবলীগ জামাতৰ জনক ইলিয়াছ ও যাকাৰিয়া চাহেবৰ দেশ এখন মুশ্বৰিক দেশ।
Continue …..

-৫- মহান আল্লাহে, পবিত্র কুৰআন যদি আমাৰ হেদায়েতৰ কাৰণে অৱতীর্ণ কৰিছে, তেনেহ’লে তাক বাদ দি ফাযায়েলে আমলৰ শিক্ষা দিয়া হয় কিয়? অনুৰূপ নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ হাদীছ উত্তম বাণী নহয় নেকি? তেনেহ’লে এতিয়াও কিয় সাধাৰণ লোকক কোৱা হয় যে, এইবোৰ তোমালোকে নুবুজিবা? মানুহে যদি নুবুজে¸ তেনেহ’লে এইবোৰ কাৰ কাৰণে অৱতীৰ্ণ কৰা হৈছে? ৬- ইছলাম কেৱল ফযীলতৰ নাম নেকি? ইছলামৰ সকলোবোৰ বিধান বাদ দি কেৱল ফাযায়েল বর্ণনা কৰাটো কেনেকুৱা ইছলাম! ধৰক নামায এটা ইছলামৰ বিধান। এই সম্পর্কে মোটামুটি যিবোৰ আছে সেয়া হ’ল, নামায কি, নামাযৰ গুৰুত্ব, নামায এৰাৰ বিধান, নামাযৰ ৰুকন, ওৱাজিব আৰু মুস্তাহাব, নামাযৰ পদ্ধতি আৰু নামাযৰ লাভ বা ফযীলত। ইয়াতে সকলোবোৰ বাদ দি কেৱল ফযীলত কিয়? ৭- যি তাবলীগৰ ইমান প্রসংশা আৰু ফযীলত বর্ণনা কৰা হৈছে, কিন্তু কেতিয়াবা চিন্তা কৰিছেনে সেই তাবলীগি নেচাবত অযু কৰা আৰু নামায পঢ়াৰ নিয়ম-পদ্ধতিও লেখা নাই। অন্যান্য বিষয়সমূহৰ বর্ণনা তো দূৰৰ কথা। ৮- ইছলামৰ ৰুকন ৫টা আৰু ঈমানৰ ৬টা, যিটো হাদীছে জিব্ৰীলত বর্ণিত হৈছে¸ কিন্তু এনেকুৱা এটি মৌলিক বিষয়ৰ তাবলীগ বাদ দি ৬ উছূল আৱিষ্কাৰ কোন দলীলৰ ভিত্তিত কৰা হৈছে? ইকৰামে মুছলিম বা মুছলিমৰ সন্মানৰ নামত নীতি তৈয়াৰ কৰা হৈছে, কিন্তু সত্য হৈছে তাবলীগত তাবলীগিসকলকেই সন্মান কৰা হয়, অন্যসকলৰ ছায়াটোকও তেওঁলোকে দেখিবলৈ পছন্দ নকৰে। ৯- তাবলীগৰ কাৰণে কুৰআন ছুন্নাহ যথেষ্ট নহয় নেকি? শত শত মনেসজা কিচ্ছা কাহিনীৰ আশ্রয় লোৱা হয় কিয়? তাৰ ওপৰিও সেইবোৰ কিচ্ছাত আছে চুফীসকলৰ কাশ্বফ, কাৰামত, সপোন, ইল্কা, ইলহাম ও ফয়েযৰ কথা। ১০- শ্বৰীয়াতৰ কোনো মাছ‘আলাত আমীৰ চাহেবে পোনপটীয়াকৈ কুৰআন ছুন্নাহৰ পৰা সমাধান নিদি দেওবন্দলৈ পঠাই কিয়? এনেকুৱা তো নহয় যে, আপোনালোকে তাবলীগৰ নামত দেওবন্দৰ প্রচাৰ-প্রসাৰ কৰিছে!!! ১১- আপোনালোকে ফাযায়েলে আমল কিতাপখন একাধিক ভাষাত অনুবাদ কৰিছে¸ কিন্তু এতিয়াও আৰবী ভাষাত তাক অনুবাদ কৰা হোৱা নাই কিয়? আপোনালোকৰ মাজত আৰবী শিক্ষিত ব্যক্তিত্ব নাই, নে গুমৰ ফাঁচ হোৱাৰ ভয়ত এইটো নকৰে? ১২- মুঠ কথা নবী চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লাম আৰু চাহাবাসকলৰ দাওৱাত-তাবলীগেই হৈছে ছহীহ, বিশুদ্ধ, পূর্ণ ও যথেষ্ট তাবলীগ। আনহাতে অন্যান্য তাবলীগৰ অসংখ্যই হৈছে, ভুল, অশুদ্ধ ও অপূর্ণাঙ্গ আৰু নতুন তাবলীগ। সেয়ে আমাৰ ওচৰত সেই মুহাম্মদী তাবলীগেই যথেষ্ট। [ফালিল্লাহিল হামদ]

-by afjal hn

Main link..

https://m.facebook.com/groups/179408725766336?view=permalink&id=369414666765740

অকাট্য ভাষ্য-ফিকাহৰ অন্ধ অনুসাৰীসকল

بِسۡمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحۡمَٰنِ ٱلرَّحِيمِ

অকাট্য ভাষ্য-

||নাহমাদুহু ওৱা নুচল্লি আলা ৰাছূলিহিল কাৰীম||

আল্লাহৰ সৰ্বশেষ কিতাব আল কুৰআন আৰু সৰ্বশেষ ও সৰ্বশ্ৰেষ্ঠ নবী মুহাম্মাদ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ হাদীছ নিঃচৰ্তভাৱে মানি লোৱা প্ৰত্যেকজন মুছলিমৰ ওপৰত ফৰজ। কুৰআন আৰু হাদীছৰ বিভিন্ন ঠাইত ইয়াৰ যথেষ্ট প্ৰমাণ বিদ্যমান আছে। আল্লাহে কৈছে-

* أَطِيعُواْ ٱللَّهَ وَأَطِيعُواْ ٱلرَّسُولَ

#আল্লাহৰ_হুকুম_মানা_আৰু_ৰাছূলৰ_হুকুম_মানা। (ছূৰা আন-নিছা: ৫৯)

* وَإِنْ تُطِيعُوهُ تَهْتَدُوا

#আৰু যদি তোমালোকে তেওঁৰ (ৰাছূলৰ) অনুসৰণ কৰা¸ তেন্তে সঠিক পথ প্ৰাপ্ত হ’বা। (ছূৰা আন-নুৰ: ৫৪)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْكَافِرُونَ

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফায়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই কাফিৰ। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৪)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফয়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই জালিম। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৫)

* وَمَنْ لَمْ يَحْكُمْ بِمَا أَنْزَلَ اللَّهُ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الْفَاسِقُون

#আৰু আল্লাহে দিয়া বিধান অনুসৰি যিসকলে ফয়ছালা নকৰে, তেওঁলোকেই ফাছিক। (ছূৰা আল-মায়িদা: ৪৭)

* اتَّبِعُوا مَا أُنْزِلَ إِلَيْكُمْ مِنْ رَبِّكُمْ وَلَا تَتَّبِعُوا مِنْ دُونِهِ أَوْلِيَاء

#তোমালোকৰ প্ৰতিপালকৰ ওচৰৰ পৰা তোমালোকৰ প্রতি যি নাজিল হৈছে তাৰেই অনুসৰণ কৰা আৰু তাক বাদ দি অন্য অলি/আউলিয়াৰ অনুসৰণ নকৰিবা। (ছূৰা আ’ৰাফ: ৩)

* فَلَا وَرَبِّكَ لَا يُؤْمِنُونَ حَتَّىٰ يُحَكِّمُوكَ فِيمَا شَجَرَ بَيْنَهُمْ ثُمَّ لَا يَجِدُوا فِي أَنْفُسِهِمْ حَرَجًا مِمَّا قَضَيْتَ وَيُسَلِّمُوا تَسْلِيمًا

#গতিকে তোমাৰ প্ৰতিপালকৰ কচম! তেওঁলোক মুমিন হ’ব নোৱাৰিবা যেতিয়ালৈকে তেওঁলোকৰ মাজত সৃষ্ট বিবাদৰ ক্ষেত্ৰত তোমাক বিচাৰক নির্ধাৰণ নকৰে, ইয়াৰ পিছত তোমাৰ সিদ্ধান্ত দ্বিধাহীনভাৱে মানি নোলোৱালৈকে তেওঁলোকে ঈমানৰ দাবীদাৰ হ’ব নোৱাৰিব। (ছূৰা আন-নিছা: ৬৫)

* إِنْ هُوَ إِلَّا وَحْيٌ يُوحَىٰ * وَمَا يَنْطِقُ عَنِ الْهَوَىٰ

#আল্লাহৰ অৱতীৰ্ণ অহিৰ বাহিৰে তেওঁ মনেগঢ়া একোৱেই নকয়। (ছূৰা আন-নাজম: ৩-৪)

#”আতিউল্লাহ ওৱা আতিউৰ ৰাছূল” এই কথাৰ পিছতেই আছে “ওৱা উলিল আমৰি মিনকুম’’ অৰ্থাৎ তোমালোকৰ নেতাসকলৰো (অনুসৰণ কৰা)। কিন্তু ইয়াৰ পিছতেই কোৱা হৈছে ‘ফা ইন তানাজা’তুম ফি শ্বায়ঈন ফাৰুদ্দুহু ইলাল্লাহি ওৱাৰ ৰাছূল’। অৰ্থাৎ আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰাছূলৰ নিৰ্দেশৰ সৈতে তোমালোকৰ নেতাসকলৰ নিৰ্দেশৰ পাৰ্থক্য দেখা দিলে, নেতৃবৃন্দৰ কথা পৰিত্যাগ কৰি আল্লাহ আৰু তেওঁৰ ৰাছূলৰ কথাৰ ফালে প্ৰত্যাৱৰ্তন কৰা। এই কথা কোৱা হোৱা নাই যে, ওপৰোক্ত মত পাৰ্থক্যৰ ক্ষেত্ৰত আল্লাহ ও তেওঁৰ ৰাছূলৰ কথা পৰিত্যাগ কৰি নাইবা তাৰ বিকৃত অৰ্থ কৰি নাইবা তাৰ লগত মনেসজা কথা সংযোগ কৰি নেতা বা ইমামৰ কথাকেই সঠিক বুলি সাব্যস্ত ৰখা। আল্লাহ তা‘আলাই নিৰ্দেশ কৰিছে-

وَاعْتَصِمُوا بِحَبْلِ اللَّهِ جَمِيعًا وَلَا تَفَرَّقُوا*

#”আৰু তোমালোক সকলোৱে আল্লাহৰ ৰছীক সুদৃঢ় হাতেৰে ধাৰণ কৰা; বিভিন্ন দলত বিভক্ত নহ’বা”। (ছূৰা আল-ইমৰান: ১০৩)।

