মাথা মুন্ডন,ই-তবলিগী

Jubair Rahman

তলৰ হাদীছটো পোৱাৰ পিছত এতিয়া তবলিগী ভাইসকলে মাথা মুণ্ডন কৰা ছূন্নাত পৰিত্যাগ কৰিছে–

বইঃ সহীহ বুখারী (তাওহীদ), অধ্যায়ঃ ৯৭/ তাওহীদ, হাদিস নম্বরঃ ৭৫৬২

৯৭/৫৭. পাপী ও মুনাফিকের কিরাআত, তাদের স্বর ও তাদের কিরাআত কন্ঠনালী অতিক্রম করে না।

৭৫৬২. আবূ সা‘ঈদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত। নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ পূর্ব এলাকা থেকে একদল লোক উত্থিত হবে। তারা কুরআন পড়বে, কিন্তু তাদের এ পাঠ তাদের কন্ঠনালী অতিক্রম করবে না। তারা দ্বীন থেকে এমনভাবে বেরিয়ে যাবে, যেভাবে ধনুক থেকে তীর বেরিয়ে যায়। তারা আর ফিরে আসবে না, যে পর্যন্ত তীর ধনুকের ছিলায় ফিরে না আসে। বলা হল, তাদের চিহ্ন কী? তিনি বললেন, তাদের চিহ্ন হল মাথা মুন্ডন। (আধুনিক প্রকাশনী- ৭০৪১, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৭০৫২)

হাদিসের মানঃ সহিহ (Sahih) http://www.hadithbd.com/share.php?hid=32435

সপোনত পোৱা এটা তাবলিগ জামাত

1]-সপোনত পোৱা এটা তাবলিগ জামাত-

(Tablighi Jamaat ,Ilyasi , whose starting point is usually dated to 1927)

————————————————–
–ইলিয়াচি সপোনত পোৱা এটা তাবলিগ জামাত। এই দলৰ লোকসকলে সাধাৰণ মানুহবোৰক বিভিন্ন মনোমুগ্ধৰ কথাকৈ মায়াজালত আবদ্ধ কৰি নিজৰ দল ডাঙৰ কৰাৰ চেস্টা কৰে ।আৰু সাধাৰণ মানুহেও এওঁলোকৰ কথা শুনি লগতে ফায়দা ফযিলতৰ কথা শুনি আকৃষ্ট হয়। কিন্তু বেশিভাগ সাধাৰণ মানুহে এই তাবলিগ জামাতৰ কুফৰী আক্বীদা সম্পর্কে অবগত নহয়। সাধাৰণ লোকে এওঁলোকৰ আক্বীদা সম্পর্কে নাজানি কেৱল এওঁলোকৰ দাওয়াতী কামত যোগদি নবীওয়ালা কাম কৰিছে বুলি গর্ববোধ কৰে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এই চিল্লাওয়ালা স্বপ্নপ্রাপ্ত তাবলিগ হৈছে হাদিসত বর্ণিত খাৰেজী ফির্কা।
–খাৰেজী ফির্কা সম্পর্কে হাদিসত কি বর্ণিত আছে—-ক্রমশঃ—sgis-