আল্লাহ তা‘আলাৰ এই নিৰ্দেশ অমান্য কৰি যিসকলে বিভিন্ন দল, মাজহাবত বিভক্ত হোৱাৰ কাৰণে মুছলিমসকলৰ প্ৰতি আহ্বান জনায়, তেওঁলোক আল্লাহদ্ৰোহীৰ বাহিৰে আন কি হ’ব পাৰে? কুৰআন আৰু হাদীছৰ ক’ৰবাত এই নিৰ্দেশ আছে নেকি যে, মুছলিমসকল! তোমালোকে দলে দলে বিভক্ত হৈ যোৱা, এটা দলে আনটো দলক শত্ৰু বুলি ভাৱা, পৰস্পৰ কটা-কটি কৰি থাকা, অন্য দলৰ মুছলিমসকলক কাফিৰতকৈও ডাঙৰ শত্ৰু বুলি গণ্য কৰা? কোৱা হৈছে- চাৰি মাজহাব ফৰজ। চাৰি মাজহাবত বিভক্ত হৈ যোৱা। এইটো হৈছে সম্পূৰ্ণ আল্লাহদ্ৰোহী আহ্বান। আল্লাহ তা‘আলাই কৈছে,

* إِنَّمَا الْمُؤْمِنُونَ إِخْوَةٌ

#নিশ্চয়_মুছলিমসকল_পৰস্পৰ_ভাই_ভাই

কিন্তু এই অখণ্ড ভাতৃত্বৰ বন্ধনক ছিন্ন কৰি খণ্ড খণ্ড হৈ যোৱাকে ধৰ্মৰ অপৰিহাৰ্য অঙ্গ বুলি প্ৰচাৰ কৰা হৈছে। অথচ ‘চাৰি মাজহাবেই সঠিক’ এই শ্লোগানধাৰীসকলে অন্য মাজহাবৰ লোকসকলৰ সৈতে কাফিৰ মুশ্বৰিকতকৈও ডাঙৰ শত্ৰুৰ দৰে আচৰণ কৰে। দলীয় নেতাসকলৰ অনুসৰণত ইমানেই সীমাহীন গুৰুত্ব লাভ কৰিছে যে, দ্বীনৰ সকলো উৎস কুৰআন আৰু হাদীছৰ প্ৰতি ভ্ৰূক্ষেপ নকৰি স্বীয় ইমামৰ নিৰ্দেশক অন্ধভাৱে গ্ৰহণ কৰা হৈছে, কুৰআন আৰু হাদীছৰ সৈতে মিলাই চোৱাৰ কোনো প্ৰয়োজনবোধ কৰা হোৱা নাই। আকৌ দাবী কৰা হয় যে, ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)য়ে যি কৈছে সেই সকলোবোৰ শুদ্ধ। তেওঁৰ সকলো কথাই যদি শুদ্ধ হয়, তেনেহ’লে তেওঁৰ দুই মহান শিষ্য ইমাম আবু ইউচুফ আৰু ইমাম মুহাম্মাদে তেওঁৰ শত শত মাছ‘আলাৰ বিৰোধিতা কৰিলে কিয়? “মাজহাবীসকলৰ গুপ্তধন” নামৰ কিতাপখনত গ্ৰন্থকাৰে ওপৰোক্ত বিৰোধপূৰ্ণ মাছআলাৰ মাত্ৰ কেইটিমান নমুনা হিচাবে সন্নিবিষ্ট কৰিছে যাৰ দ্বাৰা নিৰপেক্ষ পাঠকবৃন্দই এই পৰম সত্য সিদ্ধান্তত উপনীত হ’ব পাৰিব যে, একমাত্ৰ অহিপ্ৰাপ্ত আল্লাহৰ ৰাছূল চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ বাহিৰে আন কোনো দ্বিতীয় মানুহ নাই যিজন অভ্ৰান্ত- অৰ্থাৎ যাৰ কোনো ভুল নাই। ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)ৰ প্ৰতি শ্ৰদ্ধা ও সন্মান প্ৰদৰ্শনপূৰ্বক এই কথা নিবেদন কৰিব বিচাৰোঁ যে, তেৱোঁ অভ্ৰান্ত বা নিৰ্ভুল নাছিল। এই কথাৰ প্ৰমাণ ফিকাহৰ গ্ৰন্থাৱলীত সিচঁৰিত হৈ আছে, যাৰ ভাষা কেৱল আৰবী হোৱা কাৰণে ইমামৰ কোটি কোটি অন্ধ অনুসাৰী সেইবোৰ অমৃত বচনৰ পৰা মাহৰূম হৈ আছে। “মাজহাবীসকলৰ গুপ্তধন”ৰ লেখকে বহু কষ্ট স্বীকাৰ কৰি সেইবোৰ সুধী পাঠকবৃন্দৰ বিবেকৰ দুৱাৰমুখত হাজিৰ কৰি দিছে। আমি হিন্দুসকলৰ ধৰ্মগ্ৰন্থৰ অশ্লীল উপাখ্যানৰ কথা শুনি ছিঃ ছিঃ কৰি থাকোঁ। এতিয়া ফিকাহ শাস্ত্ৰৰ উপাখ্যান পঢ়ি পাঠকে কি কৰিব নিজেই ঠিৰাং কৰক। অথচ কুৰআন আৰু হাদীছক বাদ দি অন্ধভাৱে এই ফিকাহৰেই অনুসৰণ কৰা হৈছে। এই বিষয়ে আল্লাহ তা‘লাৰ সাৱধানবাণী অতি স্পষ্ট-

اتَّخَذُوا أَحْبَارَهُمْ وَرُهْبَانَهُمْ أَرْبَابًا مِنْ دُونِ اللَّهِ*

#”সিহঁতে (ইহুদী আৰু খ্ৰীষ্টানসকলে) আল্লাহক পৰিত্যাগ কৰি সিহঁতৰ পণ্ডিত আৰু সংসাৰ-বিৰাগীসকলক প্ৰতিপালক হিচাবে গ্রহণ কৰিছে”। (ছূৰা আত-তাওবাহ: ৩১)

এই সম্পৰ্কে মুছনাদে আহমদ ও তিৰমিজীত হাদীছ আছে-

“আদী বিন হাতীম (ৰা.)য়ে ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ খেদমতত আৰজ কৰে, তেওঁলোকে তো তেওঁলোকৰ পূজা কৰা নাই। তেতিয়া তেওঁ ক’লে- কিয় নহয়, তেওঁলোকে (আলিম দৰবেশসকলে) তেওঁলোকৰ ওপৰত হালালক হাৰাম কৰে আৰু হাৰামক হালাল কৰে, আৰু তেওঁলোকে (জনসাধাৰণে) তেওঁলোকৰ কথা মানি চলে। এইটোৱেই আছিল তেওঁলোকৰ ইবাদাত’’।

ফিকাহৰ অন্ধ অনুসাৰীসকলৰ ক্ষেত্ৰত এই হাদীছ আখৰে আখৰে প্ৰযোজ্য নহয় নে? হানাফি ফিকাহৰ জন্মদাতা ইমাম আবু হানিফা (ৰহ.)য়ে কৈছে- আমি যি আলোচনাত প্ৰবৃত্ত আছোঁ সেয়া একমাত্ৰ ৰায় ও কিয়াচ, গতিকে তাক মানিবলৈ আমি কাকো বাধ্য কৰিব নোৱাৰোঁ আৰু এই কথাও কোৱা নাই যে তাক মানাটো কোনো মানুহৰ প্ৰতি ওৱাজিব। (আল্লামা শিবলী নুমানীৰ দ্বাৰা লিখিত ছিৰাতুন নুমান ১৮৩ পৃষ্ঠা)

সেয়েহে প্ৰতিজন মুছলিম নৰ-নাৰীৰ প্ৰতি আমাৰ আকুল আবেদন! একমাত্ৰ আল্লাহকেই ভয় কৰক। কিয়ামতৰ দিনা ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ শ্বাফায়াত লাভৰ ইচ্ছা থাকিলে ইমাম আৰু অলিসকলৰ তৰীকা পৰিহাৰ কৰি ৰাছূলুল্লাহ চাল্লাল্লাহু আলাইহি ৱাছাল্লামৰ প্ৰদৰ্শিত কুৰআন ও হাদীছৰ তৰীকাত নিজকে প্ৰতিষ্ঠিত কৰক। সকলো ফিৰ্কা আৰু দলাদলিৰ চিলচিলা খতম কৰি দিয়ক। অন্ধভাৱে কাৰোঁ অনুসৰণ নকৰি জ্ঞান চকু মেলি একমাত্ৰ কিতাবদ্বয়ৰ অনুসৰণ কৰক। পাৰস্পৰিক শত্ৰুতা, ঘৃণা ও হিংসা বিদ্বেষৰ উৎস মূলত কুঠাৰাঘাত কৰি এক অখণ্ড ভাতৃত্বৰ বন্ধনত আবদ্ধ হওঁক। দুনিয়া ও আখিৰাতত পৰম সাৰ্থকতা লাভৰ এইটোৱেই হৈছে একমাত্ৰ পথ।

অধ্যাপক মুহাম্মাদ মোজাম্মিল হক।
অনুবাদ-
#JBR

Comment

বিপদ/আনন্দ লিপিবদ্ধ আছে তাৰপৰা শিক্ষা লোৱা

#তলৰ_আয়াত_দুটি_খুব_ধ্যান_দি_পঢ়ক #বুজিবলৈ_চেষ্টা_কৰক_আৰু_

#সেইমতে_আমল_কৰক-

 

٢٢:٥٧

مَا أَصَابَ مِنْ مُصِيبَةٍ فِي الْأَرْضِ وَلَا فِي أَنْفُسِكُمْ إِلَّا فِي كِتَابٍ مِنْ قَبْلِ أَنْ نَبْرَأَهَا ۚ إِنَّ ذَٰلِكَ عَلَى اللَّهِ يَسِيرٌ

 

৫৭:২২

পৃথিৱীত আৰু তোমালোকৰ ওপৰত আপতিত হোৱা এনে কোনো বিপদ-আপদ নাই যাক আমি সেয়া সংঘটিত হোৱাৰ আগতে এখন কিতাপত লিপিবদ্ধ কৰি ৰখা নাই। নিশ্চয় আল্লাহৰ পক্ষে এয়া অতি সহজ।

 

٢٣:٥٧

لِكَيْلَا تَأْسَوْا عَلَىٰ مَا فَاتَكُمْ وَلَا تَفْرَحُوا بِمَا آتَاكُمْ ۗ وَاللَّهُ لَا يُحِبُّ كُلَّ مُخْتَالٍ فَخُورٍ

 

৫৭:২৩

এইটো এইবাবে যে, যাতে তোমালোকে যি হেৰাইছা তাৰ প্ৰতি পৰিতাপ নকৰা আৰু তেওঁ তোমালোকক যি প্ৰদান কৰিছে তাৰ বাবে উৎফুল্লিত নোহোৱা। কাৰণ আল্লাহে কোনো উদ্ধত আৰু অহংকাৰী ব্যক্তিক পছন্দ নকৰে।

Criticize hadith

Md ubidur silatbd

সহিহওয়ালারা  এবার কী করবেন??

=========≠======≠=========

 

লা- মাযহাবিদের বহুলালোচিত মুল ধর্ম

১ রাফয়ে ইদাঈন ২   সমস্বরে আমীন  বলা

৩  কেরাত খালফাল ইমামের মাসআলা সহ তাদের মুল ধর্মে এবার বাটা পড়ল।

 

কারণ উপর্যুক্ত সব মাসআলার #হাদিসের মুলে এমন একজন বর্ণনা কারী রয়েছেন,  যাকে

লা- মাযহাবিরা মিথ্যুক,  মুনাফিক  জাল বর্নণাকারি আখ্যায়িত করেছেন।

 

#নাম ইবনে শিহাব যুহরি রাহ. তিনি  হাদিসেরসর্ব প্রথম সংকলক,  যার বর্ননায়  এসব মাসআলার ভিত্তি,  অন্য সনদে এসব নেই।

 

#  এই মনিষির সমালোচা করেন লা- মাযহাবি শায়খ হাকিম ফয়েজ আলম সাহেব,  তিনি তার গ্রন্থ [  ছিদ্দিকায়ে কায়েনাত  পৃ ১০৭  ]  এ বলেন –

 

ইবনে শিহাব  জানতে বা অজান্তে মুনাফিক ও মিথ্যুকদের বিষেশ #এজেন্ট ছিলেন,

অধিকাংশ মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর হাদিস রেওয়ায়েত তার দিকেই সম্পৃক্ত করা হয়।

 

তিনি আরো বলেন-  ইবনে শিহাব সম্পূকে একথাও বর্নিত আছে যে, তিনি এমন সব লোকদের থেকেও মধ্যস্থতা ছাড়াও হাদিস বর্ননা করতেন

যারা তার জন্মের আগেই মারা গেছেন,

বিখ্যাত শিয়া আলেম আব্বাস কুমি বলেন- ইবনে শিহাব প্রথমে সুন্নি ছিলেন পরে শিয়া মত কবুল করেছেন।

عين الرجال في أسماء الرجال

কিতাবেও ইবনে শিহাব কে শিয়া বলা হয়েছে

(أعاذنا الله منه )

 

® এই হলো তাদের দৃষ্টতা

তাহলে এবার আমরাও তর্কের খাতিরে একবারের জন্য মেনে নিলাম,  যে তিনি এরকম ছিলেন।

 

সুতরাং এখন আমাদের লা-মাযহাবি বন্দুদের মুল ধর্ম #রাফয়েইদাঈন  #কেরাতখালফালইমাম

#উচ্চস্বরেআমীন  বলা যা ইবনে ওমর রা. উবাদা রা. ওয়ায়েল রা .  থেকে ঐ মিথ্যুক মুনাফিকের এজেন্ডা ইবনে শিহাব  সুত্রে-ই   বর্নিত।

 

তাই এবার এসব থেকে  লা- মাযহাবিদের

হাত গুটিয়ে নেয়া-ই সমুচিৎ বলে মনে করি।

 

নিম্নে ইবনে শিহাব রাহ. এর সুত্রে  বুখারি / মুসলিম থেকে হাদিস। গুলো   দেয়া হলো

 

বুখারি শরিফ  হাদিস নং ৭৫৬   কেরাতের হাদিস

حدثنا علي بن عبد الله قال: حدثنا سفيان قال: حدثنا الزهري عن محمود بن الربيع عن عبادة بن الصامت أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال لا صلاة لمن لم يقرأ بفاتحة الكتاب

 

বুখারি হাদিস ৭৮০ -৬৪০২  উচ্চস্বরে আমীন বলা

حدثنا عبد الله بن يوسف قال: أخبرنا مالك عن ابن شهاب عن سعيد بن المسيب وأبي سلمة بن عبد الرحمن أنهما أخبراه عن أبي هريرة أن النبي صلى الله عليه وسلم قال إذا أمن الإمام فأمنوا فإنه من وافق تأمينه تأمين الملائكة غفر له ما تقدم من ذنبه

وقال ابن شهاب وكان رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول آمي

 

বুখারি শরিফ হাদিস  ৭৩৫- ৭৩৬-৭৩৮-৭৩৯ রাফয়ে ইদাঈন

حدثنا محمد بن مقاتل قال: أخبرنا عبد الله قال: أخبرنا يونس عن الزهري أخبرني سالم بن عبد الله عن عبد الله بن عمر رضي الله عنهما قال رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا قام في الصلاة رفع يديه حتى يكونا حذو منكبيه، وكان يفعل ذلك حين يكبر للركوع، ويفعل ذلك إذا رفع رأسه من الركوع

মুসলিম শরিফ হাদিস ৮৮৮ রাফয়ে ইদাঈন

حدثني محمد بن رافع حدثنا عبد الرزاق أخبرنا ابن جريج حدثني ابن شهاب عن سالم بن عبد الله أن ابن عمر قال كان رسول الله صلى الله عليه وسلم إذا قام للصلاة رفع يديه حتى تكونا حذو منكبيه ثم كبر فإذا أراد أن يركع فعل مثل ذلك وإذا رفع من الركوع فعل مثل ذلك ولا يفعله حين يرفع رأسه من السجود.

মুসলিম হাদিস ৯০০ কেরাত খালফাল ইমাম

حدثنا أبو بكر بن أبي شيبة وعمرو الناقد وإسحاق بن إبراهيم جميعا عن سفيان- قال أبو بكر حدثنا سفيان بن عيينة- عن الزهري عن محمود بن الربيع عن عبادة بن الصامت يبلغ به النبي صلى الله عليه وسلم: لا صلاة لمن لم يقرأ بفاتحة الكتاب

মুসলিম হাদিস ৯৪২  আমীন

حدثنا يحيى بن يحيى قال قرأت على مالك عن ابن شهاب عن سعيد بن المسيب وأبي سلمة بن عبد الرحمن أنهما أخبراه عن أبي هريرة أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال: إذا أمن الإمام فأمنوا فإنه من وافق تأمينه تأمين الملائكة غفر له ما تقدم من ذنبه)). قال ابن شهاب كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول: آمين

প্রিয়..  লা- মাযহাবি বন্দুরা এখন কি!! সিদ্বান্ত  নিবেন,  আমাকে জানিয়ে বর্ধিত করবেন।

রি পোষ্ট

 