+++++

2]-সপোনত পোৱা এটা তাবলিগ জামাত-
————————————————–

-খাৰেজী ফির্কা সম্পর্কে হাদিসত কি বর্ণিত আছে—-

–সাহাবী আবু সাঈদ খুদৰি ও হযৰত আলি (ৰাদ্বিয়াল্লাহু আনহুম) কয়যে, হুজুৰ পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামে কৈছিল, মোৰ বিদায়ৰ(মৃত্যু) পিছত পূর্ব দেশবোৰৰ মাজৰ পৰা কোনো এখন দেশৰ পৰা মোৰ উম্মতৰ ভিতৰৰ পৰা এটা দল বাহিৰ হব। এই দলৰ সদস্যসকল হব অশিক্ষিত আৰু মূর্খ। এওঁলোকৰ মাজলৈ কোনো শিক্ষিত লোক গলে তেৱো হৈযাব মূর্খৰ দৰে। তেওঁলোকৰ বক্তৃতা হব বহুগুণৰ ফযীলতৰ।তেওঁলোকৰ সকলো আমল হব খুব নিখুত ও সুন্দৰ । তেওঁলোকৰ নামাজৰ তুলনাত আপোনালোকৰ নামাজক তুচ্ছ জ্ঞান কৰিব, তেওঁলোকৰ ৰোজা দেখি আপোনালোকৰ ৰোজাক তুচ্ছ ও নগন্য বুলি ভাবিব। তেওঁলোকৰ আমল দেখি আপোনালোকৰ আমলক হেয় জ্ঞান কৰিব। তেওঁলোকে কোৰআন মজিদ পঢ়িব কিন্তু সেয়া তেওঁলোকৰ গলাৰ(কণ্ঠ) তললৈ নাযাব। তেওঁলোকে কোৰআনৰ ওপৰত আমল বা কোৰআন প্রতিষ্ঠাৰ কোনো চেষ্টাও নকৰিব। এওঁলোকৰ আমলে তোমালোকক যিমানে আকৃষ্ট নকৰক কিয়, কেতিয়াও এওঁলোকৰ দললৈ নাযাব। কাৰণ প্রকৃতপক্ষে এওঁলোক ইছলামৰ পৰা খাৰীজ, দ্বীনৰ পৰা বহির্ভূত । কাড়ঁ যিদৰে ধনুৰ পৰা বাহিৰহৈ যায়, সি আৰু কেতিয়াও ধনুৰ ওচৰলৈ ঘূৰি নাহে; ঠিক তেনেকৈ এওঁলোকো দ্বীনৰ পৰা আতঁৰি যাব, আৰু কেতিয়াও দ্বীনৰ পথলৈ আৰু কোৰআন ,সুন্নাহৰ পথলৈ ঘূৰি নাহে।””

দলীল- √ ফতহুল বাৰী ১২ তম খন্ড ৩৫০ পৃষ্ঠা । √ মিৰকাত শৰীফ ৭ম খন্ড ১০৭ পৃষ্ঠা ।
(সহীহ-দেওবন্দীৰ অন্যতম শায়খুল হাদিস মৃত আজিজুল হক।)

–চাওঁক-মূৰ মুণ্ডণ

–এইবোৰ হল খাৰেজীৰ লক্ষণ।

–এতিয়া এই লক্ষণসমূহ -সপোনত পোৱা তাবলিগ জামাতৰ মাজত আছে নে নাই, তাকে চাম।–ইন শ্বা আল্লাহ।
-ক্রমশঃ-sgis-

কিমান পাৱাৰফুল-sgis.

aa

1)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
………………………………..
হবিব সাহেব :-
–এজন চৰকাৰি চাকৰিয়াল। ১৮ লাখ টকা পেনছন পাইছে। সম্পূর্ণ টকাখিনি ব্যাংকত জমা ৰাখিলে যাতে ভবিষ্যতে ৰোগ-ব্যাধি হলে চিকিৎসা কৰাব পাৰে।কিন্তু মাহৰ শেষত ১৮ হাজাৰ ব্যাংকৰ পৰা উঠাই লবলৈ কেতিয়াও নাপাহৰে!
–মাত্র চাৰি বছৰৰ পিছতেই তেওঁ ক্যান্সাৰ ৰোগত আক্রান্ত হ’ল।
****************************************
2)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
—————————-
আফসানা:-
নিজৰ ভৰিৰ ওপৰত খাড়া নোহোৱালৈকে বিয়াত নবহে। স্বামীৰ টকাৰে তেওঁ নচলে।চল্লিছ বছৰহৈ গল ছোৱালীজনীৰ আজিও বিয়া নহল।
***************************************
3)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
………………………
ৰুমি :-
খুব পঢ়াশুনা কৰে ৰুমিএ।তাই কয়-পঢ়ালেখা নকৰিলে ভাল চাকৰি নাপায়। বিয়াৰ পাছত যদি স্বামী ঢুকাই থাকে তেতিয়া তাইৰ কি হব! ভবিষ্যতৰ কথাতো একো কব নোৱৰি।
হায়!! কি ভাগ্য; বিয়াৰ ৫ বছৰৰ পিছতেই স্বামীৰ মৃত্যু হল।
**************************************
4)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
………………………
–হবিব সাহেবে টকা জমা ৰাখিছিল, কাৰণ ৰোগ হব বুলি। চাওঁক তেওঁ নিজেই নিজৰ ৰোগক কিনেকৈ মাতি আনিছিল!
–আফসানাৰ দৰাই ভাগ্যত নহল, স্বামীৰ টকাৰেটো চলা বহুত দূৰৈৰ কথা।