লিখনে……

মুহা. উবায়দুল্লাহ আসআদ

-জৈন্তাপুর   সিলেট

খাদেম: লালারচক রাহমানিয়া মাদরাসা,

কানাইঘাট সিলেট

হটলাইন.  01763807278

2bTran.বিতর সালাতের সঠিক

বিতর সালাতের সঠিক

বিতর সালাতের সঠিক নিয়ম।
.
বিতর ছালাত সুন্নাতে মুওয়াক্কাদাহ।[1] যা এশার ফরয ছালাতের পর হ’তে ফজর পর্যন্ত সুন্নাত ও নফল ছালাত সমূহের শেষে আদায় করতে হয়।[2] বিতর ছালাত খুবই ফযীলতপূর্ণ। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বাড়ীতে বা সফরে কোন অবস্থায় বিতর ও ফজরের দু’রাক‘আত সুন্নাত পরিত্যাগ করতেন না।[3]
.
‘বিতর’ অর্থ বেজোড়। যা মূলতঃ এক রাক‘আত। কেননা এক রাক‘আত যোগ না করলে কোন ছালাতই বেজোড় হয় না। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেন, ‘রাতের নফল ছালাত দুই দুই (مَثْنَى مَثْنَى)। অতঃপর যখন তোমাদের কেউ ফজর হয়ে যাবার আশংকা করবে, তখন সে যেন এক রাক‘আত পড়ে নেয়। যা তার পূর্বেকার সকল নফল ছালাতকে বিতরে পরিণত করবে’।[4] অন্য হাদীছে তিনি বলেন, اَلْوِتْرُ رَكْعَةٌ مِّنْ آخِرِ اللَّيْلِ ‘বিতর রাত্রির শেষে এক রাক‘আত মাত্র’।[5] আয়েশা (রাঃ) বলেন, وَكَانَ يُوْتِرُ بِوَاحِدَةٍ ‘রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এক রাক‘আত দ্বারা বিতর করতেন’। [6]
.
রাতের নফল ছালাত সহ বিতর ১, ৩, ৫, ৭, ৯, ১১ ও ১৩ রাক‘আত পর্যন্ত (وَلاَ بِأَكْثَرَ مِنْ ثَلاَثَ عَشْرَةَ) পড়া যায় এবং তা প্রথম রাত্রি, মধ্য রাত্রি, ও শেষ রাত্রি সকল সময় পড়া চলে।[7] যদি কেউ বিতর পড়তে ভুলে যায় অথবা বিতর না পড়ে ঘুমিয়ে যায়, তবে স্মরণ হ’লে কিংবা রাতে বা সকালে ঘুম হ’তে জেগে উঠার পরে সুযোগ মত তা আদায় করবে।[8] অন্যান্য সুন্নাত-নফলের ন্যায় বিতরের ক্বাযাও আদায় করা যাবে।[9] তিন রাক‘আত বিতর একটানা ও এক সালামে পড়াই উত্তম।[10] ৫ রাক‘আত বিতরে একটানা পাঁচ রাক‘আত শেষে বৈঠক ও সালাম সহ বিতর করবে। [11] সাত ও নয় রাক‘আত বিতরে ছয় ও আট রাক‘আতে প্রথম বৈঠক করবে। অতঃপর সপ্তম ও নবম রাক‘আতে শেষ বৈঠক করে সালাম ফিরাবে।[12]
.
চার খলীফাসহ অধিকাংশ ছাহাবী, তাবেঈ ও মুজতাহিদ ইমামগণ এক রাক‘আত বিতরে অভ্যস্ত ছিলেন।[13] অতএব ‘এক রাক‘আত বিতর সঠিক নয় এবং এক রাক‘আতে কোন ছালাত হয় না’। ‘বিতর তিন রাক‘আতে সীমাবদ্ধ’। ‘বিতর ছালাত মাগরিবের ছালাতের ন্যায়’। ‘তিন রাক‘আত বিতরের উপরে উম্মতের ইজমা হয়েছে’ বলে যেসব কথা সমাজে চালু আছে, শরী‘আতে এর কোন ভিত্তি নেই’।[14] রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, তোমরা মাগরিবের ছালাতের ন্যায় (মাঝখানে বৈঠক করে) বিতর আদায় করো না’।[15] উবাই ইবনু কা‘ব (রাঃ) বলেন যে, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) তিন রাক‘আত বিতরের ১ম রাক‘আতে সূরা আ‘লা, ২য় রাক‘আতে সূরা কাফেরূণ ও ৩য় রাক‘আতে সূরা ইখলাছ পাঠ করতেন। ঐ সাথে ফালাক্ব ও নাস পড়ার কথাও এসেছে।[16] এসময় তিনি শেষ রাক‘আতে ব্যতীত সালাম ফিরাতেন না (وَلاَ يُسَلِّمُ إِلاَّ فِي آخِرِهِنَّ)। [17]
.
কুনূত (القنوت) :
.
‘ কুনূত’ অর্থ বিনম্র আনুগত্য। কুনূত দু’প্রকার। কুনূতে রাতেবাহ ও কুনূতে নাযেলাহ। প্রথমটি বিতর ছালাতের শেষ রাক‘আতে পড়তে হয়। দ্বিতীয়টি বিপদাপদ ও বিশেষ কোন যরূরী কারণে ফরয ছালাতের শেষ রাক‘আতে পড়তে হয়। বিতরের কুনূতের জন্য হাদীছে বিশেষ দো‘আ বর্ণিত হয়েছে।[18] বিতরের কুনূত সারা বছর পড়া চলে।[19] তবে মাঝে মধ্যে ছেড়ে দেওয়া ভাল। কেননা বিতরের জন্য কুনূত ওয়াজিব নয়। [20] দো‘আয়ে কুনূত রুকূর আগে ও পরে[21] দু’ভাবেই পড়া জায়েয আছে। আবু হুরায়রা (রাঃ) হ’তে স্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে যে,
.
أَنَّ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ إِذَا أَرَادَ أَنْ يَّدْعُوَ عَلَى أَحَدٍ أَوْ لِأَحَدٍ قَنَتَ بَعْدَ الرُّكُوْعِ، متفق عليه-
.
‘রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) যখন কারো বিরুদ্ধে বা কারো পক্ষে দো‘আ করতেন, তখন রুকূর পরে কুনূত পড়তেন…।[22] ইমাম বায়হাক্বী বলেন,
.
رُوَاةُ الْقُنُوْتِ بَعْدَ الرُّكُوْعِ أَكْثَرُ وَأَحْفَظُ وَعَلَيْهِ دَرَجَ الْخُلَفَاءُ الرَّاشِدُوْنَ-
.
‘রুকূর পরে কুনূতের রাবীগণ সংখ্যায় অধিক ও অধিকতর স্মৃতিসম্পন্ন এবং এর উপরেই খুলাফায়ে রাশেদ্বীন আমল করেছেন’। [23] হযরত ওমর, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ, আনাস, আবু হুরায়রা (রাঃ) প্রমুখ ছাহাবী থেকে বিতরের কুনূতে বুক বরাবর হাত উঠিয়ে দো‘আ করা প্রমাণিত আছে।[24] কুনূত পড়ার জন্য রুকূর পূর্বে তাকবীরে তাহরীমার ন্যায় দু’হাত উঠানো ও পুনরায় বাঁধার প্রচলিত প্রথার কোন বিশুদ্ধ দলীল নেই।[25] ইমাম আহমাদ বিন হাম্বলকে জিজ্ঞেস করা হ’ল যে, বিতরের কুনূত রুকূর পরে হবে, না পূর্বে হবে এবং এই সময় দো‘আ করার জন্য হাত উঠানো যাবে কি-না। তিনি বললেন, বিতরের কুনূত হবে রুকূর পরে এবং এই সময় হাত উঠিয়ে দো‘আ করবে।[26] ইমাম আবু ইউসুফ (রহঃ) বলেন, বিতরের কুনূতের সময় দু’হাতের তালু আসমানের দিকে বুক বরাবর উঁচু থাকবে। ইমাম ত্বাহাবী ও ইমাম কার্খীও এটাকে পসন্দ করেছেন।[27] এই সময় মুক্তাদীগণ ‘আমীন’ ‘আমীন’ বলবেন।[28]
.
দো‘আয়ে কুনূত (دعاء قنوت الوتر) :
.
হাসান বিন আলী (রাঃ) বলেন যে, বিতরের কুনূতে বলার জন্য রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) আমাকে নিম্নোক্ত দো‘আ শিখিয়েছেন।-
.
اَللَّهُمَّ اهْدِنِيْ فِيْمَنْ هَدَيْتَ، وَعَافِنِىْ فِيْمَنْ عَافَيْتَ، وَتَوَلَّنِيْ فِيْمَنْ تَوَلَّيْتَ، وَبَارِكْ لِيْ فِيْمَا أَعْطَيْتَ، وَقِنِيْ شَرَّ مَا قَضَيْتَ، فَإِنَّكَ تَقْضِىْ وَلاَ يُقْضَى عَلَيْكَ، إنَّهُ لاَ يَذِلُّ مَنْ وَّالَيْتَ، وَ لاَ يَعِزُّ مَنْ عَادَيْتَ، تَبَارَكْتَ رَبَّنَا وَتَعَالَيْتَ، وَصَلَّى اللهُ عَلَى النَّبِىِّ-
.
উচ্চারণ : আল্লা-হুম্মাহ্দিনী ফীমান হাদায়তা, ওয়া ‘আ-ফিনী ফীমান ‘আ-ফায়তা, ওয়া তাওয়াল্লানী ফীমান তাওয়াল্লায়তা, ওয়া বা-রিক্লী ফীমা ‘আ‘ত্বায়তা, ওয়া ক্বিনী শার্রা মা ক্বাযায়তা; ফাইন্নাকা তাক্বযী ওয়া লা ইয়ুক্বযা ‘আলায়কা, ইন্নাহূ লা ইয়াযিল্লু মাঁও ওয়া-লায়তা, ওয়া লা ইয়া‘ইয্ঝু মান্ ‘আ-দায়তা, তাবা-রক্তা রববানা ওয়া তা‘আ-লায়তা, ওয়া ছাল্লাল্লা-হু ‘আলান্ নাবী’ ।[29]
.
জামা‘আতে ইমাম ছাহেব ক্রিয়াপদের শেষে একবচন…‘নী’-এর স্থলে বহুবচন…. ‘না’ বলতে পারেন।[30]
.
অনুবাদ : হে আল্লাহ! তুমি যাদেরকে সুপথ দেখিয়েছ, আমাকে তাদের মধ্যে গণ্য করে সুপথ দেখাও। যাদেরকে তুমি মাফ করেছ, আমাকে তাদের মধ্যে গণ্য করে মাফ করে দাও। তুমি যাদের অভিভাবক হয়েছ, তাদের মধ্যে গণ্য করে আমার অভিভাবক হয়ে যাও। তুমি আমাকে যা দান করেছ, তাতে বরকত দাও। তুমি যে ফায়ছালা করে রেখেছ, তার অনিষ্ট হ’তে আমাকে বাঁচাও। কেননা তুমি সিদ্ধান্ত দিয়ে থাক, তোমার বিরুদ্ধে কেউ সিদ্ধান্ত দিতে পারে না। তুমি যার সাথে বন্ধুত্ব রাখ, সে কোনদিন অপমানিত হয় না। আর তুমি যার সাথে দুশমনী কর, সে কোনদিন সম্মানিত হ’তে পারে না। হে আমাদের প্রতিপালক! তুমি বরকতময় ও সর্বোচ্চ। আল্লাহ তাঁর নবীর উপরে রহমত বর্ষণ করুন’।
.
দো‘আয়ে কুনূত শেষে মুছল্লী ‘আল্লাহু আকবার’ বলে সিজদায় যাবে।[31] কুনূতে কেবল দু’হাত উঁচু করবে। মুখে হাত বুলানোর হাদীছ যঈফ।[32] বিতর শেষে তিনবার সরবে ‘সুবহা-নাল মালিকিল কুদ্দূস’ শেষদিকে দীর্ঘ টানে বলবে’।[33] অতঃপর ইচ্ছা করলে বসেই সংক্ষেপে দু’রাক‘আত নফল ছালাত আদায় করবে এবং সেখানে প্রথম রাক‘আতে সূরা যিলযাল ও দ্বিতীয় রাক‘আতে সূরা কাফেরূণ পাঠ করবে।[34]
.
উল্লেখ্য যে, اَللَّهُمَّ إِنَّا نَسْتَعِيْنُكَ وَنَسْتَغْفِرُكَ আল্লা-হুম্মা ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা ওয়া নাস্তাগফিরুকা…’ বলে বিতরে যে কুনূত পড়া হয়, সেটার হাদীছ ‘মুরসাল’ বা যঈফ।[35] অধিকন্তু এটি কুনূতে নাযেলাহ হিসাবে বর্ণিত হয়েছে, কুনূতে রাতেবাহ হিসাবে নয়।[36] অতএব বিতরের কুনূতের জন্য উপরে বর্ণিত দো‘আটিই সর্বোত্তম। [37]
.
ইমাম তিরমিযী বলেন, لاَ نَعْرِفُ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي الْقُنُوْتِ شَيْئًا أَحْسَنَ مِنْ هَذَا ‘নবী করীম (ছাঃ) থেকে কুনূতের জন্য এর চেয়ে কোন উত্তম দো‘আ আমরা জানতে পারিনি’।[38]
.
কুনূতে নাযেলাহ (قنوت النازلة) :
.
যুদ্ধ, শত্রুর আক্রমণ প্রভৃতি বিপদের সময় অথবা কারুর জন্য বিশেষ কল্যাণ কামনায় আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করে বিশেষভাবে এই দো‘আ পাঠ করতে হয়। ‘কুনূতে নাযেলাহ’ ফজর ছালাতে অথবা সব ওয়াক্তে ফরয ছালাতের শেষ রাক‘আতে রুকূর পরে দাঁড়িয়ে ‘রববানা লাকাল হাম্দ’ বলার পরে দু’হাত উঠিয়ে সরবে পড়তে হয়। [39] কুনূতে নাযেলাহর জন্য রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) থেকে নির্দিষ্ট কোন দো‘আ বর্ণিত হয়নি। অবস্থা বিবেচনা করে ইমাম আরবীতে[40] দো‘আ পড়বেন ও মুক্তাদীগণ ‘আমীন’ ‘আমীন’ বলবেন। [41] রাসূল (ছাঃ) বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্যক্তি বা শক্তির বিরুদ্ধে এমনকি এক মাস যাবৎ একটানা বিভিন্নভাবে দো‘আ করেছেন।[42] তবে হযরত ওমর (রাঃ) থেকে এ বিষয়ে একটি দো‘আ বর্ণিত হয়েছে। যা তিনি ফজরের ছালাতে পাঠ করতেন এবং যা বিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে দৈনিক পাঁচবার ছালাতে পাঠ করা যেতে পারে। যেমন-
.
اَللَّهُمَّ اغْفِرْلَنَا وَلِلْمُؤْمِنِيْنَ وَالْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُسْلِمِيْنَ وَالْمُسْلِمَاتِ، وَأَلِّفْ بَيْنَ قُلُوْبِهِمْ وَأَصْلِحْ ذَاتَ بَيْنِهِمْ ، وَانْصُرْهُمْ عَلَى عَدُوِّكَ وَعَدُوِّهِمْ، اَللَّهُمَّ الْعَنِ الْكَفَرَةَ الَّذِيْنَ يَصُدُّوْنَ عَنْ سَبِيْلِكَ وَيُكَذِّبُوْنَ رُسُلَكَ وَيُقَاتِلُوْنَ أَوْلِيَاءَكَ، اَللَّهُمَّ خَالِفْ بَيْنَ كَلِمَتِهِمْ وَزَلْزِِلْ أَقْدَامَهُمْ وَأَنْزِلْ بِهِمْ بَأْسَكَ الَّذِيْ لاَ تَرُدُّهُ عَنِ الْقَوْمِ الْمُجْرِمِيْنَ-
.
উচ্চারণ : আল্লা-হুম্মাগফির লানা ওয়া লিল মু’মিনীনা ওয়াল মু‘মিনা-তি ওয়াল মুসলিমীনা ওয়াল মুসলিমা-তি, ওয়া আল্লিফ বায়না কুলূবিহিম, ওয়া আছলিহ যা-তা বায়নিহিম, ওয়ান্ছুরহুম ‘আলা ‘আদুউবিকা ওয়া ‘আদুউবিহিম। আল্লা-হুম্মাল‘আনিল কাফারাতাল্লাযীনা ইয়াছুদ্দূনা ‘আন সাবীলিকা ওয়া ইয়ুকায্যিবূনা রুসুলাকা ওয়া ইয়ুক্বা-তিলূনা আউলিয়া-আকা। আল্লা-হুম্মা খা-লিফ বায়না কালিমাতিহিম ওয়া ঝালঝিল আক্বদা-মাহুম ওয়া আনঝিল বিহিম বা’সাকাল্লাযী লা তারুদ্দুহূ ‘আনিল ক্বাউমিল মুজরিমীন।
.
অনুবাদ : হে আল্লাহ! আপনি আমাদেরকে এবং সকল মুমিন-মুসলিম নর-নারীকে ক্ষমা করুন। আপনি তাদের অন্তর সমূহে মহববত পয়দা করে দিন ও তাদের মধ্যকার বিবাদ মীগোশতা করে দিন। আপনি তাদেরকে আপনার ও তাদের শত্রুদের বিরুদ্ধে সাহায্য করুন। হে আল্লাহ! আপনি কাফেরদের উপরে লা‘নত করুন। যারা আপনার রাস্তা বন্ধ করে, আপনার প্রেরিত রাসূলগণকে অবিশ্বাস করে ও আপনার বন্ধুদের সাথে লড়াই করে। হে আল্লাহ! আপনি তাদের দলের মধ্যে ভাঙ্গন সৃষ্টি করে দিন ও তাদের পদসমূহ টলিয়ে দিন এবং আপনি তাদের মধ্যে আপনার প্রতিশোধকে নামিয়ে দিন, যা পাপাচারী সম্প্রদায় থেকে আপনি ফিরিয়ে নেন না’।[43]
.
অতঃপর প্রথমবার বিসমিল্লাহ… সহ ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা …. এবং দ্বিতীয়বার বিসমিল্লাহ… সহ ইন্না না‘বুদুকা …বর্ণিত আছে।[44]
.
উল্লেখ্য যে, উক্ত ‘কুনূতে নাযেলাহ’ থেকে মধ্যম অংশটুকু অর্থাৎ ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা … নিয়ে সেটাকে ‘কুনূতে বিতর’ হিসাবে চালু করা হয়েছে, যা নিতান্তই ভুল। আলবানী বলেন যে, এই দো‘আটি ওমর (রাঃ) ফজরের ছালাতে কুনূতে নাযেলাহ হিসাবে পড়তেন। এটাকে তিনি বিতরের কুনূতে পড়েছেন বলে আমি জানতে পারিনি।[45]
.
[1] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৩; নাসাঈ হা/১৬৭৬; মির‘আত ২/২০৭; ঐ, ৪/২৭৩-৭৪; শাহ অলিউল্লাহ দেহলভী, হুজ্জাতুল্লা-হিল বা-লিগাহ ২/১৭। [2] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৪; ছহীহ আত-তারগীব হা/৫৯২-৯৩। [3] . ইবনুল ক্বাইয়িম, যা-দুল মা‘আ-দ (বৈরূত : মুওয়াসসাসাতুর রিসালাহ, ২৯ সংস্করণ, ১৪১৬/১৯৯৬) ১/৪৫৬। [4] . عَنِ ابْنِ عُمَرَ: أَنَّ رَجُلاً سَأَلَ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ صَلاَةِ اللَّيْلِ، فَقَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: صَلاَةُ اللَّيْلِ مَثْنَى مَثْنَى، فَإِذَا خَشِيَ أَحَدُكُمُ الصُّبْحَ صَلَّى رَكْعَةً وَاحِدَةً تُوتِرُ لَهُ مَا قَدْ صَلَّى- বুখারী (ফাৎহ সহ) হা/৯৯০ ‘বিতর’ অধ্যায়-১৪; মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৫৪ ‘ছালাত’ অধ্যায়-৪, ‘বিতর’ অনুচ্ছেদ-৩৫। [5] . মুসলিম, মিশকাত হা/১২৫৫। [6] . ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৮৫। [7] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৫; আবুদাঊদ, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৬৩-৬৫; মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৬১। [8] . তিরমিযী, আবুদাঊদ, ইবনু মাজাহ মিশকাত হা/১২৬৮, ১২৭৯; নায়ল ৩/২৯৪, ৩১৭-১৯, মির‘আত ৪/২৭৯। [9] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৮; নায়লুল আওত্বার ৩/৩১৮-১৯। [10] . মির‘আত ৪/২৭৪; হাকেম ১/৩০৪ পৃঃ। [11] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৫৬; মির‘আত ৪/২৬২। [12] . মুসলিম, মিশকাত হা/১২৫৭; বায়হাক্বী ৩/৩০; মির‘আত ৪/২৬৪-৬৫। [13] . নায়লুল আওত্বার ৩/২৯৬; মির‘আত ৪/২৫৯। [14] . মিরক্বাত ৩/১৬০-৬১, ১৭০; মির‘আত হা/১২৬২, ১২৬৪, ১২৭৩ -এর ব্যাখ্যা দ্রষ্টব্যঃ ৪/২৬০-৬২, ২৭৫। [15] . দারাকুৎনী হা/১৬৩৪-৩৫; সনদ ছহীহ। [16] . হাকেম ১/৩০৫, আবুদাঊদ, দারেমী, মিশকাত হা/১২৬৯, ১২৭২। [17] . নাসাঈ হা/১৭০১, ‘ক্বিয়ামুল লাইল’ অধ্যায়-২০, অনুচ্ছেদ-৩৭; মির‘আত ৪/২৬০। [18] . তিরমিযী, আবুদাঊদ, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৭৩। [19] . প্রাগুক্ত, মিশকাত হা/১২৭৩; মির‘আত ৪/২৮৩; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৬। [20] . আবুদাঊদ, নাসাঈ, তিরমিযী, মিশকাত হা/১২৯১-৯২ ‘কুনূত’ অনুচ্ছেদ-৩৬; মির‘আত ৪/৩০৮। [21] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৮৯; ইবনু মাজাহ হা/১১৮৩-৮৪, মিশকাত হা/১২৯৪; মির‘আত ৪/২৮৬-৮৭; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭; আলবানী, ক্বিয়ামু রামাযান পৃঃ ২৩। [22] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৮৮। [23] . বায়হাক্বী ২/২০৮; তুহফাতুল আহওয়াযী (কায়রো : ১৪০৭/১৯৮৭) হা/৪৬৩-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ২/৫৬৬ পৃঃ। [24] . বায়হাক্বী ২/২১১-১২; মির‘আত ৪/৩০০; তুহফা ২/৫৬৭। [25] . ইরওয়াউল গালীল হা/৪২৭; মির‘আত ৪/২৯৯, ‘কুনূত’ অনুচ্ছেদ-৩৬। [26] . তুহফা ২/৫৬৬; মাসায়েলে ইমাম আহমাদ, মাসআলা নং ৪১৭-২১। [27] . মির‘আত ৪/৩০০ পৃঃ। [28] . মির‘আত ৪/৩০৭; ছিফাত ১৫৯ পৃঃ; আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৯০। [29] . সুনানু আরবা‘আহ, দারেমী, মিশকাত হা/১২৭৩ ‘বিতর’ অনুচ্ছেদ-৩৫; ইরওয়া হা/৪২৯, ২/১৭২। উল্লেখ্য যে, কুনূতে বর্ণিত উপরোক্ত দো‘আর শেষে ‘দরূদ’ অংশটি আলবানী ‘যঈফ’ বলেছেন। তবে ইবনু মাসঊদ, আবু মূসা, ইবনু আববাস, বারা, আনাস প্রমুখ ছাহাবী থেকে বিতরের কুনূত শেষে রাসূলের উপর দরূদ পাঠ করা প্রমাণিত হওয়ায় তিনি তা পাঠ করা জায়েয হওয়ার পক্ষে মত প্রকাশ করেছেন -ইরওয়া ২/১৭৭, তামামুল মিন্নাহ ২৪৬; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭)। ছাহেবে মির‘আত বলেন, ইবনু আবী আছেম ও ছাহেবে মিরক্বাত বলেন, ইবনু হিববান বর্ণিত কুনূতে وَنَسْتَغْفِرُكَ وَنَتُوْبُ إِلَيْكَ -এসেছে (মির‘আত ৪/২৮৫)। তবে সেটি বর্তমান গবেষণায় প্রমাণিত হয়নি। সেকারণ আমরা এটা ‘মতন’ থেকে বাদ দিলাম। তবে দো‘আয়ে কুনূতের শেষে ইস্তেগফার সহ যেকোন দো‘আ পাঠের ব্যাপারে অধিকাংশ বিদ্বান মত প্রকাশ করেছেন। কেননা আল্লাহর রাসূল (ছাঃ) কুনূতে কখনো একটি নির্দিষ্ট দো‘আ পড়তেন না, বরং বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দো‘আ পড়েছেন (দ্রঃ আলী (রাঃ) বর্ণিত হাদীছ আবুদাঊদ, তিরমিযী প্রভৃতি, মিশকাত হা/১২৭৬; মাজমূ‘ ফাতাওয়া ইবনে তায়মিয়াহ ২৩/১১০-১১; মির‘আত ৪/২৮৫; লাজনা দায়েমাহ, ফৎওয়া নং ১৮০৬৯; মাজমূ‘ ফাতাওয়া উছায়মীন, ফৎওয়া নং ৭৭৮-৭৯)। তাছাড়া যেকোন দো‘আর শুরুতে হাম্দ ও দরূদ পাঠের বিষয়ে ছহীহ হাদীছে বিশেষ নির্দেশ রয়েছে (আহমাদ, আবুদাঊদ হা/১৪৮১; ছিফাত পৃঃ ১৬২)। অতএব আমরা ‘ইস্তেগফার’ সহ যেকোন দো‘আ ও ‘দরূদ’ দো‘আয়ে কুনূতের শেষে পড়তে পারি। [30] . আহমাদ, ইরওয়া হা/৪২৯; ছহীহ ইবনু হিববান হা/৭২২; শায়খ আব্দুল আযীয বিন আব্দুল্লাহ বিন বায, মাজমূ‘ ফাতাওয়া, প্রশ্নোত্তর সংখ্যা : ২৯০, ৪/২৯৫ পৃঃ। [31] . আহমাদ, নাসাঈ হা/১০৭৪; আলবানী, ছিফাতু ছালা-তিন্নবী, ১৬০ পৃঃ। [32] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭; যঈফ আবুদাঊদ হা/১৪৮৫; বায়হাক্বী, মিশকাত হা/২২৫৫ -এর টীকা; ইরওয়াউল গালীল হা/৪৩৩-৩৪, ২/১৮১ পৃঃ। [33] . নাসাঈ হা/১৬৯৯ সনদ ছহীহ। [34] . আহমাদ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৮৪, ৮৫, ৮৭; সিলসিলা ছহীহাহ হা/১৯৯৩। [35] . মারাসীলে আবুদাঊদ হা/৮৯; বায়হাক্বী ২/২১০; মিরক্বাত ৩/১৭৩-৭৪; মির‘আত ৪/২৮৫। [36] . ইরওয়া হা/৪২৮-এর শেষে, ২/১৭২ পৃঃ। [37] . মির‘আত হা/১২৮১-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ৪/২৮৫ পৃঃ। [38] . তুহফাতুল আহওয়াযী হা/৪৬৩-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ২/৫৬৪ পৃঃ; বায়হাক্বী ২/২১০-১১। [39] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৮৮-৯০; ছিফাত ১৫৯; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৮-৪৯। [40] . মুসলিম, মিশকাত হা/৯৭৮, ‘ছালাতে অসিদ্ধ ও সিদ্ধ কর্ম সমূহ’ অনুচ্ছেদ-১৯; মির‘আত হা/৯৮৫-এর ব্যাখ্যা দ্রষ্টব্য, ৩/৩৪২ পৃঃ; শাওকানী, আসসায়লুল জার্রার ১/২২১। [41] . আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৯০; মির‘আত ৪/৩০৭; ছিফাত ১৫৯ পৃঃ। [42] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, আবুদাঊদ, নাসাঈ, মিশকাত হা/১২৮৮-৯১। [43] . বায়হাক্বী ২/২১০-১১। বায়হাক্বী অত্র হাদীছকে ‘ছহীহ মওছূল’ বলেছেন। [44] . বায়হাক্বী ২/২১১ পৃঃ। [45] . ইরওয়াউল গালীল হা/৪২৮, ২/১৭২ পৃঃ।
.
.
বইঃ ছালাতুর রাসূল (ছাঃ), অধ্যায়ঃ বিভিন্ন ছালাতের পরিচয়, অনুচ্ছেদঃ ১. বিতর ছালাত