–ৰুমিএ চাকৰি কৰে,কাৰণ তাইৰ স্বামীৰ মৃত্যু হব বুলি। তাই কাম কৰাৰ আগেই নিজেই কিভাবে নিজৰ গতিক ঠিক কৰি দিছে!
সুবহানআল্লাহ! আচৰিত হৈছে!
*************************************
5)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
………………………
“——মানুহে নিজৰ নিয়ত অনুযায়ী প্রতিফল পাব।———–“।
(সহীহ বুখাৰী (তাওহীদ)/১)-http://sunnah.com/bukhari/1/1
————————————————————————
–সুবহানআল্লাহ!এই কাৰণেইযে উল্লিখিত লোকসকলৰ কামটো কিন্তু তেওঁলোকৰ নিয়ত অনুযায়ী আগবাঢ়ি গৈছিল।
তেওঁলোকে যিধৰণেৰেই যি বিছাৰিছিল সকলোৱে তাকেই পাইছিল!
–নিয়ত কিমান পাৱাৰফুল এবাৰ ভাবি চাওঁক। উল্লিখিত লোকসকল কিন্তু আমাৰ আশেপাশেই আছে।
**************************************
6)-“কিমান পাৱাৰফুল”-
………………………
–হাজেৰাই ইব্রাহীমক(আঃ)কৈছিল, মানুহ নাই ঘৰ নাই পানী নাই গছ নাই এনেকুৱা ঠাইত আপোনাৰ স্ত্রী পুত্রক অকলে এৰি কলৈ গুছি যায়! আল্লাহে কি আপোনাক এনে কৰিবলৈ কৈছে?
ঠিক আছে আপুনি যাওঁক। আল্লাহে আমাক ধ্বংস নকৰে!
চাওঁক কি তাওয়াক্কুল।
–এই হজত হাজীসকলে সাফা-মাৰওয়া পাহাৰত দৌঢ়িলে জমজম কূৱাৰ পানী খালে, কেৱল তেওঁৰ(হাজেৰা) এই তাওয়াক্কুলৰ কাৰণে! ছুবহানাল্লাহ!
–মূসাই ( আঃ) নিজ শহৰ ত্যাগ কৰিছিল। ভবা নাছিল কত থাকিব কি খাব। বৰং কৈ গৈছিল নিশ্চয় আল্লাহে পথ দেখুৱাব। আল্লাহ সুবহানু ওয়া তা’লাই তেওঁক থকাৰ ব্যবস্থা কৰিতো দিলেই লগতে জীবনসঙ্গীসহ ১০ বছৰ থকাৰ ব্যবস্থা কৰি দিলে।
**************************************
7)-“কিমান পাৱাৰফুল”-END-
———————————-
–জানেনে হবিব সাহেবে কি কৈছিল অপাৰেশনৰ পাছত? টকাখিনি ব্যাংকত ৰাখিছিলো বাবেই আজি অপাৰেশনৰ টকাখিনিয়ে কামত দিলে, যোগাৰ নোহোৱা হলে বিছানাতেই মৰিব লগা হল হেঁতেন।
তেওঁ নিজৰ স্টেটমেন্ট হয়তো পাহৰি গৈছে। তেওঁ ব্যাংকত টকা ৰাখিছিল এই বুলিযে এসময়ত তেওঁৰ ৰোগ হব।
–আজি আপুনি মই আমি সকলোৱে আল্লাহক ভয় কৰা বাদদি ভয় কৰো ৰোগক, ভয় কৰো টকা নথাকাক।
–আমাৰ বহুতে কিমান তললৈ গৈছে এবাৰ ভাবি চোৱা উচিত। অজান্তেই(কব নোৱাৰাকৈ) শির্কৰ লগত জঢ়িতহৈ গৈছে আৰু তেওঁলোকে মাজাৰলৈ যোৱা দেখি কয় ‘আৰে তেওঁতো মৰি গৈছে তেওঁ কেনেকৈ তোমাক দিব’। তেওঁলোকৰবোৰ দেখা যায় তেওঁলোকক বুজাব পাৰি ; কিন্তু আপনাৰটো? আপোনাৰটোতো দেখা নেযায় গতিকে কোনে আপোনাক বুজাব?