নিয়ম।
.
বিতর ছালাত সুন্নাতে মুওয়াক্কাদাহ।[1] যা এশার ফরয ছালাতের পর হ’তে ফজর পর্যন্ত সুন্নাত ও নফল ছালাত সমূহের শেষে আদায় করতে হয়।[2] বিতর ছালাত খুবই ফযীলতপূর্ণ। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বাড়ীতে বা সফরে কোন অবস্থায় বিতর ও ফজরের দু’রাক‘আত সুন্নাত পরিত্যাগ করতেন না।[3]
.
‘বিতর’ অর্থ বেজোড়। যা মূলতঃ এক রাক‘আত। কেননা এক রাক‘আত যোগ না করলে কোন ছালাতই বেজোড় হয় না। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেন, ‘রাতের নফল ছালাত দুই দুই (مَثْنَى مَثْنَى)। অতঃপর যখন তোমাদের কেউ ফজর হয়ে যাবার আশংকা করবে, তখন সে যেন এক রাক‘আত পড়ে নেয়। যা তার পূর্বেকার সকল নফল ছালাতকে বিতরে পরিণত করবে’।[4] অন্য হাদীছে তিনি বলেন, اَلْوِتْرُ رَكْعَةٌ مِّنْ آخِرِ اللَّيْلِ ‘বিতর রাত্রির শেষে এক রাক‘আত মাত্র’।[5] আয়েশা (রাঃ) বলেন, وَكَانَ يُوْتِرُ بِوَاحِدَةٍ ‘রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এক রাক‘আত দ্বারা বিতর করতেন’। [6]
.
রাতের নফল ছালাত সহ বিতর ১, ৩, ৫, ৭, ৯, ১১ ও ১৩ রাক‘আত পর্যন্ত (وَلاَ بِأَكْثَرَ مِنْ ثَلاَثَ عَشْرَةَ) পড়া যায় এবং তা প্রথম রাত্রি, মধ্য রাত্রি, ও শেষ রাত্রি সকল সময় পড়া চলে।[7] যদি কেউ বিতর পড়তে ভুলে যায় অথবা বিতর না পড়ে ঘুমিয়ে যায়, তবে স্মরণ হ’লে কিংবা রাতে বা সকালে ঘুম হ’তে জেগে উঠার পরে সুযোগ মত তা আদায় করবে।[8] অন্যান্য সুন্নাত-নফলের ন্যায় বিতরের ক্বাযাও আদায় করা যাবে।[9] তিন রাক‘আত বিতর একটানা ও এক সালামে পড়াই উত্তম।[10] ৫ রাক‘আত বিতরে একটানা পাঁচ রাক‘আত শেষে বৈঠক ও সালাম সহ বিতর করবে। [11] সাত ও নয় রাক‘আত বিতরে ছয় ও আট রাক‘আতে প্রথম বৈঠক করবে। অতঃপর সপ্তম ও নবম রাক‘আতে শেষ বৈঠক করে সালাম ফিরাবে।[12]
.
চার খলীফাসহ অধিকাংশ ছাহাবী, তাবেঈ ও মুজতাহিদ ইমামগণ এক রাক‘আত বিতরে অভ্যস্ত ছিলেন।[13] অতএব ‘এক রাক‘আত বিতর সঠিক নয় এবং এক রাক‘আতে কোন ছালাত হয় না’। ‘বিতর তিন রাক‘আতে সীমাবদ্ধ’। ‘বিতর ছালাত মাগরিবের ছালাতের ন্যায়’। ‘তিন রাক‘আত বিতরের উপরে উম্মতের ইজমা হয়েছে’ বলে যেসব কথা সমাজে চালু আছে, শরী‘আতে এর কোন ভিত্তি নেই’।[14] রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, তোমরা মাগরিবের ছালাতের ন্যায় (মাঝখানে বৈঠক করে) বিতর আদায় করো না’।[15] উবাই ইবনু কা‘ব (রাঃ) বলেন যে, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) তিন রাক‘আত বিতরের ১ম রাক‘আতে সূরা আ‘লা, ২য় রাক‘আতে সূরা কাফেরূণ ও ৩য় রাক‘আতে সূরা ইখলাছ পাঠ করতেন। ঐ সাথে ফালাক্ব ও নাস পড়ার কথাও এসেছে।[16] এসময় তিনি শেষ রাক‘আতে ব্যতীত সালাম ফিরাতেন না (وَلاَ يُسَلِّمُ إِلاَّ فِي آخِرِهِنَّ)। [17]
.
কুনূত (القنوت) :
.
‘ কুনূত’ অর্থ বিনম্র আনুগত্য। কুনূত দু’প্রকার। কুনূতে রাতেবাহ ও কুনূতে নাযেলাহ। প্রথমটি বিতর ছালাতের শেষ রাক‘আতে পড়তে হয়। দ্বিতীয়টি বিপদাপদ ও বিশেষ কোন যরূরী কারণে ফরয ছালাতের শেষ রাক‘আতে পড়তে হয়। বিতরের কুনূতের জন্য হাদীছে বিশেষ দো‘আ বর্ণিত হয়েছে।[18] বিতরের কুনূত সারা বছর পড়া চলে।[19] তবে মাঝে মধ্যে ছেড়ে দেওয়া ভাল। কেননা বিতরের জন্য কুনূত ওয়াজিব নয়। [20] দো‘আয়ে কুনূত রুকূর আগে ও পরে[21] দু’ভাবেই পড়া জায়েয আছে। আবু হুরায়রা (রাঃ) হ’তে স্পষ্টভাবে বর্ণিত হয়েছে যে,
.
أَنَّ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ إِذَا أَرَادَ أَنْ يَّدْعُوَ عَلَى أَحَدٍ أَوْ لِأَحَدٍ قَنَتَ بَعْدَ الرُّكُوْعِ، متفق عليه-
.
‘রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) যখন কারো বিরুদ্ধে বা কারো পক্ষে দো‘আ করতেন, তখন রুকূর পরে কুনূত পড়তেন…।[22] ইমাম বায়হাক্বী বলেন,
.
رُوَاةُ الْقُنُوْتِ بَعْدَ الرُّكُوْعِ أَكْثَرُ وَأَحْفَظُ وَعَلَيْهِ دَرَجَ الْخُلَفَاءُ الرَّاشِدُوْنَ-
.
‘রুকূর পরে কুনূতের রাবীগণ সংখ্যায় অধিক ও অধিকতর স্মৃতিসম্পন্ন এবং এর উপরেই খুলাফায়ে রাশেদ্বীন আমল করেছেন’। [23] হযরত ওমর, আব্দুল্লাহ ইবনে মাসঊদ, আনাস, আবু হুরায়রা (রাঃ) প্রমুখ ছাহাবী থেকে বিতরের কুনূতে বুক বরাবর হাত উঠিয়ে দো‘আ করা প্রমাণিত আছে।[24] কুনূত পড়ার জন্য রুকূর পূর্বে তাকবীরে তাহরীমার ন্যায় দু’হাত উঠানো ও পুনরায় বাঁধার প্রচলিত প্রথার কোন বিশুদ্ধ দলীল নেই।[25] ইমাম আহমাদ বিন হাম্বলকে জিজ্ঞেস করা হ’ল যে, বিতরের কুনূত রুকূর পরে হবে, না পূর্বে হবে এবং এই সময় দো‘আ করার জন্য হাত উঠানো যাবে কি-না। তিনি বললেন, বিতরের কুনূত হবে রুকূর পরে এবং এই সময় হাত উঠিয়ে দো‘আ করবে।[26] ইমাম আবু ইউসুফ (রহঃ) বলেন, বিতরের কুনূতের সময় দু’হাতের তালু আসমানের দিকে বুক বরাবর উঁচু থাকবে। ইমাম ত্বাহাবী ও ইমাম কার্খীও এটাকে পসন্দ করেছেন।[27] এই সময় মুক্তাদীগণ ‘আমীন’ ‘আমীন’ বলবেন।[28]
.
দো‘আয়ে কুনূত (دعاء قنوت الوتر) :
.
হাসান বিন আলী (রাঃ) বলেন যে, বিতরের কুনূতে বলার জন্য রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) আমাকে নিম্নোক্ত দো‘আ শিখিয়েছেন।-
.
اَللَّهُمَّ اهْدِنِيْ فِيْمَنْ هَدَيْتَ، وَعَافِنِىْ فِيْمَنْ عَافَيْتَ، وَتَوَلَّنِيْ فِيْمَنْ تَوَلَّيْتَ، وَبَارِكْ لِيْ فِيْمَا أَعْطَيْتَ، وَقِنِيْ شَرَّ مَا قَضَيْتَ، فَإِنَّكَ تَقْضِىْ وَلاَ يُقْضَى عَلَيْكَ، إنَّهُ لاَ يَذِلُّ مَنْ وَّالَيْتَ، وَ لاَ يَعِزُّ مَنْ عَادَيْتَ، تَبَارَكْتَ رَبَّنَا وَتَعَالَيْتَ، وَصَلَّى اللهُ عَلَى النَّبِىِّ-
.
উচ্চারণ : আল্লা-হুম্মাহ্দিনী ফীমান হাদায়তা, ওয়া ‘আ-ফিনী ফীমান ‘আ-ফায়তা, ওয়া তাওয়াল্লানী ফীমান তাওয়াল্লায়তা, ওয়া বা-রিক্লী ফীমা ‘আ‘ত্বায়তা, ওয়া ক্বিনী শার্রা মা ক্বাযায়তা; ফাইন্নাকা তাক্বযী ওয়া লা ইয়ুক্বযা ‘আলায়কা, ইন্নাহূ লা ইয়াযিল্লু মাঁও ওয়া-লায়তা, ওয়া লা ইয়া‘ইয্ঝু মান্ ‘আ-দায়তা, তাবা-রক্তা রববানা ওয়া তা‘আ-লায়তা, ওয়া ছাল্লাল্লা-হু ‘আলান্ নাবী’ ।[29]
.