–আপুনি ছাত্র হলে পঢ়িলেখাবোৰ আল্লাহৰ বাবে কৰক। চাকৰিটো আল্লাহৰ বাবে কৰক। তেওঁৰ নিয়মৰ ভিতৰত থাকি কৰক। তাওয়াক্কুল ৰাখক। ভাল ভাল নিয়ত কৰক। আপুনি সকলোতকৈ বেছি সুখী হ’ব। কোনেওঁ আপোনাক বাধা দিব নোৱাৰে, in sha Allah. –sgis-।।END।।
-copiled,edit,tran.-sgis-fm.mschaudhari.by.jalam-

তাবলিগ জামাতৰ লগত চিল্লাত যোৱা সম্পৰ্কে শ্বেইখ ছালিহ আল-ফওজান (হা’ফিজাহুল্লাহ) ৰ ফাতওয়া

তাবলিগ জামাতৰ লগত চিল্লাত যোৱা সম্পৰ্কে শ্বেইখ ছালিহ আল-ফওজান (হা’ফিজাহুল্লাহ) ৰ ফাতওয়া।
তোখেত বর্তমান আৰব বিশ্বৰ আটাইতকৈ জ্ঞানী আলেমৰ এজন, তেখেতৰ ফাতওয়া অনুবাদ কৰি তলত উল্লেখ কৰা হল।

“চিল্লা লগোৱা জায়েয নে?”

প্রশ্নকর্তাঃ আল্লাহ আপনাৰ লগত ভাল আচৰণ কৰে যেন, সম্মানিত শ্বেইখ!
এইটো জায়েজনে- কোনো ঠাইত ওলাই যোৱা এক মাহৰ কাৰণে , এক সপ্তাহৰ কাৰণে অথবা এদিনৰ কাৰণে যেনেকৈ তাবলিগ জামাতৰ মানুহবোৰ কৰি থাকে? এইটো ছুন্নাত নাকি বিদআ’ত?

শৰীয়তৰ জ্ঞান অর্জনৰ বাবে কোনোৱাৰ কাৰণে তবলীগ জামাতৰ লগত চিল্লাত যোৱা জায়েযনে?

শ্বেইখ ছালিহ আল-ফওজান ৰ ফাতওয়াঃ
“এইটা জায়েজ নহয়, কাৰণ এইটো এটা বিদআ’ত। এনেকৈ ওলাই যোৱা ৪০ দিন, ৪ দিন, ৪ মাহ এইটো হৈছে বিদআ’ত। এইটো প্রমানিত যে, তাবলিগ জামাত হৈছে ভাৰতীয় দেওবন্দী সকলৰ এটা “ছুফী” জামাত। সিহতে এখন দেশৰ পৰা অন্য দেশলৈ যায় সিহতৰ “ছূফীবাদ” প্রচাৰ কৰাৰ কাৰণে। আহলে ছুন্নত ওয়াল জামাতৰ অনুসাৰী কোনো ব্যক্তি, তাওহীদৰ অনুগত্য কৰা ব্যক্তিৰ কাৰণে এইটো জায়েজ নহয় যে, সিহতৰ (ছুফিৰ) লগত তাবলীগৰ কৰণে ওলাই যোৱা। কাৰণ তেও যদি ইহতৰ লগত যায় তেনেহলে তেও সিহতক বিদাত প্রচাৰ কৰাত সাহায্য কৰিল। আৰু মানুহে তেওক ঊদাহৰণ হিচাবে ব্যবহাৰ কৰি কব যে- “অমুক (আলেম বা শিক্ষিত লোক) সিহতৰ লগত তাবলীগত গৈছে”, অথবা সিহতে কব পাৰে “সাধাৰণ মানুহ সকলোৱে আমাৰ লগত যায়”, অথবা সিহতে কব “আৰে তাবলিগ জামাত এইদেশত (সৌদি আৰবত) বৈধ।” এইকাৰণে সিহতক পৰিত্যাগ কৰা ওয়াজিব, সিহতক পৰিত্যাগ কৰা ওয়াজিব আৰু সিহতৰ কামৰ ফালে মনোযোগ নিদিব (সিহতৰ কথাও নুশুনিব)।

এইটা এই কৰণেই যে, সিহতে যাতে সিহতৰ বিদআ’ত লৈ তেওলোকৰ দেশলৈ উভতি যাব, আমাৰ আৰব দেশ সমুহৰ মাজত প্ৰচাৰ কৰিব নোৱাৰিব। ইয়াৰ বাহিৰেও তেলোকৰ লগত যাই তেওলোকক শিক্ষা দিয়াও জায়েজ নহয়। এইটো ভুল, কাৰণ তেওলোকে দ্বীনৰ জ্ঞান অর্জন কৰিব নিবিচাৰে। তেওলোকে জ্ঞান অর্জন কৰিব নিবিচাৰে কাৰণ সিহতে ধোকাবাজিৰ মানুহ আৰু সিহতৰ বিশেষ উদ্দেশ্য আছে। তেওলোকে আহিছে তোমালোকক (ছূফীবাদ) শিক্ষা দিয়াৰ কাৰণে, সিহতে এই কাৰণে অহা নাই যে তোমালোকৰ পৰা কিবা শিকিব। তেওলোকে আহিছে তোমালোকক সিহতৰ “ছূফীবাদ” ও সিহতৰ “মাযহাব” শিক্ষা দিয়াৰ কাৰণে। সিহতে তোমালোকৰ পৰা একো শিকিবলৈ অহা নাই, কাৰণ সিহতে যদি শিকিবলৈ আহিলহেতেন তেনেহলে তেওলোকে আৰব দেশেৰ ওলামা সকলৰ লগত মসজিদত বহিলহেতেন আৰু ওলেমা সকলৰ কিতাব অধ্যায়ন কৰিলেহৈ।
– আল্লামাহ, শ্বেইখ ছালিহ আল-ফওজান।

ফাতওয়াটো শায়খ ফাওজান ৰ নিজ মুখৰ পৰাও শুনিবলৈ পাৰিব তলত দিয়া লিংকৰ পৰা। ইয়াৰ বাহিৰেও ইমাম মুহাম্মাদ ইবনে ইব্রাহিম ৰাহিমাহুল্লাহ, ইমাম বিন বাজ ৰাহিমাহুল্লাহ, ইমাম আলবানী সকলো আৰব দেশেৰ বহু আলেমই ভাৰতীয় দেওবন্দী ছুফি এই জামাতৰ গোমৰাহীৰ পৰা উম্মতক সতর্ক কৰিছে আৰু এওলোকৰ পৰা দুৰত থাকি বিশুদ্ধ কুৰআন ও সুন্নাহ ভিত্তিক অধ্যয়ন কৰিবলৈ কৈছে।

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) যে সকল স্থানে হাত উঠিয়ে দুআ করেছেনঃ[not grouping]