জামা‘আতে ইমাম ছাহেব ক্রিয়াপদের শেষে একবচন…‘নী’-এর স্থলে বহুবচন…. ‘না’ বলতে পারেন।[30]
.
অনুবাদ : হে আল্লাহ! তুমি যাদেরকে সুপথ দেখিয়েছ, আমাকে তাদের মধ্যে গণ্য করে সুপথ দেখাও। যাদেরকে তুমি মাফ করেছ, আমাকে তাদের মধ্যে গণ্য করে মাফ করে দাও। তুমি যাদের অভিভাবক হয়েছ, তাদের মধ্যে গণ্য করে আমার অভিভাবক হয়ে যাও। তুমি আমাকে যা দান করেছ, তাতে বরকত দাও। তুমি যে ফায়ছালা করে রেখেছ, তার অনিষ্ট হ’তে আমাকে বাঁচাও। কেননা তুমি সিদ্ধান্ত দিয়ে থাক, তোমার বিরুদ্ধে কেউ সিদ্ধান্ত দিতে পারে না। তুমি যার সাথে বন্ধুত্ব রাখ, সে কোনদিন অপমানিত হয় না। আর তুমি যার সাথে দুশমনী কর, সে কোনদিন সম্মানিত হ’তে পারে না। হে আমাদের প্রতিপালক! তুমি বরকতময় ও সর্বোচ্চ। আল্লাহ তাঁর নবীর উপরে রহমত বর্ষণ করুন’।
.
দো‘আয়ে কুনূত শেষে মুছল্লী ‘আল্লাহু আকবার’ বলে সিজদায় যাবে।[31] কুনূতে কেবল দু’হাত উঁচু করবে। মুখে হাত বুলানোর হাদীছ যঈফ।[32] বিতর শেষে তিনবার সরবে ‘সুবহা-নাল মালিকিল কুদ্দূস’ শেষদিকে দীর্ঘ টানে বলবে’।[33] অতঃপর ইচ্ছা করলে বসেই সংক্ষেপে দু’রাক‘আত নফল ছালাত আদায় করবে এবং সেখানে প্রথম রাক‘আতে সূরা যিলযাল ও দ্বিতীয় রাক‘আতে সূরা কাফেরূণ পাঠ করবে।[34]
.
উল্লেখ্য যে, اَللَّهُمَّ إِنَّا نَسْتَعِيْنُكَ وَنَسْتَغْفِرُكَ আল্লা-হুম্মা ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা ওয়া নাস্তাগফিরুকা…’ বলে বিতরে যে কুনূত পড়া হয়, সেটার হাদীছ ‘মুরসাল’ বা যঈফ।[35] অধিকন্তু এটি কুনূতে নাযেলাহ হিসাবে বর্ণিত হয়েছে, কুনূতে রাতেবাহ হিসাবে নয়।[36] অতএব বিতরের কুনূতের জন্য উপরে বর্ণিত দো‘আটিই সর্বোত্তম। [37]
.
ইমাম তিরমিযী বলেন, لاَ نَعْرِفُ عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ فِي الْقُنُوْتِ شَيْئًا أَحْسَنَ مِنْ هَذَا ‘নবী করীম (ছাঃ) থেকে কুনূতের জন্য এর চেয়ে কোন উত্তম দো‘আ আমরা জানতে পারিনি’।[38]
.
কুনূতে নাযেলাহ (قنوت النازلة) :
.
যুদ্ধ, শত্রুর আক্রমণ প্রভৃতি বিপদের সময় অথবা কারুর জন্য বিশেষ কল্যাণ কামনায় আল্লাহর সাহায্য প্রার্থনা করে বিশেষভাবে এই দো‘আ পাঠ করতে হয়। ‘কুনূতে নাযেলাহ’ ফজর ছালাতে অথবা সব ওয়াক্তে ফরয ছালাতের শেষ রাক‘আতে রুকূর পরে দাঁড়িয়ে ‘রববানা লাকাল হাম্দ’ বলার পরে দু’হাত উঠিয়ে সরবে পড়তে হয়। [39] কুনূতে নাযেলাহর জন্য রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) থেকে নির্দিষ্ট কোন দো‘আ বর্ণিত হয়নি। অবস্থা বিবেচনা করে ইমাম আরবীতে[40] দো‘আ পড়বেন ও মুক্তাদীগণ ‘আমীন’ ‘আমীন’ বলবেন। [41] রাসূল (ছাঃ) বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্যক্তি বা শক্তির বিরুদ্ধে এমনকি এক মাস যাবৎ একটানা বিভিন্নভাবে দো‘আ করেছেন।[42] তবে হযরত ওমর (রাঃ) থেকে এ বিষয়ে একটি দো‘আ বর্ণিত হয়েছে। যা তিনি ফজরের ছালাতে পাঠ করতেন এবং যা বিরোধী শক্তির বিরুদ্ধে দৈনিক পাঁচবার ছালাতে পাঠ করা যেতে পারে। যেমন-
.
اَللَّهُمَّ اغْفِرْلَنَا وَلِلْمُؤْمِنِيْنَ وَالْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُسْلِمِيْنَ وَالْمُسْلِمَاتِ، وَأَلِّفْ بَيْنَ قُلُوْبِهِمْ وَأَصْلِحْ ذَاتَ بَيْنِهِمْ ، وَانْصُرْهُمْ عَلَى عَدُوِّكَ وَعَدُوِّهِمْ، اَللَّهُمَّ الْعَنِ الْكَفَرَةَ الَّذِيْنَ يَصُدُّوْنَ عَنْ سَبِيْلِكَ وَيُكَذِّبُوْنَ رُسُلَكَ وَيُقَاتِلُوْنَ أَوْلِيَاءَكَ، اَللَّهُمَّ خَالِفْ بَيْنَ كَلِمَتِهِمْ وَزَلْزِِلْ أَقْدَامَهُمْ وَأَنْزِلْ بِهِمْ بَأْسَكَ الَّذِيْ لاَ تَرُدُّهُ عَنِ الْقَوْمِ الْمُجْرِمِيْنَ-
.
উচ্চারণ : আল্লা-হুম্মাগফির লানা ওয়া লিল মু’মিনীনা ওয়াল মু‘মিনা-তি ওয়াল মুসলিমীনা ওয়াল মুসলিমা-তি, ওয়া আল্লিফ বায়না কুলূবিহিম, ওয়া আছলিহ যা-তা বায়নিহিম, ওয়ান্ছুরহুম ‘আলা ‘আদুউবিকা ওয়া ‘আদুউবিহিম। আল্লা-হুম্মাল‘আনিল কাফারাতাল্লাযীনা ইয়াছুদ্দূনা ‘আন সাবীলিকা ওয়া ইয়ুকায্যিবূনা রুসুলাকা ওয়া ইয়ুক্বা-তিলূনা আউলিয়া-আকা। আল্লা-হুম্মা খা-লিফ বায়না কালিমাতিহিম ওয়া ঝালঝিল আক্বদা-মাহুম ওয়া আনঝিল বিহিম বা’সাকাল্লাযী লা তারুদ্দুহূ ‘আনিল ক্বাউমিল মুজরিমীন।
.
অনুবাদ : হে আল্লাহ! আপনি আমাদেরকে এবং সকল মুমিন-মুসলিম নর-নারীকে ক্ষমা করুন। আপনি তাদের অন্তর সমূহে মহববত পয়দা করে দিন ও তাদের মধ্যকার বিবাদ মীগোশতা করে দিন। আপনি তাদেরকে আপনার ও তাদের শত্রুদের বিরুদ্ধে সাহায্য করুন। হে আল্লাহ! আপনি কাফেরদের উপরে লা‘নত করুন। যারা আপনার রাস্তা বন্ধ করে, আপনার প্রেরিত রাসূলগণকে অবিশ্বাস করে ও আপনার বন্ধুদের সাথে লড়াই করে। হে আল্লাহ! আপনি তাদের দলের মধ্যে ভাঙ্গন সৃষ্টি করে দিন ও তাদের পদসমূহ টলিয়ে দিন এবং আপনি তাদের মধ্যে আপনার প্রতিশোধকে নামিয়ে দিন, যা পাপাচারী সম্প্রদায় থেকে আপনি ফিরিয়ে নেন না’।[43]
.
অতঃপর প্রথমবার বিসমিল্লাহ… সহ ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা …. এবং দ্বিতীয়বার বিসমিল্লাহ… সহ ইন্না না‘বুদুকা …বর্ণিত আছে।[44]
.
উল্লেখ্য যে, উক্ত ‘কুনূতে নাযেলাহ’ থেকে মধ্যম অংশটুকু অর্থাৎ ইন্না নাস্তা‘ঈনুকা … নিয়ে সেটাকে ‘কুনূতে বিতর’ হিসাবে চালু করা হয়েছে, যা নিতান্তই ভুল। আলবানী বলেন যে, এই দো‘আটি ওমর (রাঃ) ফজরের ছালাতে কুনূতে নাযেলাহ হিসাবে পড়তেন। এটাকে তিনি বিতরের কুনূতে পড়েছেন বলে আমি জানতে পারিনি।[45]
.