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) যে সকল স্থানে হাত উঠিয়ে দুআ করেছেনঃ
► বৃষ্টির জন্য ও বন্ধের জন্য।
(বুখারী ৯৩২, ৯৩৩, ১০১৩, ১০১৯, ১০২১, ১০২৯, ১০৩৩, ১০৩৫, ৩৫৮২, ৬০৯৩, ৬৩৪২; মুসলিম ৮৯৭, আহমাদ ১৩৬৯৪, বুখারী ১/১২৭ ও ১৪০ পৃঃ ফাতহুল বারী ৮/৫৩৮ পৃঃ)
► সূর্যগ্রহণের সময়।
(মুসলিম ১/২৯৯ পৃঃ, হাঃ নং ৯১৩)।
► উম্মতের জন্য রাসুলুল্লাহ (সাঃ) এর দুআ।
(মুসলিম ১/১১৩, ২০২)
► বীরে মাউনা, রাযী ও অন্যান্য ঘটনার প্রেক্ষীতে কুনূতে নাযিলার সময়। (বুখারী ১০০১, ৬৩৯৪; মুসলিম ৬৭৭; আহমাদ ১২১৫৩)
→বুখারী ও মুসলিমের হাদীসে হাত উঠানোর কথা উল্লেখ নেই, কিন্তু আনাস (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত অন্যান্য হাদীসে বলা হয়েছে যে আল্লাহর রাসুল (সাঃ) ফরয ছালাতের শেষ রাকআতে রুকু থেকে উঠে হাত তুলে দুআ কুনুত পাঠ করতেন এবং তাঁর শ্রদ্ধেয় সাহাবীরা পিছনে হাত উঠিয়ে আমীন আমীন করতেন। (মুসনাদ আহমাদ ১২৩৪২, বাইহাকী ২/২২১, আবু আওয়ানা ৪/৪৬২, তাবরানী সাগীর ১১১ পৃঃ, হিলি আতুল আওলিয়া ১/১২১-১২২ পৃঃ, ইরওয়াউল গালীল ২/১৮১ পৃঃ, ৮৩৮; সিফাতু সলাতিন নাবী ১৫৫ পৃঃ, মিশকাত ১১৩-১১৪ পৃঃ।)
► কবর যিয়ারতের সময়। (মুসলিম ১/৩১৩ পৃঃ ৯৭৪, নাসাঈ ২০৩৯)।
► কারো জন্য ক্ষমা চাওয়ার জন্য দুআ।
(বুখারী ২/৯৪৪ পৃঃ ২৮৮৪, ৪৩২৩, ৬৩৮৩, মুসলিম ২৪৯৮, আহমাদ ১৯৭১৩)
► মক্কা বিজয়ের পর বায়তুল্লাহকে দেখে।
(আবূ দাঊদ ১৮৭২, মিশকাত ২৫৭৫ সনদ ছহীহ, হজ্জ অধ্যায়)
► হজ্জে পাথর নিক্ষেপের সময়।
(বুখারী ১/২৩৬ পৃঃ, হাঃ ১৭৫১, ১৭৫২, ১৭৫৩, আবূ দাঊদ ১৯৭৩, নাসাঈ ৩০৮৩, মিশকাত ২৫৫৫)
► যুদ্ধক্ষেত্রে রাসুল (সাঃ) এর দুআ। (মুসলিম ২/৯৩, হাঃ ১৭৬৩)
► খালিদ বিন ওয়ালিদ (রাঃ)-এর কাজ অপছন্দ হওয়ার জন্য দুআ। (বুখারী ২/৬২২ পৃঃ, হাঃ ৪৩৩৯, ৭১৮৯)।
► মুমিনকে কষ্ট বা গালি দেয়ার প্রতিকারের দুআ। (ছহীহ আদাবুল মুফরাদ ৬১০, ২০৯ পৃঃ; ছহীহাহ ৮২-৮৩, ছনদ ছহীহ)
► ইসতিসকা ছাড়া রাসুল (সাঃ) অন্য কোথাও জামাআতী দুআর জন্য হাত উঠাতেন না। (বুখারী ১০৩১, ৩৫৬৫, ৬৩৪১; মুসলিম ৮৯৫)।
এই স্থানগুলি ছাড়া অন্য কোন জায়গায় হাত তুলে দুআ চাওয়া বৈধ নয়।

Nil Odhora Tutul very nice post.
Sanaulla Salafi
Sogood Islam Syeds
Write a reply…
 
Miraj Hossain
Miraj Hossain উত্তরের জন্য একটু ইন্তজার করি।
Sanaulla Salafi
Sanaulla Salafi Miraj Hossain@অপেক্ষায় থাকলাম
Shakil Talukder
Shakil Talukder Sanaulla Salafi: রাসূলুল্লাহ (সা:) কবর যিয়ারতের সময় হাত উঠিয়ে একাকী দুয়া করেছেন না কি সম্মিলিত ভাবে হাত উঠিয়ে দুয়া করেছেন?
Md Aamir Hossain
Md Aamir Hossain একাকি দুয়া করেছেন
Like · Reply · 2 · 21 hrs
Sanaulla Salafi
Sanaulla Salafi Shakil Talukder@ রাসূলুল্লাহ (সা:) কবর যিয়ারতের সময় হাত উঠিয়ে দুয়া করেছেন। [মুসলিম: ১/৩১৩ পৃঃ ৯৭৪, নাসাঈ: ২০৩৯]। কিন্তু সম্মেলিত ভাবে হাত তুলে দুআ নয়
Shakil Talukder
Shakil Talukder কবর জিয়ারতের সময় রাসূলুল্লাহ (সা:)-এর সাথে যারা ছিলেন তারা কি তার সাথে হাত উঠিয়েছিলেন?
Sanaulla Salafi
Sanaulla Salafi এ ধরনের বর্ণনা কেবল রাসূল সাঃ এর হাত তুলার সাথে সম্পর্কীত, সাহাবাদের হাত তুলার বিষয়টি আদৌ প্রমাণিত নেই।
Shakil Talukder
Shakil Talukder Sanaulla Salafi অতএব, পোষ্টের সময় হাদিসে অবশ্যই উল্লেখ করবেন যে, রাসূলুল্লাহ (সা:) কবর জিয়ারতের সময় একাকী হাত উঠিয়ে দুয়া করেছেন। তা না হলে মানুষ বিভ্রান্তিতে পড়বে।
হাদীসটি অনেক বছর আগেই জানা ছিলো।
Sogood Islam Syeds
Write a reply…
 
محمد عرفان
محمد عرفان যতটুকু জানি, রাসুল সাঃ শুধুমাত্র বিতর সালাতে ও বৃষ্টি কামনার জন্য সন্মিলিত দোয়া করতেন।

সম্মিলিত মুনাজাত,বিদ’আত

zx

short assamese-

–সালাতৰ(নামাজ) পিছত এই ভাবে সম্মিলিত মুনাজাতৰ প্রমাণ ৰাসূল (সাঃ) অথবা কোনো তাবেঈ বা কোনো মাযহাবৰ ঈমামৰ পৰা পোৱা নাযায় , মূল কথা হ’ল এই পন্থাটোৱেই হল কোৰআন- সুন্নাহৰ বিপৰীত কাম। (আহকামে দুয়া পৃঃ১৩)

–এই ভাবে মুনাজাত কৰাৰ নিয়ম
শাৰীয়তত নাই আৰু নাই কোনো সাহীহ হাদিছত বা কোনো জাল অথবা দূর্বল হাদিছত ! আৰু নাই কোনো ফিকাহৰ কিতাপত ! এই দুওয়া অবশ্যেই বিদ’আত। (আহকামে দুয়া ২১ পৃঃ) !!!

++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++++
MAIN-

ফরজ নামাজ শেষে ইমামগন মুসুল্লীদের কে নিয়ে যে সম্মিলিত মুনাজাত করে থাকেন,
এই ব্যাপারে উপমহাদেশের উলামারা কি বলেছেন:
————— ————— ————————–
* আল্লামা আঃ হাই লখনভী রহ. বলেন: বর্তমান সময়ে প্রচলিত প্রথা যে ঈমাম সালাত
শেষে সম্মিলিত ভাবে হাত তুলে দুয়া করেন সবাই কে নিয়ে এবং মুসুল্লীগন আমীন আমীন বলেন ! এ প্রথা রাসূল (সাঃ) এর যুগে ছিল না। (ফৎয়ায়ে আঃ হাই, ১ম খন্ড, ১০০ পৃঃ)* আল্লামা আবুল কাসেম নানুতুবী বলেনঃ ফরজ নামাজের শেষে সম্মিলিত মুনাজাত করা একটি নিকৃষ্ট বিদ’আত। (এমাদুদ্দিন পৃঃ৩৯৭)

* আশরাফ আলী থানভী রহ. বলেনঃ সালাতের পর এই সম্মিলিত মুনাজাত সম্পর্কে ঈমাম আরফাহ এবং ঈমাম গাবরহিনী বলেন, এই মুনাজাত কে মুস্তাহাব মনে করাও না-জায়েজ।( ইস্তিহবাবুদ দাওয়াহ পৃঃ৮)

* আল্লামা মুফতী শফী রহ. বলেনঃ সালাতের পর এই ভাবে সম্মিলিত ভাবে মুনাজাতের প্রমান রাসূল (সাঃ) অথবা কোন তাবেঈ বা কোন মাযহাবের ঈমাম এর নিকট হতেও পাওয়া যায় না, মূল কথা হলো এই পন্থাটা-ই হলো কুরান- সুন্নাহর বিপরীত কাজ। (আহকামে দুয়া পৃঃ১৩)

* মুফতী আযম ফয়জুল্লাহ হাটহাজারি রহ.বলেনঃ এই ভাবে মুনাজাত করার নিয়ম
শারীয়তে নেই আর না আছে কোন সাহীহ হাদিছে বা না কোন জাল অথবা দূর্বল
হাদিছে ! আর না কোন ফিকাহের কিতাবে ! এ দুয়া অবশ্য-ই বিদ’আত। (আহকামে দুয়া ২১ পৃঃ) !!!

এর পরেও আমার বুঝে আসেনা আমাদের দেশের মসজিদ গুলোতে ঈমামগনেরা কিভাবে এই বিদ’আতটির নেতৃত্ব তাদের মসজিদে দিয়ে যাচ্ছেন ! আর বর্তমানে আমার দেশে ইলমের চর্চা কত নিম্নে পৌছেছে যে হাজার হাজার আলেম-মুফতি, তারাও এ ব্যাপারে নীরব!!!

আল্লাহপাক আমাদের সকলকে কোরান-সুন্নাহর পথে চলার তৌফিক দান করুক আমীন
——————
[কপি]