[1] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৩; নাসাঈ হা/১৬৭৬; মির‘আত ২/২০৭; ঐ, ৪/২৭৩-৭৪; শাহ অলিউল্লাহ দেহলভী, হুজ্জাতুল্লা-হিল বা-লিগাহ ২/১৭। [2] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৪; ছহীহ আত-তারগীব হা/৫৯২-৯৩। [3] . ইবনুল ক্বাইয়িম, যা-দুল মা‘আ-দ (বৈরূত : মুওয়াসসাসাতুর রিসালাহ, ২৯ সংস্করণ, ১৪১৬/১৯৯৬) ১/৪৫৬। [4] . عَنِ ابْنِ عُمَرَ: أَنَّ رَجُلاً سَأَلَ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَنْ صَلاَةِ اللَّيْلِ، فَقَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: صَلاَةُ اللَّيْلِ مَثْنَى مَثْنَى، فَإِذَا خَشِيَ أَحَدُكُمُ الصُّبْحَ صَلَّى رَكْعَةً وَاحِدَةً تُوتِرُ لَهُ مَا قَدْ صَلَّى- বুখারী (ফাৎহ সহ) হা/৯৯০ ‘বিতর’ অধ্যায়-১৪; মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৫৪ ‘ছালাত’ অধ্যায়-৪, ‘বিতর’ অনুচ্ছেদ-৩৫। [5] . মুসলিম, মিশকাত হা/১২৫৫। [6] . ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৮৫। [7] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৫; আবুদাঊদ, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৬৩-৬৫; মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৬১। [8] . তিরমিযী, আবুদাঊদ, ইবনু মাজাহ মিশকাত হা/১২৬৮, ১২৭৯; নায়ল ৩/২৯৪, ৩১৭-১৯, মির‘আত ৪/২৭৯। [9] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৮; নায়লুল আওত্বার ৩/৩১৮-১৯। [10] . মির‘আত ৪/২৭৪; হাকেম ১/৩০৪ পৃঃ। [11] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৫৬; মির‘আত ৪/২৬২। [12] . মুসলিম, মিশকাত হা/১২৫৭; বায়হাক্বী ৩/৩০; মির‘আত ৪/২৬৪-৬৫। [13] . নায়লুল আওত্বার ৩/২৯৬; মির‘আত ৪/২৫৯। [14] . মিরক্বাত ৩/১৬০-৬১, ১৭০; মির‘আত হা/১২৬২, ১২৬৪, ১২৭৩ -এর ব্যাখ্যা দ্রষ্টব্যঃ ৪/২৬০-৬২, ২৭৫। [15] . দারাকুৎনী হা/১৬৩৪-৩৫; সনদ ছহীহ। [16] . হাকেম ১/৩০৫, আবুদাঊদ, দারেমী, মিশকাত হা/১২৬৯, ১২৭২। [17] . নাসাঈ হা/১৭০১, ‘ক্বিয়ামুল লাইল’ অধ্যায়-২০, অনুচ্ছেদ-৩৭; মির‘আত ৪/২৬০। [18] . তিরমিযী, আবুদাঊদ, নাসাঈ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৭৩। [19] . প্রাগুক্ত, মিশকাত হা/১২৭৩; মির‘আত ৪/২৮৩; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৬। [20] . আবুদাঊদ, নাসাঈ, তিরমিযী, মিশকাত হা/১২৯১-৯২ ‘কুনূত’ অনুচ্ছেদ-৩৬; মির‘আত ৪/৩০৮। [21] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৮৯; ইবনু মাজাহ হা/১১৮৩-৮৪, মিশকাত হা/১২৯৪; মির‘আত ৪/২৮৬-৮৭; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭; আলবানী, ক্বিয়ামু রামাযান পৃঃ ২৩। [22] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, মিশকাত হা/১২৮৮। [23] . বায়হাক্বী ২/২০৮; তুহফাতুল আহওয়াযী (কায়রো : ১৪০৭/১৯৮৭) হা/৪৬৩-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ২/৫৬৬ পৃঃ। [24] . বায়হাক্বী ২/২১১-১২; মির‘আত ৪/৩০০; তুহফা ২/৫৬৭। [25] . ইরওয়াউল গালীল হা/৪২৭; মির‘আত ৪/২৯৯, ‘কুনূত’ অনুচ্ছেদ-৩৬। [26] . তুহফা ২/৫৬৬; মাসায়েলে ইমাম আহমাদ, মাসআলা নং ৪১৭-২১। [27] . মির‘আত ৪/৩০০ পৃঃ। [28] . মির‘আত ৪/৩০৭; ছিফাত ১৫৯ পৃঃ; আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৯০। [29] . সুনানু আরবা‘আহ, দারেমী, মিশকাত হা/১২৭৩ ‘বিতর’ অনুচ্ছেদ-৩৫; ইরওয়া হা/৪২৯, ২/১৭২। উল্লেখ্য যে, কুনূতে বর্ণিত উপরোক্ত দো‘আর শেষে ‘দরূদ’ অংশটি আলবানী ‘যঈফ’ বলেছেন। তবে ইবনু মাসঊদ, আবু মূসা, ইবনু আববাস, বারা, আনাস প্রমুখ ছাহাবী থেকে বিতরের কুনূত শেষে রাসূলের উপর দরূদ পাঠ করা প্রমাণিত হওয়ায় তিনি তা পাঠ করা জায়েয হওয়ার পক্ষে মত প্রকাশ করেছেন -ইরওয়া ২/১৭৭, তামামুল মিন্নাহ ২৪৬; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭)। ছাহেবে মির‘আত বলেন, ইবনু আবী আছেম ও ছাহেবে মিরক্বাত বলেন, ইবনু হিববান বর্ণিত কুনূতে وَنَسْتَغْفِرُكَ وَنَتُوْبُ إِلَيْكَ -এসেছে (মির‘আত ৪/২৮৫)। তবে সেটি বর্তমান গবেষণায় প্রমাণিত হয়নি। সেকারণ আমরা এটা ‘মতন’ থেকে বাদ দিলাম। তবে দো‘আয়ে কুনূতের শেষে ইস্তেগফার সহ যেকোন দো‘আ পাঠের ব্যাপারে অধিকাংশ বিদ্বান মত প্রকাশ করেছেন। কেননা আল্লাহর রাসূল (ছাঃ) কুনূতে কখনো একটি নির্দিষ্ট দো‘আ পড়তেন না, বরং বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দো‘আ পড়েছেন (দ্রঃ আলী (রাঃ) বর্ণিত হাদীছ আবুদাঊদ, তিরমিযী প্রভৃতি, মিশকাত হা/১২৭৬; মাজমূ‘ ফাতাওয়া ইবনে তায়মিয়াহ ২৩/১১০-১১; মির‘আত ৪/২৮৫; লাজনা দায়েমাহ, ফৎওয়া নং ১৮০৬৯; মাজমূ‘ ফাতাওয়া উছায়মীন, ফৎওয়া নং ৭৭৮-৭৯)। তাছাড়া যেকোন দো‘আর শুরুতে হাম্দ ও দরূদ পাঠের বিষয়ে ছহীহ হাদীছে বিশেষ নির্দেশ রয়েছে (আহমাদ, আবুদাঊদ হা/১৪৮১; ছিফাত পৃঃ ১৬২)। অতএব আমরা ‘ইস্তেগফার’ সহ যেকোন দো‘আ ও ‘দরূদ’ দো‘আয়ে কুনূতের শেষে পড়তে পারি। [30] . আহমাদ, ইরওয়া হা/৪২৯; ছহীহ ইবনু হিববান হা/৭২২; শায়খ আব্দুল আযীয বিন আব্দুল্লাহ বিন বায, মাজমূ‘ ফাতাওয়া, প্রশ্নোত্তর সংখ্যা : ২৯০, ৪/২৯৫ পৃঃ। [31] . আহমাদ, নাসাঈ হা/১০৭৪; আলবানী, ছিফাতু ছালা-তিন্নবী, ১৬০ পৃঃ। [32] . ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৭; যঈফ আবুদাঊদ হা/১৪৮৫; বায়হাক্বী, মিশকাত হা/২২৫৫ -এর টীকা; ইরওয়াউল গালীল হা/৪৩৩-৩৪, ২/১৮১ পৃঃ। [33] . নাসাঈ হা/১৬৯৯ সনদ ছহীহ। [34] . আহমাদ, ইবনু মাজাহ, মিশকাত হা/১২৮৪, ৮৫, ৮৭; সিলসিলা ছহীহাহ হা/১৯৯৩। [35] . মারাসীলে আবুদাঊদ হা/৮৯; বায়হাক্বী ২/২১০; মিরক্বাত ৩/১৭৩-৭৪; মির‘আত ৪/২৮৫। [36] . ইরওয়া হা/৪২৮-এর শেষে, ২/১৭২ পৃঃ। [37] . মির‘আত হা/১২৮১-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ৪/২৮৫ পৃঃ। [38] . তুহফাতুল আহওয়াযী হা/৪৬৩-এর আলোচনা দ্রষ্টব্য, ২/৫৬৪ পৃঃ; বায়হাক্বী ২/২১০-১১। [39] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৮৮-৯০; ছিফাত ১৫৯; ফিক্বহুস সুন্নাহ ১/১৪৮-৪৯। [40] . মুসলিম, মিশকাত হা/৯৭৮, ‘ছালাতে অসিদ্ধ ও সিদ্ধ কর্ম সমূহ’ অনুচ্ছেদ-১৯; মির‘আত হা/৯৮৫-এর ব্যাখ্যা দ্রষ্টব্য, ৩/৩৪২ পৃঃ; শাওকানী, আসসায়লুল জার্রার ১/২২১। [41] . আবুদাঊদ, মিশকাত হা/১২৯০; মির‘আত ৪/৩০৭; ছিফাত ১৫৯ পৃঃ। [42] . মুত্তাফাক্ব ‘আলাইহ, আবুদাঊদ, নাসাঈ, মিশকাত হা/১২৮৮-৯১। [43] . বায়হাক্বী ২/২১০-১১। বায়হাক্বী অত্র হাদীছকে ‘ছহীহ মওছূল’ বলেছেন। [44] . বায়হাক্বী ২/২১১ পৃঃ। [45] . ইরওয়াউল গালীল হা/৪২৮, ২/১৭২ পৃঃ।
.
.
বইঃ ছালাতুর রাসূল (ছাঃ), অধ্যায়ঃ বিভিন্ন ছালাতের পরিচয়, অনুচ্ছেদঃ ১. বিতর ছালাত